বুধবার, ০৩ জানু ২০১৮ ১১:০১ ঘণ্টা

বিনামূল্যের বইয়ের দাম ৫০ টাকা!

Share Button

বিনামূল্যের বইয়ের দাম ৫০ টাকা!

ডেস্ক রিপোর্ট: সরকারের তরফ থেকে বোর্ডের বইগুলো বিনামূল্যে বিতরণের কথা থাকলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা মানা হচ্ছে না। অনেকটা ওপেন সিক্রেট স্টাইলেই বিভিন্ন বইয়ের বাজারে বিক্রি হচ্ছে এসব বই। যদিও ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে চার কোটি শিক্ষার্থীর হাতে তুলে দেয়ার জন্য নতুন বই ছাপানো হয়েছে ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ১৬২টি। আর বই বিতরণের দিন থেকেই রাজধানীর বাংলাবাজার, নীলক্ষেত, মোহাম্মদপুর, উত্তরাসহ অভিজাত এলাকার বইয়ের দোকানে বিনামূল্যের বই বিক্রি হচ্ছে।

ঢাকার সবচেয়ে বড় বইয়ের বিক্রয়স্থল বাংলাবাজারে সরেজমিন দেখা যায়, এখানে দেদারসে বিক্রি হচ্ছে বিনামূল্যের বই। মূল্য ২৫ থেকে ৫০ টাকা। প্রথমে কয়েকটি দোকানে জিজ্ঞেস করলে জানা যায় এই বইগুলো পাওয়া যাবে ফুটের (রাস্তার পাশের অস্থায়ী) দোকানে।

 

কিছুক্ষণ খোঁজ করার পর দেখা মেলে হকার রহমানের। তার কাছে জিজ্ঞাসা করতেই তিনি জানান, যেকোন বোর্ডের বই অনায়াসেই এনে দিতে পারবেন। এজন্য বই প্রতি তাকে দিতে হবে ২৫ থেকে ৫০ টাকা। তার কথায় রাজি হয়ে টাকা বুঝিয়ে দেয়ার পনের মিনিটের মধ্যেই তিনি হাজির করেন ঝকঝকে তকতকে নতুন শিক্ষাবর্ষের বই।

তবে চাহিদার সবগুলো বই তার কাছে পাওয়া যায় না। মেলে শুধু ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণীর বোর্ডের বইগুলো। তিনি জানান, পরবর্তীতে আসলে প্রথম শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণীর বইগুলোও পাওয়া যাবে। এ মুহূর্তে শেষ হয়ে গেছে।

একটু এগিয়ে কথা হয় সেলিম নামের এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে। তিনি জানান, প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর বোর্ডের সব বই তিনি এনে দিতে পারবেন। তবে বই প্রতি ৫০ টাকা করে দিতে হবে। পরে দরদাম করলে দাম কমিয়ে ৩৫ টাকা পর্যন্ত রাখার কথা জানান সেলিম। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর সেলিম ৩য় থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত বই সংগ্রহ করে নিয়ে আসেন। বলেন, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর বই বাজারে নেই।

অন্য বই থাকলেও প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর বই কেন পাওয়া যাচ্ছে না এমন প্রশ্নে সেলিম বলেন, আসলে এই বইগুলো তো বিক্রির জন্য নয়। তাই সব জায়গায় পাওয়া যায় না। কয়েকটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে আমরা বইগুলো সংগ্রহ করি। চাহিদা অনুযায়ী আমরা তাদের কাছ থেকে বই এনে বিক্রি করি। সব সময় সব বই তাদের কাছে পাওয়া যায় না।

আর একটু এগিয়ে গিয়ে কথা হয় সেলিম নামের আরেক দোকানীর সঙ্গে। তিনি জানান, প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর বোর্ডের সব বই এনে দিতে পারবেন। তবে বই প্রতি ৫০ টাকা করে দিতে হবে। পরে দরদাম করলে দাম কমিয়ে ৪০ টাকা পর্যন্ত রাখার কথা জানান সেলিম। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর সেলিম ৩য় থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত বই সংগ্রহ করে নিয়ে আসেন। বলেন, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর বই বাজারে নেই, আগামীকাল দেয়া যাবে।

শুধু রাস্তার পাশের অস্থায়ী দোকান নয়, বাংলাবাজারের স্থায়ী বইয়ের দোকানগুলোতে খোঁজ নিলে সেখান থেকেও জানানো হয় একটু অপেক্ষা করলেই বোর্ডের সব শ্রেণীরই বই পাওয়া সম্ভব। বইগুলো বাইরে থেকে এনে দিতে হবে। তবে বাইরে কোথায় বইগুলো বিক্রি করা হয় জানতে চাইলে সে প্রশ্নের কোনো সদুত্তর মেলেনি তাদের (ব্যবসায়ী) কাছ থেকে।

 

যেভাবে বাজারে ছড়ায় বিনমূল্যের বই:

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিনামূল্যের বই বাজারে আনার পেছনে কাজ করছে পাঁচটি সিন্ডিকেট। পুস্তক মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান, থানা নির্বাহী অফিসার (টিএনও), জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং উপজেলা শিক্ষা অফিস ও স্কুলের কিছু অসাধু শিক্ষক।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে বাংলাবাজারের এক প্রকাশনীর কর্ণধার পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, বিনামূল্যের বই বাজারে বিক্রি হওয়ার বিষয়টি কিন্তু খুব সহজ না। প্রথমে টিএনও, উপজেলা শিক্ষা অফিস এবং কিছু স্কুলের অসাধু শিক্ষকরা যে পরিমাণ বই লাগবে তার দ্বিগুণ পরিমাণ বইয়ের প্রিন্টিং ইস্টিমেট দেন। পরে এনসিটিবি ও প্রিন্টিং প্রেসের দায়িত্বপ্রাপ্তরা নিজেদের মধ্যে কমিশন ভাগাভাগি করার বিষয়টি নির্ধারণ করেন। এক্ষেত্রে বই বিক্রির টাকা পাঁচটির জায়গায় ছয় ভাগে ভাগ হয়। অতিরিক্ত একটি ভাগ যায় পুলিশের পকেটে।

বই কিভাবে বাজারে আসে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাতের অন্ধকারে মুদ্রিত বই বোঝাই ট্রাক নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সামনে পৌঁছানোর পর তা আনলোড করা হয়। পরে সেখান থেকে বাড়তি বইগুলো নির্ধারিত লোকের মাধ্যমে বাজারে ছড়িয়ে দেয়া হয়। বই বিক্রির টাকা নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেয়া হয়, এক্ষেত্রে কেউ কাওকে ছাড় দেয় না।

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) চেয়ারম্যান প্রফেসর নারায়ণ চন্দ্র সাহা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, এমন অভিযোগ প্রতি বছরই পাওয়া যায়। এ বছরও আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম। বিনামূল্যের বই বিক্রি বন্ধে আমরা আগেও অভিযান চালিয়েছি, এবারও চালাবো।

পর্যাপ্ত বই পাচ্ছে না স্কুলগুলো, ভর্তির পর দেয়া হবে বই:

এদিকে রাজধানীর কয়েকটি স্কুলের শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, চাহিদার থেকে কম বই দেয়া হচ্ছে স্কুলগুলোতে। এ কারণে বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীদের বাইরে থেকে বিনামূল্যের এসব বই কিনে নিতে হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্কুলের শিক্ষক পরিবর্তন ডটকমকে জানান, পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এ বছরও আমাদের অনেক কম বই দিয়েছে। কিন্তু আমাদের তো অনেক শিক্ষার্থী। তাই বাইরে থেকে বই কিনতে বাধ্য হচ্ছেন তারা।

অন্যদিকে কয়েকটি স্কুলের অভিভাবকরা অভিযোগ করেছেন, বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়ার কথা থাকলেও স্কুলগুলোতে সেটি মানা হচ্ছে না। স্কুল থেকে জানানো হয়েছে শিক্ষার্থীদের ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়ার পরই তাদের হাতে বিনামূল্যের এসব বই তুলে দেয়া হবে। পুরান ঢাকার কে. এল জুবিলী স্কুল এন্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র জয় মন্ডল পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, বছরের প্রথম দিন অনেক স্কুলে নতুন বই দিয়েছে কিন্তু আমরা পাইনি। স্কুল থেকে বলা হয়েছে ভর্তির টাকা পয়সা জমা দেয়ার পরই বই দেয়া হবে।

–সুত্র-পরিবর্তন

এই সংবাদটি 1,026 বার পড়া হয়েছে