Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | বরেণ্য আলেম আব্দুল বাসিত বরকতপুরী (রহ.)
বৃহস্পতিবার, ০৪ জানু ২০১৮ ১১:০১ ঘণ্টা

বরেণ্য আলেম আব্দুল বাসিত বরকতপুরী (রহ.)

Share Button

বরেণ্য আলেম আব্দুল বাসিত বরকতপুরী (রহ.)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: দেশের অন্যতম শীর্ষ আলেমে দ্বীন, আযাদ দীনি এদারায়ে তালিম বাংলাদেশ (কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড)-এর মহাসচিব, বৃহত্তর সিলেটের একজন চিন্তাশীল বরেণ্য আলেম মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী আমাদের মাঝে আর নেই।  তিনি গত ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ রোজ  শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় সিলেট নগরীর একটি ক্লিনিকে  চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহী ওয়াইন্নাইলাইহি রাজিউন। পরদিন রোববার বেলা আড়াইটায় সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা ময়দানে প্রবীণ এ আলেমের জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় বিপুল সংখ্যক আলেম-উলামা,তৌহিদী জনতার উপস্থিতি তার জনপ্রিয়তার বিষয়টি প্রমান করে। দুপুর ১২টার আগেই আলিয়া মাদরাসা ময়দান লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।  জানাযায় ইমামতি করেন মরহুমের ২য় ছেলে মাওলানা উনাইস আহমদ। তিনি স্ত্রী, ৭ ছেলে, ৩ মেয়ে অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, ছাত্র-ভক্ত ও শুভাকাঙ্খী রেখে গেছেন। প্রবীন এই আলেমের মৃত্যুতে সিলেট বিভাগে শোকের ছায়া নেমে আসে। তাঁর মৃত্যুর খবর শুনে গত শনিবার রাতেই তাঁকে এক নজর দেখতে নগরীর উপশহরস্থ বাসভবনে ছুটে যান আলেম-উলামা সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। গতকাল রোববার আলিয়া মাদরাসা মাঠে জানাযা শেষে বালাগঞ্জের বরকতপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে তাকে দাফন করা হয়।  মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী দেশের প্রাচীনতম কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম বাংলাদেশ এর মহাসচিব এর দায়িত্ব পালন করেছেন র্দীঘ দিন। কর্মজীবনে বঅলাগঞ্জের  গলমুকাপন মাদরাসায়  ৪ বছর, গহরপুর মাদরাসায় মুহাদ্দিস হিসেবে ৯ বছর, অত:পর সিলেট জামিয়া কাসিমুল উলুম দরগাহ মাদরাসায় প্রায় ৩০ বছর যাবত অত্যন্ত সুনামের সাথে হাদীস অধ্যাপনার খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যান।  এছাড়া দক্ষিণ কাছ হোসাইনিয়া মাদরাসার শায়খুল হাদীস, মারকাজুল উলুম মেজর টিলার মুহতামিম,বারুত খানা মহিলা মাদরাসাসহ আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সাথে তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন। বর্নাঢ্য জীবনের অধিকারী মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী একজন বিচক্ষণ আলেম হিসেবে সকলের কাছে পরিচিত ছিলেন। খাদিমুল কুরআন পরিষদ সিলেটের সভাপতি , মাদরাসা সমুহের বোর্ডের সম্মিলিত প্রতিষ্ঠান ’হাইয়্যাতুল উলিয়ার অন্যতম সদস্য হিসেবে তিনি উলামায়ে কেরামের প্রতিনিধিত্ব করেন বিভিন্ন পরিমন্ডলে।   সিলেটের বালাগঞ্জের বরকতপুর এলাকায় তার পৈত্রিক নিবাস সে হিসেবে তিনি ’’বরকতপুরী হুজুর’’ হিসেবেই সর্বত্র পরিচিত ছিলেন। আযাদ দ্বীনী এদারার মহাসচিব হিসেবে বিভিন্ন সময়ে হুজুরের কাছে আসা যাওয়ার সুযোগ হয়েছে আমার। কওমী শিক্ষা সনদের স্বীকৃতি , ইসলাম বিবর্জিত কথিত জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতিমালা ও  জঙ্গিবাদ বিরোধী আন্দোলনের সময়ে তাঁর কাছে অনেকবার গিয়েছি। তিনি যে একজন চিন্তাশীল আলেম ছিলেন এটা বারবার প্রমানিত হয়েছে।

এদারা:   মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী র্দীঘ প্রায় ত্রিশ বছর সিলেট দরগাহ মাদরাসার মুহাদ্দিস হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এসময় থেকে এদারার সাথে ও সম্পৃক্ত ছিলেন।  তিনি ১৯৮৬ সালে এদারার প্রকাশনী নাযিম করা হয়। ১৯৯৯ সালে মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকুটিকে নাযিম (সাধারণ সম্পাদক) মনোনীত করা হলে তখন মাওলানা বরকতপুরীকে সহকারী নাযিম  মনোনীত করা হয়।  সর্বশেষ গত ২৯ মার্চ ২০০৭ সালে এদারার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তার দায়িত্বকালে এদারার বিশেষ অগ্রগতি হয়েছে। ২০০৮ সালে বোর্ডের সরকারী রেজিষ্ট্রেশনের কাজ তারই প্রচেষ্টায় হয়েছে। মৃত্যুপর্যন্ত তিনি এদারার নাযিম এর পদে ছিলেন। তবে তার অসুস্থতার কারনে মাওলানা আব্দুল বছীর ভারপ্রাপ্ত নাযিমের দায়িত্ব আঞ্জাম দেন।  ১৯৬৮ সাল (১৩৮৮হিজরি) পশ্চিম পাকিস্তানের করাচি বান্নুরী টাউন মাদরাসায় আল্লামা ইউসুফ বানুরী (রহ)এর কাছ থেকে হাদীসের অধ্যয়ন করেন।  (সুত্র-এদারার ৩০ সালা দস্তারবন্দী সম্মেলন স্মারক/এদারার অতীত-বর্তমান-রুহুল আমীন নগরী,প্রকাশকাল ২০০৭)

পরিনয়: সিলেটের গোলাপগঞ্জের  প্রখ্যাত আলেম শায়খুল হাদীস মাওলানা ওয়ারিছ উদ্দনি হাজিপুরীর (র) বড় মেয়ের সাথে পরিনয় সুত্রে আবদ্ধ হন। হাজিপুরী হুজুরের ৭ কন্যার সকলকেই বড় বড় আলেমের নিকট শাদিদেন।  তাদেরই অন্যতম হলেন মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী।  র্ভাথখলা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মজদুদ্দিন তার ভায়েরা হন। পারিবারিক জীবনে মরহুম মাওলানা বরকতপুরী ৭ ছেলে, ৩ মেয়ের জনক।

নিজের শিক্ষা জীবন নিয়ে মাওলানা বরকতপুরী  বলেন, “১৩৭৪-৭৫ হিজরি সনের কথা আমি কেবল স্কুল থেকে কওমী মাদরাসায় এসে ভর্তি হয়েছি। গলমুকাপন মাদরাসা হতে মক্তব ৫ম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে  বছর শেষে চ’ড়ান্ত পরীক্ষার জন্যে শেরপুর কেন্দে যাই। এসময় অন্যান্য মাদরাসার মধ্যে উমরপুর ও দয়ামির মাদরাসার ছাত্ররা পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে। উমরপুরের ছাত্রদের মধ্যে হাফিজ হুসাইন আহমদ সাহেব এবং দয়ামিরের ছাত্রদের মধ্যে মাওলানা আব্দুল আজিজ দয়ামিরী রহ. ও মক্তব পাঞ্জমের পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন। হুসাইন আহমদ সাহেব হিফজে পড়তে কৌড়িয়া চলেযান। হিফজ শেষ করে গহরপুরে এসে জামাতে ভর্তিহন। এসময় তিনি আমার এক বছরের নিচের  জামাতে পড়তেন আর আমি রানাপিংমাদরাসায় উপরের জামাতে পড়তাম। আমার বাড়ি গহরপুর মাদরাসার পাশে হওয়ায় বাগিতে আসলে তার সাথে প্রায়ই দেখা হতো। আমি উচ্চ শিক্ষার জন্যে প্রথমে ঢাকা পরবর্তীতে করাচি (পাকিস্তানে) চলে যাই। শিক্ষা সমাপ্তির পর যখন শিক্ষকতায় আত্মনিযোগ করি ,তার দুবছর পর জনাব হুসাইন আহমদ সাহেব গহরপুর মাদরাসা থেকে শিক্ষাসমাপন করে এ প্রতিষ্ঠানেই শিক্ষকতা শুরু করেন। তারপর তিনি রানাপিং মাদরাসায় কয়েক বছর শিক্ষকতার দায়িত্ব পালন করে আবার গহরপুরে শিক্ষক হিসেবে আবার চলে আসেন। এসময় ভাগ্যক্রমে আমিও গহরপুর মাদরাসায় শিক্ষকতা করি। ’’  (সুত্র: শায়খুল হাদীস হুসাইন আহমদ উমরপুরী স্মারক গ্রন্থ)
 মরহুম মাওলানা বরকতপুরী হুজুরের স্বীয় আত্মজীবনীর কিছু অংশ এখানে তুলেধরা হরো:  নাম : আব্দুল বাসিত উরপে মশকুর মিয়া, পিতা : আব্দুল মান্নান উরপে ময়না মিয়া, মাতা : আজিজুন্নেছা উরপে সোনা বিবি। জন্ম তারিখ  সম্পর্কে মরহুম মাওলানা আব্দুল বাছিত বরকতপুরী নিজেই এভাবে বর্ণনা দেন:
জন্ম  : ৮ই পৌষ ১৩৫২ বাংলা, ২৩ সে ডিসেম্বর ১৯৪৫ ঈসায়ী, মোতাবেক  ১৭ই মহরম ১৩৬৬ হিজরী  রোজ: রবিবার দিবাগত রাত ২টার সময়।
দু’বোন ও এক ভাই এর মধ্যে সর্বকনিষ্ট।  বড় বোনের বিয়ে হয় গল্মুকাপন নিবাসী মাওলানা ফখরুদ্দিন সাহেব মুহতামিম দারুছ ছুন্নাহ মাদরাসা গল্মুকাপন এর সাথে। ২য় বোনের বিয়ে হয় শায়খে রেঙ্গা হযরত মাওলানা বদরুল আলম সাহেবের বড় ছেলে মৌলবী ফখরুল ইসলাম উরপে খিজির মিয়া মরহুমের সাথে। বাপ চাচার পুত্র সন্তান বলতে আমিই প্রথম। তাই শিশু জীবনে আমার আদর যতœ ছিল অত্যন্ত বেশী। আমার জন্মের প্রায় এক বছর পূর্বে নানাজান আব্দুল হামিদ উরপে হামদু মিয়া সাহেব ইহধাম ত্যাগ করেন। তাই যদিও নানার মায়া থেকে বঞ্চিত হই, কিন্তু নানীজান জীদ্দশায় থাকা হেতু নানীর প্রচুর মায়া এবং আদর পেয়েছি। আব্বা আমার বাল্য শিক্ষার জন্য একজন বি,এ পাশ মাষ্টার গৃহ শিক্ষক হিসাবে নিযুক্ত করেছিলেন। আমার এখনও স্মরণ পড়ে মুখতারপুর আনোয়ারপুর গ্রামের মাষ্টার মরহুম আব্দুল মুছব্বির সাহেবের কথা। তিনি বাল্যকালে আমাকে অতি সযতেœ লিখা-পড়ার প্রতি আগ্রহী করে তুলেছিলেন। তার কাছে আমি প্রায় তিন বৎসর প্রাথমিক, বাংলা, ইংরেজী ও অংক শিখেছিলাম।  আমার আম্মা ছিলেন একজন শিক্ষিতা মহিলা। তার হাতের লিখা বেশ সুন্দর ছিল। পাঠ গনিতের অংক কষানো ছিল আম্মার দায়িত্ব। তিনি প্রত্যহ ভোরে নাশ্তার পর আমাকে অংক কষা শিখাতেন। আমার বয়স যখন ছয় বছর তখন আমি মূল্লাপাড়া পাঠশালা স্কুলে দ্বিতীয় মানে ভর্তি হই। এপাঠশালায়ই আমি চতুর্থ মান পর্যন্ত পড়াশুনা করি। প্রায় ৯ বছর বয়সে পাঠ শালা পাশ করি। পাঠ শালা শিক্ষাকালে আমি প্রত্যেক শ্রেণীতে প্রথম হয়ে পাশ করেছি এবং যতেষ্ঠ পুরষ্কার ও পেয়েছি।  পাঠশালায় যখন তৃতীয় মানে পড়ি তখন একবার শীতের মৌসুমে আমাদের বাড়ীতে মহিলাদের একটি ধর্মীয় মাহফিল অর্থাৎ ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। শায়খে বাঘা হযরত মাওলানা বশীরুদ্দীন সাহেব এই অনুষ্ঠানে ওয়াজ করার জন্য আগমন করলেন। তিনি সন্ধ্যার পর থেকে রাত আট ঘটিকা পর্যন্ত মেয়েদের কে ইবাদত, পর্দা, সাংসারীক জীবন পরিচালনায় ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলা, সন্তানদের লালন পালন ও ধর্মীয় শিক্ষা দানের গুরুত্ব সম্পর্কে নাতি দীর্ঘ বয়ান দিলেন। তার বয়ানের প্রতিক্রিয়া পরদিন থেকে আমি স্বচক্ষে দেখতে পেলাম। আমার বাড়ীর সমস্ত মেয়ে লোক পরদিন থেকেই শাড়ী পরিধান করা বাদ দিয়ে কামিজ পায়জামা ও উড়না পড়া শুরু করে দিলেন। সবার মুখেই শুনলাম নামাযের সময় শাড়ী দিয়ে নাকি সমস্ত শরীর ঢাকা সম্ভব হয়না ,যার কারনে নামাজ মাকরুহ কিংবা বাতিল হয়ে যায়। বাঘার সাহেবের ওয়াজ থেকে এ কথা শুনে পরদিন থেকেই এ আমল করা শুরু করলেন। এমনিভাবে তার ওয়াজ শুনে আমার আম্মা আমাকে বললেন তোমাকে আমি মাদ্রাসায় পড়াতে চাই। কারণ বাঘার সাহেব সে দিন বলেছেন নিজের সন্তানকে যদি আল্লাহর দিন শিক্ষা দেয়া না হয় তবে কাল কিয়ামতের দিন মাতা পিতাকে এর জবাব দিতে হবে। আম্মার এ ইচ্ছা শুনে জিজ্ঞাসা করলাম আম্মা মাদ্রাসায় পড়তে হলে আমাকে কি করতে হবে? তিনি উত্তর দিলেন এখন থেকে বাংলার সাথে সাথে তোমাকে উর্দূ ভাষা শিখতে হবে। কারণ মাদ্রাসার কিতাব সমূহ উর্দু ফারসী এ সব কিতাব পড়া সম্ভব নয়। সমস্যা হল আমি কার কাছ থেকে উর্দু শিখব? আম্মা বললেন তুমার পাঠশালায় একজন শিক্ষক আছেন, যিনি সম্পর্কে আমার চাচা হন। তিনি ভারতের মুরাদাবাদ মাদ্রাসা হতে পড়াশুনা করে এসেছেন। আমি তাকে বলে দেব তিনি যেন তোমাকে উর্দূ শিক্ষা দেন। কিছুদিনের মধ্যে মূল্লাপাড়ার মাওলানা ইসরাইল আলী সাহেবকে ডেকে এনে আমাকে উর্দ্দূ শিক্ষা দেওয়ার কথা বলে দিলেন। তারপর পাঠশালার বইগুলোর সাথে সাথে অবসর সময়ে আমি তার কাছে উর্দূ পড়া ও লিখা আরম্ভ করলাম।  আমার বয়স যখন আট বছরের উর্ধে তখন আমার বড় বোনের বিয়ে হল গল্মুকাপন মাদ্রাসার মুহতামিম জনাব মাওলানা ফখরুদ্দিন সাহেবের সাথে। পাঠশালার পড়া শেষ করার পরই আম্মার ভগ্নিপতির সাথে আলাপ আলোচনা করে আমাকে গল্মুকাপন মাদ্রাসায় দেওয়ার জন্য মনস্ত করলেন। কিন্তু একটা বিরাট অসুবিধা দেখা দিল যে, আব্বা আমাকে স্কুলে পড়াতে চান, এজন্য তিনি সিলেট শহরের পাশে কুচাই স্কুলে ভর্তি করার জন্য আমাদের একজন আত্মীয়ের সাথে আলাপ করে রেখেছেন। আমি ঐ আত্মীয়ের বাড়িতে থাকব, আর কুচাই স্কুলে পড়া লেখা করব। আমিযে পাঠশালায় পড়ার সময় উর্দূ পড়েছি এবং মাদ্রাসার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি এবিষয়টি আব্বা ঘুনাক্ষরেই জানতেন না। মাদ্রাসায় ভর্তি কথা শুনে আব্বা একেবারে তেলে বেগুনে জ্বলে উঠলেন!
 আসল কথা হচ্ছে আমাদের পরিবারের কেউই কোনদিন কওমী মাদ্রাসায় পড়েনি। আব্বা ও আব্বার সহোদর ও সৎ ভাইরা মিলে প্রায় এগার জনের মধ্যে কেউই কওমী মাদ্রাসার লাইনে লেখা-পড়া করেননি। আমার ২ চাচা আলীগড় পাশ করে আসামের ডিরুগড় কলেজে পড়তেন ৫জন চাচা মেট্রিক পড়ে ছিলেন। তারা স্কুলের মাষ্টারী করতেন। এক চাচা ছিলেন পুলিশ। আমার আব্বা ছিলেন নর্মাল পাশ মাষ্টার আগের যুগে নর্মাল পাশকে বলা হত পন্ডিত। আমার আপন চাচা শুধু সামান্য পড়াশুনা করেছিলেন। এক চাচা ছোট বয়সে মারা যান। অতএব আমাদের সারাটা পরিবার ছিল ইংরেজী পড়–য়া। তাই আমার পড়াশুনা মাদ্রাসায় হবে একথা কল্পনা করতে পারেন নি। অবশেষে আমার আম্মা ও ভগ্নিপতির পীড়া পীড়ির কারনে আব্বা আম্মাকে স্কুলে নেয়ার চেষ্টা বাদ দিয়া দিলেন। কিন্তু তার মনের ক্ষোভ দীর্ঘ দিন পর্যন্ত রয়ে গেল। যার কারনে আমি প্রায় আট বছর পর্যন্ত আব্বার কোন আর্থিক সহায়তা পাইনি। অবশ্য শেষ দিকে আব্বা আমার প্রতি অত্যন্ত সদয় হয়েছিলন।  আম্মা বড় বোন ও ভগ্নিপতির প্রচেষ্টায় আমি ১৯৫৪ইংতে গলমুকাপন দারুছ ছুন্নাহ মাদরাসায় ইবতেদাইয়্যা ৫ম বর্ষে ভর্তি হই। এ মাদ্রাসায় আমি আলিয়া ৩য় বর্ষ পর্যন্ত পড়ান শুনা করি। পড়ার প্রায় ৮ বৎসরের জীবন এ মাদ্রাসায় অতিবাহিত হয়। এখানে পড়াকালীন সময়ে প্রতি ক্লাসেই ফার্ষ্ট বয় হিসাবে ছিলাম। গলমুকাপন  পড়ার সময়ে ডাক্তার মর্তুজা চৌধুরীর নিকট মক্তব বাংলাপাঠ ৫ম ভাগের কতিপয় সবক পড়ার সুযোগ হয়েছিল। দীর্ঘ আট বছর দারুছ ছুন্নাহ মাদ্রাসরায় লিখা-পড়া করি। সম্পূর্ণ সময়টাই আমি আমার বড় বোনের বাড়ীতে থেকে পড়া শুনা করি। তিনি আমাকে কত মায়া করেছেন, কত যতœ করেছেন তা ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়।’’  (পারিবারিক সুত্র,ছেলে বূখায়ের আহমদ)
পরিশেষে আমরা মহান আল্লাহপাকের দরবারে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

এই সংবাদটি 1,047 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com