সোমবার, ০১ জানু ২০১৮ ১২:০১ ঘণ্টা

সারা দেশে বই উৎসব আজ ,সিলেট বিভাগে বিনামূল্যের ২ কোটি বই

Share Button

সারা দেশে বই উৎসব আজ ,সিলেট বিভাগে বিনামূল্যের ২ কোটি বই

সিলেট রিপোর্ট: সারা দেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলে বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তক উৎসব হবে আজ। ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের জন্য বিনামূল্যের ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার ১৬২টি পাঠ্যবই বিতরণ করা হবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে চার কোটি ৪২ লাখ চার হাজার ১৯৭ জন শিার্থী রয়েছে বলে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে।  গত কয়েক বছরের মতো আজো নতুন ইংরেজি বর্ষের প্রথম দিন উৎসবের মাধ্যমে শিাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বিনামূল্যের বই বিতরণ করা হবে। শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীরা খালি হাতে স্কুলে আসবে, আর নতুন ঝকঝকে বই নিয়ে ঘরে ফিরবে। নতুন বছরে নতুন শ্রেণীতে ওঠার উচ্ছ্বাস আর নতুন বইপ্রাপ্তির আনন্দ দুয়ে মিলে খুশির বন্যা বয়ে যাবে দেশের প্রতিটি স্কুলে। গত পরশু বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিতরণের প্রতীকী উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণভবনে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলের একদল শিক্ষার্থীর হাতে নতুন শিক্ষাবর্ষের বিনামূল্যের পাঠ্যবই তুলে দেন তিনি। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মাধ্যমিক স্তরের এক সেট এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার প্রাথমিক স্তরের এক সেট বই প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। পরে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুল-মাদরাসা-কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নির্বাচিত কিছু শিক্ষার্থীর হাতে নতুন বছরের বই তুলে দিয়ে বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিতরণ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
আজ ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে মূল উৎসবের মধ্য দিয়ে শিার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হবে। সকালে আজিমপুর গভ: গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে মাধ্যমিকের এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে প্রাথমিকের কেন্দ্রীয় উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। দুই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন। এ ছাড়া সারা দেশে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আজ অনুরূপ অনুষ্ঠান হবে। এতে স্কুলের সব শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যবই বিতরণ করা হবে।
প্রাথমিকের শিার্থীদের অনেক আগে থেকে বিনামূল্যে বই দেয়া হলেও ২০১০ সাল থেকে পঞ্চম থেকে নবম শ্রেণীর সব শিার্থীকে বিনামূল্যে বই দিয়ে আসছে সরকার। এনসিটিবি জানিয়েছে, গত বছরের চেয়ে এবার ১০ লাখ ৭০ হাজার ৯৬৬ জন শিার্থী বেড়েছে। ফলে এবার ৭১ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬৯টি বই বেশি ছাপা হয়েছে। নতুন বছরের প্রথম দিন ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার ১৬২টি বই বিতরণ করা হবে।
এনসিটিবি সূত্রে দাবি করা হয়েছে, দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গতকালের মধ্যেই চাহিদামতো সব বই পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

সিলেট বিভাগে ২ কোটি বই:

প্রাথমিক মাধ্যমিক মিলিয়ে সিলেট বিভাগে ২ কোটি ১৯ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬টি বই বিতরণ করা হবে।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সিলেট বিভাগে প্রাথমিক পর্যায়ে বিতরণের জন্য ৭৯ লাখ ৯৪ হাজার ৪২৮টি বই সরবরাহ করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বই ভাগে জুটেছে সিলেটের জন্য ১ম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণের জন্য সিলেটে এসেছে ২৬ লাখ ১২ হাজার ১৬৩টি বই। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণীর বই রয়েছে ৩ লাখ ৫৪ হাজার ২৯১টি, দ্বিতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫টি, তৃতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ৬ লাখ ৪৫ হাজার ৫৫২টি, চতুর্থ শ্রেণীর বই রয়েছে ৬ লাখ ৪৯ হাজার ৮৭২টি এবং পঞ্চম শ্রেণীর বই রয়েছে ৬ লাখ ২১ হাজার ৮৪৩টি।
বইপ্রাপ্তির তালিকায় সিলেট বিভাগের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে সুনামগঞ্জ। এ জেলায় প্রাথমিক পর্যায়ে বিতরণের জন্য বই এসেছে ২১ লাখ ২২ হাজার ৫৭৫টি। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণীর বই রয়েছে ২ লাখ ৮২ হাজার ৭২০টি, দ্বিতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ২ লাখ ৭৮ হাজার ৭৮৪টি, তৃতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ৫ লাখ ২২ হাজার ৬৪৯টি, চতুর্থ শ্রেণীর বই রয়েছে ৫ লাখ ২৬ হাজার ১৬৯টি এবং পঞ্চম শ্রেণীর বই রয়েছে ৫ লাখ ১২ হাজার ২৫৩টি।

হবিগঞ্জ জেলায় প্রাথমিক পর্যায়ে বিতরণের জন্য বই সরবরাহ করা হয়েছে মোট ১৭ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮৫টি। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণীর বই রয়েছে ২ লাখ ৫২ হাজার, দ্বিতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ২ লাখ ৩৩ হাজার ৭৯০টি, তৃতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ৪ লাখ ৪৭ হাজার ৭০টি, চতুর্থ শ্রেণীর বই রয়েছে ৪ লাখ ৩২ হাজার ৮৫০টি এবং পঞ্চম শ্রেণীর বই রয়েছে ৩ লাখ ৭৯ হাজার ৬৭৫টি।
মৌলভীবাজারে প্রাথমিকে বিতরণের জন্য সব মিলিয়ে বই এসেছে ১৩ লাখ ৭২ হাজার ৯৪১টি। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণীর বই রয়েছে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৫৫০টি, দ্বিতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ১ লাখ ৮৩ হাজার ৪৪৪টি, তৃতীয় শ্রেণীর বই রয়েছে ৩ লাখ ২ হাজার ৭৬৯টি, চতুর্থ শ্রেণীর বই রয়েছে ৩ লাখ ৩৫ হাজার ২৩২টি এবং পঞ্চম শ্রেণীর বই রয়েছে ৩ লাখ ৬২ হাজার ৯৪৬টি।
সিলেটে বাফার স্টকে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর জন্য রয়েছে আরো ১ লাখ ৩৮ হাজার ৩৮৪টি বই।মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) সূত্রে জানা গেছে, ইবতেদায়ি পর্যায়ে সিলেট বিভাগে বিতরণ করা হবে মোট ১১ লাখ ৯৩ হাজার ৭৫টি। এর মধ্যে সিলেট জেলায় বিতরণের জন্য এসেছে ৫ লাখ ৩৪ হাজার ৪০৬টি, সুনামগঞ্জে এসেছে ২ লাখ ১৯ হাজার ৩২২টি, হবিগঞ্জে এসেছে ২ লাখ ৬ হাজার ৬৫৮টি এবং মৌলভীবাজারে এসেছে ২ লাখ ৩২ হাজার ৬৮৯টি বই।মাধ্যমিক পর্যায়ে সিলেট বিভাগে সব মিলিয়ে বই এসেছে ১ কোটি ৫ লাখ ৪১ হাজার ৪১৭টি বই। এর মধ্যে সিলেট জেলার ভাগে পড়েছে ৩৪ লাখ ২১ হাজার ৯০৪টি বই। সুনামগঞ্জে এসেছে ২৩ লাখ ১৯ হাজার ২৯৫টি বই। হবিগঞ্জে এসেছে ২৪ লাখ ২ হাজার ৪টি বই। মৌলভীবাজারে এসেছে ২৩ লাখ ৯৮ হাজার ২১৪টি বই।দাখিল পর্যায়ে বই এসেছে সব মিলিয়ে ২২ লাখ ৩ হাজার ৪০১টি। এর মধ্যে সিলেট জেলায় এসেছে ৮ লাখ ৪ হাজার ৩০৬টি বই। সুনামগঞ্জে এসেছে ৪ লাখ ৬৬ হাজার ৮১৪টি বই। হবিগঞ্জে এসেছে ৪ লাখ ৮৭ হাজার ৪৫টি বই। মৌলভীবাজারে এসেছে ৪ লাখ ৪৫ হাজার ২৩৬টি বই।সিলেট বিভাগে এসএসসি ভোকেশনালের বই এসেছে ২১ হাজার ১৮৫টি। এর মধ্যে সিলেট জেলায় এসেছে ২ হাজার ৫৫টি বই। সুনামগঞ্জে এসেছে ৬ হাজার ৮৪০টি বই। হবিগঞ্জে এসেছে ৫ হাজার ৪৯০টি বই। মৌলভীবাজারে এসেছে ৬ হাজার ৮০০টি বই। সিলেট বিভাগের জন্য দাখিল ভোকেশনালের বই এসেছে ৪৮০টি। সবগুলো বইই পড়েছে সুনামগঞ্জের ভাগে। সিলেট বিভাগের বিভিন্ন স্কুলের জন্য ইংরেজি সংস্করণের বই এসেছে ৩৯ হাজার ৭০০টি। এর মধ্যে সিলেট জেলায় এসেছে ৩৫ হাজার ৮৬৫টি বই। সুনামগঞ্জে এসেছে ৫৪৭টি বই। হবিগঞ্জে এসেছে ১ হাজার ৯০টি বই। মৌলভীবাজারে এসেছে ২ হাজার ১৯৮টি বই।প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপ-পরিচালক তাহমিনা আক্তার সিলেটভিউকে বলেন, এবার চাহিদামতো বইই পেয়েছি। যথা সময়ে সিলেটের সকল বিদ্যালয়ে বই পৌঁছে দেয়া হয়েছে। সকাল থেকে বই উৎসক শুরু হয়েছে। সকাল ৯টায় দক্ষিণ সুরমার কায়স্থরাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বই উৎসবের উদ্বোধন করনে বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম।মাউশি সিলেটের উপ পরিচালক জাহাঙ্গীর কবীর আহম্মদ জানান, আজ সকাল সাড়ে ৯টায় সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক পর্যায়ের বই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম ও সিলেটের জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার।

এই সংবাদটি 1,048 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com