সোমবার, ০১ জানু ২০১৮ ১১:০১ ঘণ্টা

স্বাগত ২০১৮

Share Button

স্বাগত ২০১৮

সিলেট রিপোর্ট : স্বাগত ২০১৮। আজ ১ জানুয়ারি যাত্রা শুরু হলো আরো একটি ইংরেজি সালের।  রাত ১২টার পর থেকেই বিশ্ব মেতে ওঠে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর আনন্দে। মধ্যরাত পেরিয়ে যে সূর্যের দেখা মিলবে তা নতুন বছরের সূর্য। আর ওই সূর্যের আলোয় ভর করেই আসবে নতুন দিনের স্বপ্ন।  সিলেট রিপোর্ট এর সম্মানিত পাঠক,শুভাকাংখিদের প্রতি আন্তরিক অভিনন্দন।  গতকালই বিদায় নিল ২০১৭। সঙ্গে বিদায় নিয়েছে দুঃখ, কষ্ট আর স্বপ্ন ভেঙে যাওয়ার সময়গুলো। গত বছর অর্জনের ঝুলিটাও নিশ্চয়ই কম নয়। ওই সফলতার স্মৃতি থাকবে প্রেরণা হয়ে। যারা না ফেরার দেশে চলে গেছেন তাঁদের শূন্যতাও বার বার ফিরে আসবে। মানুষ প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে সব অন্ধকার মুছে, বাধা ডিঙিয়ে আরো উঁচু চূড়ায় ওঠার। এ বছর বড় চ্যালেঞ্জের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে নির্বাচন। বছরটিতে একের পর এক ভোট উৎসব হবে। ভোটের বছরজুড়ে রাজনীতি কোন পথে চলবে-এই কৌতূহল আজ প্রবলভাবে অনুভূত হবে।
দুঃস্বপ্নকে ভুলে নতুন করে বুক বাঁধার এটাই সেরা সময়। সেরা অর্জনকে শ্রেষ্ঠত্বে রূপ দেওয়ার এটাই সময়। নতুন বছর এ কারণেই বেশ তাৎপর্যপূর্ণ।
বাংলাদেশে ইংরেজি নববর্ষের আয়োজন আসে ভিন্ন আমেজ নিয়ে। জানুয়ারি মানেই শীতের পিঠাপুলির আয়োজন। গ্রামের পথ ধরে আসে হরেক রকমের শীতের সবজি। ঘরে ঘরে বাহারি নকশীকাঁথার বিলাসিতা। বাংলাদেশে নতুন বছর মানেই শীতের সকালে কুয়াশা ভেদ করে আসার নরম রোদ। শিশুর হাসির মতই নিষ্পাপ সেই রোদের তাপ। নতুন সম্ভাবনা নিয়ে ভাবার এরচেয়ে সেরা সময় আর কীইবা হতে পারে?

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিম-লে বহু ঘটনার সাক্ষী হয়ে মহাকালের অতল গর্ভে রবিবার সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে চলে গেছে বিগত বছর ২০১৭। আবহমান সূর্য একটি পুরনো বছরকে কালস্রোতের ঊর্মিমালায় বিলীন করে আবার শুরু করল যাত্রা। স্বপ্ন আর দিন বদলের অপরিমেয় প্রত্যাশার রক্তিম আলোয় উদ্ভাসিত ইংরেজী নতুন বছর শুরু হলো। লাখো প্রত্যাশার ঝাঁপি খুলে এবং সরকারের কাছে মানুষের অনেক প্রত্যাশায় আজ ভোরে কুয়াশায় ঢাকা পূর্বাকাশে উদয় হয়েছে নতুন বছরের লালসূর্য।

বাংলাদেশে ইংরেজি নববর্ষ মানেই স্কুলে নতুন বইয়ের গন্ধ। নতুন ক্লাসে উঠার আনন্দ। নব উদ্যমে নিজের পড়াশোনা গোছানোর প্রেরণা। নতুন বছরে শিশু-কিশোরদের হাতে আসবে নতুন বই। আবারো মেতে উঠা নতুন বইয়ের পাতায় পাতায়। গ্রামবাংলায় থাকবে নানা খেলার আয়োজন, নানা ধরনের মেলার আসর।

বার্তাসংস্থা বাসস জানিয়েছে, বাংলাদেশে ২০১৭ সাল ছিল বিভিন্ন ক্ষেত্রে অর্জনের বছর। এ বছর রাজনীতি, অর্থনীতি, কৃষি, জঙ্গি দমন এবং তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশ আশাতীত সাফল্য অর্জনসহ মধ্য আয়ের দেশে এগিয়ে যাওয়ার পথে উন্নীত হয়েছে।

এ বছর বিশ্ব সূচকেও বাংলাদেশের অনেক সাফল্য রয়েছে। এছাড়াও রাজনীতি এবং অর্থনীতি পরিবেশ ছিল শান্তিপূর্ণ। রাজনৈতিক পরিস্থিতি শান্ত থাকায় অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনেও এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ। এদিকে, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নববর্ষ ২০১৮ উপলক্ষে বাণী প্রদান করেছেন। নববর্ষ উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।
অপরদিকে, নববর্ষ উদযাপন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে পুলিশ বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করে নির্দেশ জারি করেছে। রাজধানীসহ বড় শহরগুলোতেও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

বিপুল প্রত্যাশা ও চ্যালেঞ্জ নিয়েই আজ থেকে যাত্রা শুরু করল আরও একটি নতুন বছর। নতুন খ্রিস্টাব্দের সূচনামূহূর্ত নিয়ে উচ্ছ্বাস-উল্লাস বাঙালী সংস্কৃতির নিজস্ব কোন অঙ্গ না হলেও পাশ্চাত্য-প্রভাবে শহরাঞ্চলে এর ব্যাপ্তি ঘটেই চলেছে। বিশেষ করে তরুণ সমাজের মধ্যে। বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর যারা অংশ, তারা জীবিকার কঠোর সংগ্রামে, সমস্যার ভারে এতই ক্লিষ্ট বিড়ম্বিত যে, এসব নিয়ে বিন্দুমাত্র মাথা ঘামানোর কোন অবকাশ নেই তাদের জীবনে। তারপরও কালপক্রিমায় নববর্ষ আসে, নতুন আশায়, স্বপ্নে উদ্দীপিত হয় মানুষ। বছরটি সাফল্যে উজ্জ্বল হয়ে উঠবে, মুছে যাবে ব্যর্থতার গ্লানি, এ রকম প্রত্যাশায় মানুষ উজ্জীবিত হয়। বৈশ্বিক পটভূমিতে খ্রিস্টীয় নববর্ষের গুরুত্ব এবং তাৎপর্য উপেক্ষা করার মতো নয় মোটেও। সবার প্রত্যাশা নতুন বছরে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার একটি সুখী ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ উপহার দেবে জাতিকে।সিলেট রিপোর্ট এর সম্মানিত পাঠক,শুভাকাংখিদের প্রতি আন্তরিক অভিনন্দন।

এই সংবাদটি 1,021 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com