বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসে ২০১৭ ১০:১২ ঘণ্টা

মাওলানা বরকতপুরী ও স্মৃতির ঢালি

Share Button

মাওলানা বরকতপুরী ও স্মৃতির ঢালি

জুনাইদ কিয়ামপুরী ● হজরত মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী হুজুর রাহমাতুল্লাহি আলাইহি দরগাহ মাদ্রসায় দীর্ঘ ২৮ বছর হাদিস পড়িয়েছেন। এর আগে গহরপুর জামেয়া হুসাইনিয়া মাদ্রাসায় কয়েক বছর হাদিসের দরস দিয়েছেন। বোখারি শরিফের দরস দিয়েছেন দক্ষিণগাছ মাদ্রাসা, দয়ামীর মাদ্রসাসহ বেশ কটি মাদ্রাসায়। হুজুরের ছাত্র সংখ্যা এত বেশি যে, গণনা করা মুশকিল।

বরকতপুরী হুজুর এ-যুগের আলিম হয়েও সে যুগের আলিমদের পর্যায় স্পর্শ করলেন। তাঁর মৃত্যুর পর সিলেটের সিংহভাগ মাদ্রাসাগুলো প্রায় অঘোষিত বন্ধ হয়ে গেলো। রাত থেকে শুরু হয়ে অর্ধেক দিনব্যাপী চলল কোরানে খতম। কত হাজার খতমে কুরানের সওয়াব যে আজ তাঁর আমলনামায় জমা হয়েছে; একমাত্র আল্লাহই ভালো জানেন।
সিলেটের অবিসংবাদিত বুযুর্গ যারা ছিলেন; যেমন ইমাম আকবর আলী রহ, আল্লামা গহরপুরী রহ., শেখ আব্দুল্লাহ হরিপুরী রহ.। তাদের জানাযায় উপচেপড়া মানুষের যে ঢল দেখেছি, আজ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ ঈসায়ী রোজ রবিবার সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে বরকতপুরী হুজুরের জানাযায় এর পুনরাবৃত্তি লক্ষ করলাম।
হুজুরের মধ্যে দুটো গুণ ছিল চোখে পড়ার মতো।


দুই. উদ্ভুত সমস্যার যুৎসই সমাধান বের করার ক্ষমতা।
এ-কারণেই তিনি অজস্র মাদ্রাসার অভিভাবক, উপদেষ্টা ছিলেন।


এক. ইন্তেজামের ক্ষমতা।
কাজে কর্মে সুবিন্যস্তকরণ, শৃঙ্খলাবোধ ছিল তাঁর স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্য।
দুই. উদ্ভুত সমস্যার যুৎসই সমাধান বের করার ক্ষমতা।
এ-কারণেই তিনি অজস্র মাদ্রাসার অভিভাবক, উপদেষ্টা ছিলেন।

তিনি হাফিজ ছিলেন না। কিন্তু যে কেউ তাঁর তেলাওত শুনলে হাফিজ মনে করতে বাধ্য হবে। খুব দ্রুত কুরানুল করিমের তেলাওয়াত করতে পারতেন।

এশকে নববীর প্রাবল্য ছিল হৃদয়ে। ফলে সুস্থ অবস্থায় রামাযানুল মুবারক হারামাইনে কাটানোর চেষ্টা করতেন।প্রায়ই এতেকাফ করতেন মদিনায়। দরসের ফাঁকে যখন মদিনার কথা ওঠত, অশ্রুসিক্ত হয়ে ওঠত তাঁর নয়নযুগল।

আবেগ মথিত হয়ে ওঠতেন তিনি।
কণ্ঠ ছিল ভরাট। ফলে বহু দূর থেকে তাঁর পড়ানোর আওয়াজ শুনা যেত। বিশেষ করে তাঁর উস্তাদ খাতিমাতুল মুহাদ্দিসিন আল্লামা ইউসুফ বানুরী রাহ. এর আলোচনা ওঠলে উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠতেন। স্মৃতি মন্থন করে একের পর এক নিয়ে আসতেন প্রিয় উস্তাদের নানা কীর্তিকথা।

হুজুর তো এমনিতেই সুন্দর। যখন ফক-ফকা সাদা পাঞ্জাবি আর সুফেদ শুভ্র রুমালে আবৃত হয়ে ক্লাসে আসতেন; চোখ জুড়িয়ে যেত। কেউ যখন প্রশংসা করে সাহস করে বলত, ” হুজুরকে আজ খুব সুন্দর লাগছে”।

উত্তরে বলতেন, আমার উস্তাদ ইউসুফ বানূরি রহ. আরো সুন্দর ছিলেন। শুরু করতেন উস্তাদের শ্রীবন্দনা।

আজ বরকতপুরী হুজুরের লাশের সামনে দাঁড়াতেই এরকম অনেক দৃশ্য স্মৃতিপটে ভেসে ওঠল। কর্ণকুহরে অনুরণিত হলো হুজুরের সেই সান্দ্রকণ্ঠের সুরলহরি।

আমাদের প্রার্থনা! মহান আল্লাহপাক যেনো হুজুরকে মাফ করে দেন। এবং তাঁকে জান্নাতুল ফেরদাউসের মেহমান বানিয়ে নেন।

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে