সোমবার, ০১ জানু ২০১৮ ১২:০১ ঘণ্টা

এক নজরে ২০১৭ সালের ১০টি আলোচিত ঘটনা

Share Button

এক নজরে ২০১৭ সালের ১০টি আলোচিত ঘটনা

শাহিদ হাতিমী/সৈয়দ উবায়দুর রহমান,সিলেট রিপোর্ট:  ৩৬৫ দিন, ৫২ সপ্তাহ, ১২ মাস। দেখতে দেখতে কালের গর্ভে হারিয়ে যেতে বসেছে আরেকটি বছর। বিদায়ী এই ২০১৭ সালে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ঘটে গেছে নানা ঘটনা। কোনোটি সাফল্যের, ব্যর্থতার, সমালোচনার, আনন্দের কিংবা কোনোটি বেদনার ঘটনা। পুরো বছরের আলোচিত ১০টি ঘটনা ।এক নজরে ২০১৭ সালের ১০টি আলোচিত ঘটনাঘটনা বহুল আরেকটি বছরের সমাপ্তির দোরগোড়ায় বিশ্বাবাসী। বিদায়ী এ বছরে নানান ঘটনার সাক্ষী হয়ে আছে দেশ। এমনকি বাংলাদেশের কয়েকটি ঘটনা বিশ্ববাসীকেও নাড়া দিয়েছে। তন্মোধ্য রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশে আশ্রয় দান। অন্যদিকে বছরের প্রায় শেষ দিকে পোপ ফ্রান্সিসের বাংলাদেশ সফরও আলোচনায় ছিল বিশ্ববাসীর কাছে। রাজধানীর বনানীতে জন্মদিনের দাওয়াত দিয়ে ধর্ষণ, নারায়ণগঞ্জের মর্মান্তিক ৭ খুন মামলার রায়, নিজ বাসায় আততায়ীদের হাতে ক্ষমতাসীন দলের এমপি লিটন হত্যা, ভুলে ভরা পাঠ্যবই নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলে বছর জুড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একের পর এক ইস্যু নিয়ে চলে সরব মন্তব্য, কটুক্তি আবার কখনও বা প্রশংসা ।

এছাড়া আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী কর্তৃক সিদ্দিকুরের চোখে টিয়ারসেল নিক্ষেপ আর কোমলমতি শিশুদের দ্বারা ‘পদ্মাব্রিজ’ তৈরি করে পিঠের ওপর দিয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের হেঁটে যাওয়া অমানবিকতার উদাহরণ হিসেবে আলোচিত হয়েছে। বছরের শুরুতেই রাজধানীতে দুই সন্তানকে হত্যা করে মায়ের আত্মহত্যা সবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে সমাজের অন্ধকার ও অজানা ক্ষত। অন্যদিকে বছরের শেষে রোবট সোফিয়ার বাংলাদেশ সফর তথ্যপ্রযুক্তি প্রেমীদের মধ্যে উন্মাদনা, উৎসাহ সৃষ্টি করছে। সোফিয়াকে দেখতে গিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রতি অকুন্ঠ সমর্থন বেশ সাড়া জাগিয়েছে। ২০১৭ ছিল অন্যান্য বছরের চেয়ে অন্যরকম। এই বছরে ঘটনার ঘনঘটায় একটির অন্তরালে চলে গেছে অন্যটি। তাই নির্দিষ্ট করে ১০টি আলোচিত ঘটনা উল্লেখ করা দুরূহ। তবে গ্লোবালভিশন টোয়েন্টিফোর ডটকমের দৃষ্টিতে ১০টি আলোচিত ঘটনা নিম্নরুপ:

#রোহিঙ্গাদের ঢল ও মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন

দেশের দশটি ঘটনার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হলো মিয়ানমার সরকারের গণহত্যার শিকার রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয়। প্রথমে সরকার রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে প্রবেশে বাধা দিলেও পরে সীমান্ত এলাকা খুলে দেয়া হয়। প্রতিদিন হাজার হাজার রোহিঙ্গা জীবণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন।
এর আগে থেকেই কয়েক লাখ রোহিঙ্গার ভরণপোষন করে আসছে বাংলাদেশ। বছর শেষে সব মিলে এই সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়ে যাবে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। এ বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গার বাংলাদেশে আশ্রয় ও তাদের ওপর অত্যাচার নিপিড়ন ও গণহত্যার খবর দেরিতে হলেও বিশ্ববিবেককে নাড়া দেয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের আশ্রয় দেয়ায় মাদার অব হিউমিনিটি উপাধি পান। সীমিত সম্পদ নিয়ে হত্যার শিকার রোহিঙ্গাদের পাসে দাঁড়ানোর পর বিশ্ববাসীর প্রসংশা পায় বাংলাদেশ। পরে এটি বিশ্ব ইস্যু হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু এখনও রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে তেমন কোনো অগ্রগতি দৃশ্যমান নয়।

#বনানীতে ধর্ষণ

গত ২৮ মার্চ বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন বলে অভিযোগ করেন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া দুই শিক্ষার্থী। ঘটনার প্রায় দেড়মাস পর তারা বনানী থানায় মামলা করেন। এরপর এ নিয়ে শুরু হয় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা। ধর্ষণের ঘটনাটি ভিডিও করেছিল ধর্ষকরা। এই ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকির পাশাপাশি তাদের বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতিও দেখানো হয়।

মামলার আসামিরা হলেন- আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ, তার বন্ধু ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ‘ই-মেকার্স এর কর্মকর্তা নাঈম আশরাফ, ঢাকার পিকাসো রেস্তারাঁর অন্যতম মালিক রেগনাম গ্রুপের এমডি মোহাম্মদ হোসেন জনির ছেলে সাদমান সাকিফ এবং সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও দেহরক্ষী রহমত আলী। সাফাত ও নাঈম ধর্ষণে সরাসরি অংশ নেন এবং বাকিরা তাদের সহযোগিতা করেন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের পরিদর্শক ইসমত আরা এমি। মামলার পর আপন জুয়েলার্সে অভিযান চলায় শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। আর সেখান থেকে প্রায় সাড়ে তিনশ কেজি অবৈধ সোনা উদ্ধার করা হয়। আসামিরা এখনও জেলাহাজতে।

#৭ মার্চ ভাষণের স্বীকৃতি ॥ বছরের শেষ ভাগে ৩০ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ভাষণকে ইউনেস্কো মেমোরি অব দ্য ওর্য়াল্ড’ বা ‘বিশে^র স্মৃতি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। এরপরও সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনায় আসে এই স্বীকৃতি। জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণেই মুক্তির ডাক ছিল, ছিল স্বাধীনতার ঘোষণা। আজও বাঙালী হৃদয়ে তুলে রেখেছে এই ভাষণের প্রতিটি শব্দ। অনন্তকাল জুড়েই সকলের অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে ৭ মার্চের ভাষণ।

#নারায়ণগঞ্জের ৭ খুন মামলার রায়

২০১৪ সালের এপ্রিলের ২৭ তারিখ আদালত থেকে ফেরার পথে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ ৫ জন এবং তার আইনজীবী চন্দন সরকার ও সরকারের ড্রাইভারকে অপহরণ করা হয়। এর তিনদিন পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

বিদায়ী বছরে ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জের আদালত সাত খুন মামলায় ৩৫ জনকে দণ্ডিত করে রায় ঘোষণা করা হয়। দণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে স্থানীয় সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেনসহ র‌্যাব- ১১ এর সাবেক অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, সাবেক কোম্পানি কমান্ডার মেজর আরিফ হোসেন এবং লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মাসুদ রানাসহ মোট ২৬ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। র‌্যাবের আরও নয়জন সাবেক কর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়। আসামীরা আপিল করলে ২২ আগস্ট নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুন মামলায় রায় দেয় হাইকোর্ট । রায়ে ১৫ জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। মামলার ডেথ রেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) ও আপিলের ওপর রায়ে হাইকোর্ট ১১ জনের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন এবং বিভিন্ন মেয়াদে সশ্রম কারাদণ্ডপ্রাপ্তদের সাজাও বহাল রেখেছেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেন, র‌্যাব-১১-এর সাবেক অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, সাবেক কোম্পানি কমান্ডার মেজর আরিফ হোসেন এবং লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মাসুদ রানা।

#এমপি লিটন হত্যা

বিদায়ী বছর শুরুর মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ক্ষমতাসীন দলের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে নিজ বাড়িতে ঢুকে গুলি হত্যার ঘটনায় হকচকিয়ে ওঠে দেশবাসী। সর্বানন্দ ইউনিয়নের শাহাবাজ এলাকায় নিজের বাড়িতে হামলার শিকার লিটনকে সঙ্গে সঙ্গে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলেও তাকে বাঁচানো যায়নি। ২০০৫ সালে হবিগঞ্জে আওয়ামী লীগের শাহ এএমএস কিবরিয়াকে হত‌্যার এক দশক পর কোনো সংসদ সদস‌্য হত‌্যাকাণ্ডের শিকার হলেন।

লিটনের দল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা হত‌্যাকাণ্ডের জন‌্য প্রথমে জামায়াতে ইসলামীকে সন্দেহ করলেও পরে জাতীয় পার্টির এমপি প্রার্থী কর্নেল (অব.) ডা. আব্দুল কাদের খানকে গ্রেফতার করে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী। পরে তিনি হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেন। এখন তিনি জেলে আছেন। ৪৮ বছর বয়সী লিটন এবারই প্রথম সংসদ সদস‌্য নির্বাচিত হন। তিনি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার (মেরিন) ছিলেন; আনন্দ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালকও ছিলেন তিনি। তার এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে দেশের আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী পরিস্থিতি অবনতি হয়েছে বলেও অনেকে দাবি করেন। সরকার ব্যাপক চাপে পড়ে।

#পাঠ্যপুস্তকে ভুল

বরাবরের মত বছরের শুরুতেই সরকার দক্ষতার সঙ্গে প্রাথমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে পাঠ্যবই তুলে দিয়ে প্রশাংসা কুড়ায়। কিন্তু বই গুলোতে অসংখ্য ভুল ধরা পড়ে। মলাট ঝকঝকে হলেও, ভেতরে ছাপার মান অত্যন্ত নিম্নমানের। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণীর ‘আমার বাংলা বই’র বর্ণ পরিচয় অংশে ‘ওড়না’ বিতর্ক, পঞ্চম শ্রেণীর ‘আমার বাংলা বই’ এবং ‘বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়’- বইয়ে বানান ভুল, প্রথম শ্রেণীর ‘আমার বাংলায়’ ১১নং পৃষ্ঠায় ‘ছাগল আম খায়’-এর মতো ‘হাস্যকর’ তথ্য ছিল। এছাড়া তৃতীয় শ্রেণীর ‘আমার বাংলা বই’এ পদ্য ‘বিকৃত’ করাসহ ছিল নানা ধরনের ভুলভ্রান্তি। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলে সমালোচনার ঝড়।

প্রথম শ্রেণীর বাংলা বইয়ে বর্ণ পরিচয়ে ‘ও’-তে ‘ওড়না চাই’ বিষয়টি নিয়েও বিতর্ক উঠেছে। পঞ্চম শ্রেণীর বইয়ে সমুদ্র বানানকে লেখা হয়েছে সমুদ। প্রথম শ্রেণীর বাংলা বইয়ের লেখা ও ছবিতে ‘ছাগল গাছে উঠে আম খাচ্ছে’ বোঝাতে চেয়েছেন লেখক। বাংলা পাঠ্যবইটির ১১ পাতায় অ-তে অজ (ছাগল) বোঝাতে গিয়ে ছাগলের ছবি জুড়ে দেয়া হয়েছে।

অষ্টম শ্রেণীর আনন্দপাঠ বইটির সূচিপত্রে দেয়া সাতটি গল্পের সবগুলোই বিদেশী লেখকদের গল্প, উপন্যাস অবলম্বনে লেখা বা ভাষাগত রূপান্তর করা হয়েছে। গল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে- আরব্য উপন্যাস অবলম্বনে ‘কিশোর কাজী, মার্ক টোয়েনের ‘রাজকুমার ও ভিখারির ছেলে’, ড্যানিয়েল ডিফোর ‘রবিনসন ক্রুশো’, ফরাসি উপন্যাসিক মহাকবি আবুল কাশেম ফেরদৌসীর ‘সোহরাব রোস্তম’, উইলিয়াম শেকসপিয়ারের ‘মার্চেন্ট অব ভেনিস’, ওয়াশিংটন আরবি রচিত গল্প অবলম্বনে ‘রিপভ্যান উইংকল’ এবং লেভ তলস্তয়ের ‘সাড়ে তিন হাত জমি’। এটা নিয়ে সমালোচনা করেছেন অনেকেই। এটাকে বিদেশী সাহিত্যের হিমাগার বলেছেন কেউ কেউ।

#সিদ্দিকুরের চোখে টিয়ারসেল পরে অন্ধ

গত ২০ জুলাই সকালে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে নীতিমালা প্রণয়নসহ সাত দফা দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাতটি কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। পুলিশ ওই মানববন্ধনে বাধা দিলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বাধেঁ। একপর্যায়ে টিয়ারসেল ছুড়েলে ওই টিয়ারসেলের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের দুই চোখ।

সিদ্দিকুর রহমানকে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে সরকারের পক্ষ থেকে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতের চেন্নাইয়ে নেয়া হয়। কিন্তু চোখ আর ভাল হয়নি সিদ্দিকুরের। স্বাস্থ্যমন্ত্রী তাকে এসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেডে চাকরিতে নিয়োগ দেন। এখন অন্ধ সিদ্দিকুর সেখানেই মানিয়ে চলারে চেষ্টা করছেন।

#চাঁদপুর ও জামালপুরে মানবসেতুর ওপর দিয়ে হাঁটা

চাঁদপুর ও জামালপুরে স্কুলের কোমলমতি শিশু কিশোর শিক্ষার্থীদের মানবসেতু বানিয়ে হেটে চলার ঘটনায় দেশ জুড়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে। প্রথমে চাঁদপুরের হাইমচরে পদ্মাসেতুর অনুরূপ মানব সেতুর মাধ্যমে ছাত্রদের পিঠের উপর দিয়ে হেঁটে যাওয়ায় উপজেলা চেয়ারম্যান নুর হোসেন পাটওয়ারী হেঁটে যান। পরে ছবিটি ফেসবুকে ফাইরাল হয়ে যায়। এ নিয়ে একের পর এক সংবাদ প্রকাশ হয়। ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ তাকে দল থেকে বহিস্কারও করে। চাঁদপুর শিশু আদালতে হয় মামলা। পরে আত্মসর্ম্পন করে জামিনে মুক্তি পান তিনি। এ ঘটনার জন্য দু:খও প্রকাশ করেন। কিন্তু এই ঘটনায় ব্যাপক সমালোচনার মধ্যেই জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলায় শিক্ষার্থীদের তৈরি মানবসেতুতে হেঁটে যাওয়ার ছবি খবরে এসেছে। বিদ্যালয়ের জমিদাতা দিলদার হুসেন প্রিন্স শিক্ষার্থীদের মানবসেতুর ওপর দিয়ে হেঁটে যাওয়া ছবি নিয়ে জেলাজুড়ে তোলপাড় চলছে। সেখানেও সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

#সোফিয়ার বাংলাদেশ

হংকং এর একটি কোম্পানি ‘হ্যান্সন রোবোটিক্স’ ‘সোফিয়া’ নামের যে রোবটটি তৈরি করেছে সেই নারী রোবট ‘সোফিয়া’ এবার বাংলাদেশে আসছে। এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের প্রধান আকর্ষণ ছিল সিঙ্গাপুরে তৈরি ও সৌদি আরবের নাগরিকত্ব পাওয়া কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন রোবট সোফিয়া। ঢাকায় আসে সোফিয়া এর নির্মাতা ডেভিড হ্যানসনও।

ঢাকায় এসে ‘টেক টক উইথ সোফিয়া’ শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে পরে সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ে সোফিয়া। ২৪ ঘণ্টারও কম সময় ঢাকায় অবস্থান করে এ রোবট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনায় শীর্ষে পৌঁছে যায়। সবারই আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু ছিল রোবট সোফিয়ার নানা দিক। তবে সোফিয়াকে বাংলাদেশে আনতে কত টাকা খরচ হয়েছে তা নিয়ে শুরু হয় নানা বিভ্রান্তি। ১০ থেকে ১২ কোটি টাকা খরচ করে সোফিয়াকে আনা হয়েছে দাবি করে অনেকে ফেসবুকে সমালোচনাও করেন।

 

#এসকে সিনহার সরে যাওয়া ॥ বছর জুড়ে নানা ঘটনায় সরকারের সমালোচনা করার পর বছরের শেষ দিকে এসে ১১ দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়ে পদত্যাগ করেন বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে ক্ষমতাসীনদের তোপের মুখে পড়েন তিনি। এছাড়াও বছর জুড়ে বিতর্কিত বক্তব্য রেখে ছিলেন আলোচিত। এই বিতর্কের এক পর্যায়ে এক মাসের বেশি ছুটি নিয়ে চলতি বছর ১৩ অক্টোবর বিদেশে যান বিচারপতি সিনহা। সেই ছুটি শেষে ৯ নবেম্বর তার পদত্যাগপত্র পাওয়ার কথা জানায় বঙ্গভবন। ২০১৫ সালের ১৭ জানুয়ারি দেশের ২১তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেন এস কে সিনহা। ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পদত্যাগের মধ্য দিয়ে ৮১ দিন আগেই তার কার্যকাল শেষ হয়।

 

এই সংবাদটি 1,469 বার পড়া হয়েছে