শুক্রবার, ২২ ডিসে ২০১৭ ১১:১২ ঘণ্টা

কাতালোনিয়ার নির্বাচনে স্বাধীনতাপন্থীদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা

Share Button

কাতালোনিয়ার নির্বাচনে স্বাধীনতাপন্থীদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা

ডেস্ক রিপোর্ট: স্পেনের কাতালোনিয়ার আঞ্চলিক পার্লামেন্টের নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে স্বাধীনতাপন্থী দলগুলো। পার্লামেন্টের বেশির ভাগ আসনেই তারা জয়ী হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। এখন স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতাপন্থীদের দ্বন্দ্ব আরও তীব্র হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) এই ভোটগ্রহণ হয়। গত অক্টোবরে গণভোটের রায় নিয়ে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার পর কেন্দ্রীয় সরকার প্রদেশটির পার্লামেন্ট বাতিল করে এ নির্বাচন দেয়।

ভোটের ফল প্রকাশের পরপরই বেলজিয়ামে স্বেচ্ছা নির্বাসনে থাকা কাতালোনিয়ার ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট কার্লোস পুজদেমন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘স্বাধীনতা আন্দোলন ব্যাহত করতে মারিয়ানো রাজয়ের (স্পেনের প্রধানমন্ত্রী) উদ্যোগ ব্যর্থ হয়েছে। নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও স্বাধীনতার পক্ষে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অব্যাহত রয়েছে।’

তবে নির্বাচনে একক দল হিসেবে বেশি আসন পেয়েছে সিটিজেনস পার্টি। এ দলটি কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা নয়, বরং স্বায়ত্তশাসন নিয়ে স্পেনের সঙ্গে থাকার পক্ষে। নির্বাচনের এ অবস্থায় কোন দলকে সরকার গঠনের জন্য আহ্বান জানানো হবে তা এখনও পরিষ্কার নয়।

নির্বাচনে ভোট পড়ে ৮০ শতাংশের বেশি। এরমধ্যে ২৫ শতাংশ ভোট পায় সিটিজেনস পার্টি। ১৩৫ সিটের পার্লামেন্টে তারা জিতেছে ৩৬টিতে।

অন্যদিকে, স্বাধীনতাপন্থী দল টুগেদার ফর কাতালোনিয়া, রিপাবলিকান লেফট অব কাতালোনিয়া ও পপুলার ইউনিটি মিলে ৭০টি আসনে জয়ী হয়েছে। এর মধ্যে ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট কার্লোস পুজদেমনের দল টুগেদার ফর কাতালোনিয়া অন্য দুটি দলের চেয়ে সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার পর পুজদেমনকে বরখাস্ত করে স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকার। এরপর তিনি বেলজিয়ামে পালিয়ে যান। ভোটের ফল প্রকাশের পর সেখানেই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তিনি।

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন