সোমবার, ০১ জানু ২০১৮ ১২:০১ ঘণ্টা

২০১৭ সালের আলোচিত বিবাহ-বিচ্ছেদ

Share Button

২০১৭ সালের আলোচিত বিবাহ-বিচ্ছেদ

অনলাইন রিপোর্ট : বিদায়ী বছর ২০১৭ সালে বাংলাদেশের শোবিজ অঙ্গনের অনেক তারকা তাঁদের দাম্পত্য জীবনের ইতি টেনেছেন। নানা ভাঙা-গড়ার মধ্য দিয়ে কেটেছে তাঁদের এ বছরটি। অভিনয় ও সংগীতশিল্পীদের বহুল আলোচিত বিবাহ-বিচ্ছেদ নিয়ে সাজানো হয়েছে এই প্রতিবেদনটি।

 

শাকিব খান-অপু বিশ্বাস

ঢালিউডের শীর্ষ তারকা শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিয়ের কথা ফাঁস হয় গত ১০ এপ্রিল। একটি টেলিভিশনের লাইভে এসে অপু বিশ্বাস তাঁদের দীর্ঘ নয় বছরের গোপন বিয়ের কথা প্রকাশ করেন। সন্তান আব্রাহাম খান জয়কে নিয়ে অপু বিশ্বাস লাইভে আসেন। এরপর, নানা চড়াই-উৎরাই শেষে গত ২৮ অক্টোবর শাকিব খান তালাকের নোটিশ পাঠান অপু বিশ্বাসের কাছে।

tahsan and mithila

অভিনয়তারকা তাহসান ও মিথিলা। ছবি: দ্য ডেইলি স্টার

তাহসান-মিথিলা

২০০৪ সালে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান তাহসান-মিথিলা। ২০০৬ সালের ৩ আগস্ট বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন এই জুটি। এ দম্পতির আয়রা তাহরিম খান নামে একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। চলতি বছরের ২০ জুলাই তাহসান-মিথিলা তাঁদের প্রায় ১১ বছরের সংসারের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটান। জনপ্রিয় এই তারকা জুটির বিবাহ-বিচ্ছেদ বছরজুড়েই ছিল টক অব দ্য টাউন।

 

হাবিব

চট্টগ্রামের মেয়ে রেহানের সঙ্গে দ্বিতীয় সংসার পেতেছিলেন সংগীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদ। গত ২৬ জানুয়ারি এই দম্পতির আনুষ্ঠানিকভাবে বিবাহ-বিচ্ছেদ হয়। ২০১১ সালে চট্টগ্রামে এক কনসার্টে গান গাইতে গিয়ে গোপনে রেহানকে বিয়ে করেন হাবিব। এই সংসারে তাঁদের আলীম ওয়াহিদ নামে এক পুত্রসন্তান রয়েছে। বিচ্ছেদের কারণ হিসেবে জানা যায় মডেল অভিনেত্রী তানজিন তিশার সঙ্গে হাবিবের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। তবে, সেই সম্পর্কও পরে ভেঙ্গে যায়।

 

বাঁধন

লাক্স তারকা বাঁধন ২০১০ সালের ৮ সেপ্টেম্বর মাশরুর সিদ্দিকীকে বিয়ে করেন। সায়রা নামে তাঁদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। ২০১৪ সালে বাঁধন ও মাশরুরের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। তাঁদের বিচ্ছেদের বিষয়টি গোপন ছিল। চলতি বছরে তা প্রকাশ পায়।

Mila and Parvez

কণ্ঠশিল্পী মিলা ও স্বামী পারভেজ সানজারি। ছবি: সংগৃহীত

মিলা

প্রায় ১০ বছর প্রেম করার পর গত ১২ মে পারিবারিক আয়োজনে বিয়ে করেন সংগীতশিল্পী মিলা ও পারভেজ সানজারি। বিয়ের কিছুদিন পর নির্যাতন এবং যৌতুকের অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন এই কণ্ঠশিল্পী। গত ৬ অক্টোবর মিলা তাঁর ফেসবুক ভেরিফাইড ফ্যান পেজে বিবাহ-বিচ্ছেদের বিষয়টি জানান।

Shakh and Nilay

অভিনয়তারকা শখ ও নিলয়। ছবি: সংগৃহীত

শখ-নিলয়

২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি ভালোবেসে বিয়ে করেন অভিনয়তারকা নিলয় ও শখ। পারিবারিক আয়োজনে তাঁদের বিয়ে হয়। কিন্তু, ২০১৭ সালের মাঝামাঝি তাঁদের বিচ্ছেদের গুঞ্জন ওঠে। যদিও তাঁরা এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানাননি। তবে অনেকদিন ধরেই আলাদা থাকছেন এই দম্পতি।

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন