বুধবার, ২৭ ডিসে ২০১৭ ১১:১২ ঘণ্টা

প্রতিনিধি দল নিজামুদ্দিনে, সাদ সাহেবের জবানে রুজুর সুর!

Share Button

প্রতিনিধি দল নিজামুদ্দিনে, সাদ সাহেবের জবানে রুজুর সুর!

  • ইবাদুর রহমান,ইন্ডিয়া থেকে :   সাম্প্রতিক তাবলীগ জামাতের কিছু বিষয় নিয়ে, বিডি থেকে হিন্দুস্হানে আগত প্রতিনিধি দলের আপ্রাণ প্রচেষ্টায়, মহান রাব্বে কারীমের ফযল ও করমে, নীল আকাশে আমরা আশার আলো অবলোকন করছি।

যা গতকাল বাদ এশা, দিল্লী নেজামুদ্দিন মরকাজ মাসজিদে,হযরত মাওলানা সা’দ সাহেব দাঃ বাঃ এর বয়ানের মধ্যে আমরা প্রত্যক্ষ করছি।

পাঠকদের সুবিধার্থে আমি বয়ানের মূল অংশের হুবহু অনুবাদ নিম্নে পেশ করছি;

“আমার মুহতারাম দুস্ত ও বুজুর্গ! ইলম আমলের কষ্টিপাথর, ইলমই হচ্ছে উম্মতের আসল পরিচালক।
নিজেদের সমস্ত আমলকে উলামায়ে কেরামদের কাছে পেশ করতে হবে। উলামারাই হচ্ছেন উম্মতের কায়েদ এবং মুকতাদা আর উম্মত হলো মুকতাদী। উলামা এই জন্যই মুকতাদা বা মন্যবর যে , ইলম হলো আসল ইমাম ,আর আমল হচ্ছে ইলমের তাবে বা অনুসারী।
এ কারনে আমরা কদমে কদমে কথাবার্তায় কাজে কর্মে উলামাদের রাহবরী গ্রহণ করবো এবং তাদের তরফ থেকে পাওয়া হেদায়তের উপর চলবো। এটাই হচ্ছে বুনিয়াদী ও মূল কথা।
কেননা ইলম থেকে দূরে সরে যাওয়া মুর্খামি ও গুমরাহী, এই জন্য আমাদের উচিত সমস্ত কাজ কর্মের পূর্বে আমরা দেখব যে, তাতে উলামায়ে কেরামদের মতামত কি?

সাহাবায়ে কেরাম ও তা’বেয়ীন এই সম্পর্কে অনেক বেশী ভয় করতেন,তারা তাদের আমলের কবুলিয়াতের ব্যাপারে আমলের চেয়ে বেশী চিন্তা ফিকির করতেন যে, আমার এই কাজ ইলমের অনুযায়ী হলো কি না?
আমি এই ভুমিকা এই জন্য আরজ করলাম যে, কোন কোন সময় বয়ানের মধ্যে এমন বস্তু এসে যায়, যেগুলি আম্বিয়া আঃ দের সম্মান মর্যাদার পরিপন্হী হয়ে যায়।
যেমনি আমি ব্যক্ত করছি যে, বিভিন্ন জায়গায় বয়ানের মধ্যে হযরত মুসা আঃ এর ঘটনা; বিশেষ করে তার ইনফেরাদী (ব্যক্তিগত) এবাদতে মাশগুল হয়ে যাওয়া। এমন যেকোন কথা, যাতে আম্বিয়া আঃ এর সম্মান মর্যাদা এবং তাদের কৃতকর্মে একটা শরিষার দানার পরিমানও ভুল ভ্রান্তির সন্দেহও হয় এসব থেকে সর্বদা রজু করা উচিত বা করতে হবে।
এই ঘটনায় যেহেতু নিশ্চিত ভাবে এই কথার দিকে চলে যায় যে (নাউযুবিল্লাহ) মুসা আাঃ তার কওম থেকে বিচ্ছিন্ন/ আলাদা হওয়ার কারনে কওমের মধ্যে গুমরাহী এসেছিলো।
একথা না পররবর্তিতে বয়ান করা উচিত, না এই ভুলের সমর্থন বা পক্ষপাতিত্ব করার চেষ্টা করা উচিত।বরং এই সমস্ত কথা থেকে বেচে থাকা আবশ্যক।

এতে কোন সন্দহ নেই যে, আম্বিয়া আঃ দের যিম্মাদারী দুটি হয়ে থাকে, দাওয়াত ও ইবাদত, আর তারা এই দুটিতেই যথার্থ ও পরিপূর্ণ প্রচেষ্টা করে থাকেন।এই কথার ভাবনাও আসা উচিত নয় যে,তার কোন একটির কারনে অপরটির নোকসান হয়ে যায়।

সেই জন্য কোথাও বয়ানের মধ্যে যদি এই কথা এসেগিয়ে থাকে, তাহলে আমি এর থেকে রুজু করছি।এবং সাথিদেরকেও এ থেকে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

সাহাবায়ে কেরাম রাঃ ফতোয়া দেয়ার ব্যাপারে কতটাই সাবধানতা অবলম্বন করতেন!! কতটাই সতর্কতা অবলম্বন করতেন কোন কথার জবাব দেয়ার ব্যাপারে!!

দ্বিতীয় কথা হচ্ছে; এইযে, এই কথা প্রমানিত করার জন্য অপচেষ্টা করাটা ও ভুল কেননা যেটা ভুল সেটা সরর্বদাই ভুল।এই জন্য এর থেকে অর্থাৎ বিশ্বাসগত ভাবে এতেকাদান ও কাওলান রুজু করা উচিত।বরং আমি আরজ করছি যে আল্লাহ তালা উলামায়ে কেরামদেরকে জাযায়ে খায়ের দান করুন যে, তারা আমাদেরকে সর্বপ্রকার ভুল থেকে সতর্ক করে থাকেন।
আর এই কথা মনে রাখবেন যে, উলামায়ে কেরামদের এই সতর্ক করে দেয়ার কারনে তাদেরকে উম্মতের মুহসিন ও উপকারী মনে করতে হবে।নিজের কথার প্রমানের জন্য তাদেরকে বিরুধী মনে করা মুর্খতার পরিচয় বৈ কিছু নয়।তাই এটাই স্বাভাবিক কথা যে সতর্ককারী দেরকে সর্বদা মুহসিন মনে করবো।

সহাবায়ে কেরামগন রাঃ তাদের ভুল থেকে সতর্ককারী অপর সাহাবীকে সর্বদা দোয়া দিতেন। যেমন হযরত মুয়াবিয়া রাঃ কে যখন জনৈক সাহাবী তার ভুলের কারনে সতর্ক করলেন, তখন তিনি তার জন্য দোয়া করলেন; أحياني أحياه الله. সে আমাকে জীবনদান করেছে তথা সতর্ক করেছে আল্লাহ তা’লা তাকে বাচিয়ে রাখুন।”

মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে সকল গুমরাহী থেকে হেফাজত করুন এবং সঠিক বুঝ দান করুন এক ও নেক হওয়ার তাওফীক দান করুন। আমিন।

প্রসঙ্গত, তাবলিগের চলমান সংকট ও বিবাদমান দুটি গ্রুপের মধ্যে সমঝোতার লক্ষ্যে বাংলাদেশ থেকে একটি প্রতিনিধি দল ২৪ ডিসেম্বর যান। এ প্রতিনিধি দলে রয়েছেন , কাকরাইলের শুরার মুরব্বি মাওলানা যুবায়ের আহমদ ও সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, জামিয়া রাহমানিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহফুজুল হক, জামিয়া মাদানিয়া বারিধারার মুহাদ্দিস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, কাকরাইলের কারী মাওলানা যুবায়ের আহমদ ও কাকরাইলের মাওলানা জিয়া বিন কাসেম।

এই সংবাদটি 1,340 বার পড়া হয়েছে