সোমবার, ০১ জানু ২০১৮ ১২:০১ ঘণ্টা

তারেক রহমানের সাড়া পেলেন না খন্দকার মুক্তাদির !

Share Button

তারেক রহমানের সাড়া পেলেন না খন্দকার মুক্তাদির !

অলিদ তালুকদার: সম্প্রতি লন্ডন থেকে ঘুরে এলেন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্ঠা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। মূলত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানের সাথে স্বাক্ষাতই ছিলো তার মূল উদ্দেশ্য। দেখাপেলেও কিন্তু পাননি কোন সাড়া। জানাগেছে, তার দেখা করার মূখ্য উদ্দেশ্য ছিল মূলত বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সিলেট-১ আসনে নিজের জন্য মনোয়ন চাওয়া। কিন্তু তার আশার গুড়ে বালি হয়ে যায় তারেক রহমানের কাছ থেকে কোন সবুজ সংকেত না পাওয়ায়। এ ব্যপারে লন্ডনে অবস্থানরত তারেক রহমানের ঘনিষ্ঠভাজন যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতৃবৃন্দের মুখ থেকে শুনা যায়, সিলেট-১ আসন একটি অতি মর্জাদাপূর্ণ আসন। অতীতে দেখা গেছে এই আসনে জয়ী প্রার্থীর দল জাতীয় নির্বাচন শেষে সরকার গঠন করে। তাই এই আসনের জয় ছিনিয়ে আনতে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি দুই দলই পূর্বের ন্যায় হেভী ওয়েট প্রার্থী দিতে ইচ্ছুক। এক্ষেত্রে বিএনপিতে দলের এবং তৃণমূল নেতাকর্মীদের প্রথম পছন্দ বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও তার পুত্রবধু ডাঃ জোবায়দা রহমান। কোন কারণে তারা ইলেকশন করতে না চাইলে আলোচনায় আছেন আরেক সিনিয়র নেতা প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান জনাব ইনাম আহমদ চৌধুরী তবে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ইনাম চৌধুরীকে মানতে নারাজ। তারেক রহমানের কাছে আলোচনার শীর্ষে আছেন আরেক হেভিওয়েট নাগরীক সমাজের প্রিয় প্রার্থী, বার বার কারা নির্যাতিত নেতা, বিশিষ্ট চিকিৎসক সিলেট মহানগর বিএনপির সাবেক দুইবারের আহ্বায়ক অধ্যাপক ডাঃ শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী। প্রার্থী তালিকায় আরও আছেন উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে সিলেট বাসীর মনে স্থান করে নেওয়া আরেক কারা নির্যাতিত নেতা সিলেট মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি, সিলেটের বর্তমান মেয়র জনাব আরিফুল হক চৌধুরী। সাবেক পররাষ্ট্র সচিব কেন্দ্রীয় বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শমশের মোবিন চৌধুরী সাথে যোগাযোগ করলে তিনি দলের মধ্যে ফিরে আসা সম্ভাবনা নেই। শারীরিক ভাবে অসুস্থতাজনিত সমস্যা সহ বিভিন্ন কারণে আর রাজনৈতিক ভাবে না আসার বিষয়ে তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এক প্রশ্নের জবাবে বলেন ভবিষ্যৎ ও কোনো রাজনৈতিক দল বা রাজনৈতিক ভাবে অংশ গ্রহণ না করার বিষয়ে ও তিনি স্পষ্টভাবে ঘোষণা দেন। তিনি বলেন মনে প্রাণে শহীদ জিয়াউর রহমানের আদর্শের উপর অবিচল থাকার বিষয়ে দৃঢ় ভাবে অঙ্গিকার করেন এবং বলেন যতদিন জীবিত তাকবেন বিএনপিকে সমর্থন ভালোবাসায় আবদ্ব করে রাখবেন নিজেকে। সিলেটে দল বিএনপির বর্তমান অবস্তা সম্পর্কে বলেন আগের তুলনায় এখন সাংগঠনিক শক্তি কিছুটা নিস্কিয় ভাবে চলছে এবং দলীয় অভ্যন্তরিণ আস্তে আস্তে সক্রিয়তা অর্জন করার লক্ষ্যে হাটছে। সেই বিষয়ে তিনি দলের নিতিনিধারকদের দৃষ্টিপাত করে বলেন সিলেটের বর্তমান অবস্থা কে যথাযথ ভাবে সমাধান করার জন্য আহ্বান জানান। আগামী নির্বাচনে সিলেট- ১ আসনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন জাতীয় সংসদের ৩০০ আসনের মধ্যে সিলেট – ১ আসনটি অত্যন্ত গুরুত্ববহ। তিনি আরো বলেন বিভিন্ন ভাবে এই আসনটি অধিক মর্যাদাবান হিসেবে তার সু-পরিচিতি বহনযোগ্য। সেই হিসেবে দল বিএনপি উক্ত আসনটির দলীয় প্রার্থী দেওয়ার বিষয়ে সঠিকভাবে নিতান্ত নেওয়ার দরকার। তারি সাথে মাঠে ময়দানে এবং দলীয় কর্মকাণ্ডে সক্রিয় অংশ গ্রহন পর্যায়ের কাউকে দিলে তখন দলীয় কর্মীদের মধ্যে তাদের মনোভাব আরো আগ্রহ ভারবে এতে দলের অবস্থা শক্তিশালী হবে। তিনি আরো বলেন যেহেতু এই আসনটি মর্যাদাবান সেই হিসেবে শহীদ জিয়াউর রহমানের পরিবার থেকে কাউকে দেওয়া হলে ভালো হবে বলে মন্তব্য করেন এই বিষয়টি বর্তমান তৃনমূলের দাবী।
এতো সব হেভী ওয়েট প্রার্থীদের মধ্যে দলীয় নেতা কর্মীরা খন্দকার মুক্তাদিরকে সিলেট-১ আসনের প্রার্থী হিসেবে মানতে নারাজ। তারা মনে করেন মুক্তাদিরকে মনোয়ন দিলে তার বর্তমান অবস্থার কারনে বিএনপি হারতে পারে সিলেট বিভাগের ১৬টি আসন, কারণ সিলেট-১ আসনের প্রার্থীর উপর নির্ভর করে সিলেট বিভাগের অন্যান্য আসনের বিএনপির জয়।
এছাড়া বিভিন্ন কমিটি নিয়ে খন্দকার মুক্তাদির এর ব্যাপারে সিলেট বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মধ্যে চলছে চাপা ক্ষোভ। এর প্রধান কারণ হলো যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে তৃণমূল ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের মতামত অবমূল্যায়ন করে স্বেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে নিজস্ব সিন্ডিকেট তৈরী করে নিজের লোকদের দিয়ে কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া তার নিজেকে করেছে সক্রিয়। নেতাকর্মীদের মুখ থেকে শুনা যায় বিগত দিনে মুক্তাদিরের মাধ্যমে আসা সিলেট মহানগর ছাত্রদলের কমিটি সাংগঠনিক স্থবিরতার অভিযোগ এনে বিলুপ্ত ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল, এরপর থেকে প্রায় বছর খানেক হয়ে গেছে কমিটি নেই সিলেট মহানগর ছাত্রদলের। মেয়াদ উর্ত্তীর্ণ হয়ে আছে সিলেট জেলা ছাত্রদলের কমিটি, নেই যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটিও।নেতা কর্মীরা মনে করেন তার এই গ্রুপিংয়ের কারনেই আসছেনা সিলেটের কোন কমিটি। যুবদলের কমিঠি নিয়েও খন্দকার মুক্তাদিরের বিরুদ্ধে রয়েছে ক্ষোভ, উঠেছে অভিযোগও, তিনি নাকি নিজস্ব লোকদের দিয়ে কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছ থেকে অর্থের বিনিময়ে কমিটি নিয়ে আসতে দিয়েছেন প্রলোভন, যা মোটেও ভালো ভাবে নিচ্ছেনা সিলেট বিএনপির নেত্রীবৃন্দ। বড় অংকের টাকার বিনিমেয় জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি এনে সর্বপ্রথম সমালোচিত হন ব্যবসায়ী মোক্তাদির। মহানগর ছাত্রদলের কমিটির মধ্যে ছাত্রশিবিরের ক্যাডার লোকমান কে সেক্রেটারি হিসেবে নিয়ে আসেন মোক্তাদির। এছাড়াও অভিযোগের পাহাড় এর মধ্যে রয়েছে, বিএনপি সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানের নাম ভেঙ্গে কেন্দ্র থেকে তৃনমূল সহ সব জায়গায় সুবিধা আদায়ের প্রভনতা। তাই এই অগোছালো বিএনপির ক্লান্তি লগ্নে কে ধরবেন সিলেট বিএনপির হাল, সেই পথে চেয়ে আছেন সিলেটের বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল এবং তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

দলের মধ্যে যে সমস্ত প্রার্থী বিষয়ে বলেন নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী, নির্বাহী কমিটির সদস্য কর্মী বান্ধব মাঠের আন্দোলন সংগ্রামের সক্রিয়তা সক্ষম নেতা সাবেক দুই বারের মহানগর কমিটির সাবেক আহ্বায়ক ডাক্তার শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরীকে দলের মধ্যে এই আসনে ও প্রার্থী হিসেবে ভালো করতে পারেন। প্রার্থী হিসেবে সেই দক্ষতাসম্পন্ন। সেই বিষয়ে এখন দলের নিতিনিধারকদের মধ্যে সিদান্ত নেওয়ার বিষয়। দলের ফোরামে তারা সিদান্ত আলোচনার বিষয়ে মতামত ব্যক্ত করেন। তারি সাথে দলের সার্বিক অকার্যকরী ভুুমিকা নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেন।
দলের মধ্যে যে সমস্ত প্রার্থী বিষয়ে বলেন নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী, নির্বাহী কমিটির সদস্য কর্মী বান্ধব মাঠের আন্দোলন সংগ্রামের সক্রিয়তা সক্ষম নেতা সাবেক দুই বারের মহানগর কমিটির সাবেক আহ্বায়ক ডাক্তার শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরীকে দলের মধ্যে এই আসনে ও প্রার্থী হিসেবে ভালো করতে পারেন। প্রার্থী হিসেবে সেই দক্ষতাসম্পন্ন। সেই বিষয়ে এখন দলের নিতিনিধারকদের মধ্যে সিদান্ত নেওয়ার বিষয়। দলের ফোরামে তারা সিদান্ত আলোচনার বিষয়ে মতামত ব্যক্ত করেন। তারি সাথে দলের সার্বিক কার্যকরী ভুুমিকা নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেন।

এই সংবাদটি 1,095 বার পড়া হয়েছে