রবিবার, ০৭ জানু ২০১৮ ০৯:০১ ঘণ্টা

জমিয়তের কেন্দ্রীয় আমেলার বৈঠকে মুফতি ওয়াক্কাসের পদ বহাল

Share Button

জমিয়তের কেন্দ্রীয় আমেলার বৈঠকে মুফতি ওয়াক্কাসের পদ বহাল

সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় আমেলার জরুরী বৈঠক আজ রোববার (৭ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাদ জুহর সিলেট জেলা জমিয়তের কার্যালয়ে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।বৈঠক চলাকালে আছর ও মাগরিবের নামাজের বিরতি চলে। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি খলিফায়ে মাদানী শায়খুল হাদীস মাওলানা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই জরুরী বৈঠকে মহাসচিব মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী, সহসভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন, হাফিজ মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী, যুগম্মহাসচিব মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী, মাওলানা তাফাজ্জুল হক আজিজ, মাওলানা শেখ মুজিবুর রহমান,মাওলানা আব্দুল বছির, মাওলানা আতাউর রহমান, অর্থসম্পাদক মুফতি মনির আহমদ, সাহিত্য সম্পাদক মাওলানা ফয়জুল হাসান খাদিমানী, প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন, নিবার্হী সদস্য অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী,মাওলানা খায়রুল হোসেন,মাওলানা খলিলুর রহমান, মাওলানা আনোয়ারুল ইসলাম, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী,মাওলানা শিব্বির আহমদ বিশ্বনাথী,মাওলানা নজরুল ইসলামসহ নির্বাহী কমিটির ২২ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। 
সংগঠনের র্দীঘ দুই যুগের মহাসচিব ও বিগত কাউন্সিলে ঘোষিত নির্বাহী সভাপতি মুফতি ওয়াক্কাসের ‘পদস্থগিত’র
কারণে উলামায়ে কেরামের প্রাচীন এ দলটিতে বেশ কিছুদিন ধরে ‘নির্বাহী সভাপতির পদ’ নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিল। যার ফলে দলটি দুইভাবে ভিভক্ত হওয়ার মতো অবস্থাও তৈরি হয়েছিল। তবে বিষয়টি নিয়ে জমিয়ত সভাপতি আল্লামা আবদুল 
মোমিন অসন্তুষ্ট ছিলেন এবং এক কথোপকথনে বলেছিলেন আমি থাকতে জমিয়ত দুই ভাগ হতে পারে না।’
জানাগেছে, সাম্প্রতিক সময়ে দলের মধ্যে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন কল্পে গত শুক্রবার কেন্দ্রীয় সভাপতি শায়খে ইমামবাড়ী (সভাপতির) নিজ ক্ষমতাবলে এই জরুরী বৈঠক আহবান করেন। সুত্র মতে, শুক্রবার বিকেলে দলের যুগ্মমহাসচিব সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী ও অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান সিদ্দিকীসহ আরো কয়েকজন জমিয়ত কর্মী সিলেটস্থ জামিয়া দারুল কুরআন এ কেন্দ্রীয় সভাপতির সাথে সাংগঠনিক বিষযে মতবিনিময় করেন। এসময় তিনি মহাসচিবের সাথে মোবাইলে আলাপ করে জরুরী ভিত্তিতে (রোববার জামিয়া দারুল কুরআন সিলেটে) আমেলার বৈঠক আহবানের কথা বলেন। এরই প্রেক্ষিতে আজকের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে র্দীঘ আলোচনা পর্যালোচনার পরে সভাপতি শায়খে ইমামবাড়ী বলেন, জমিয়তের পেছনে মুফতি ওয়াক্কাস সাহেবের যথেষ্ট শ্রমআছে, তাই আমি যতদিন জীবিত আছি তত দিন তিনি জমিয়তের সহসভাপতি থাকবেন এবং মজলিসে শুরা ও আমেলার সদস্য থাকবেন। আমি মুফতি সাহেবকে সহসভাপতি হিসেবে ঘোষণা দিচ্ছি। বিদ্ধমান সংবিধানের আলোকেই দল চলবে বলে তিনি মতপ্রকাশ করেন। বৈঠক শেষে বিভিন্ন স্থান থেকে আগত বিপুল সংখ্যক (উৎসুক) নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত ব্রিফিংদেন সিলেট জেলা জমিয়তের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন ও মহাসচিব মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী। শায়খ জিয়াউদ্দীন বলেন, মুফতি ওয়াক্কাস সাহেবের কার্যনিবাহী সদস্য পদ ও সহসভাপতির পদ পুর্নবহাল করা হলো। সংগঠনের সার্বিক কল্যাণ বিবেচনায় কেন্দ্রীয় সভাপতি সাহেব এই ঘোষণা প্রদান করার পরে উপস্থিত সকল সদস্যগন ”আলহামদুলিল্লাহ’ বলে তা সর্মথন করেন। প্রেস ব্রিফিংয়ে বৈঠকের ফয়সালা শুনিয়ে সহসভাপতি শায়খ জিয়াউদ্দিন বলেন, বর্তমানে সংবিধানে যেহেতু নির্বাহী সভাপতির পদটি নেই তাই মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস সহসভাপতির পদে বহাল থাকবেন। তিনি বলেন, একটা দল চলতে হলে সংবিধানের উপর চলতে হয়। যেহেতু দলটির পূর্ণাঙ্গ সংবিধান তৈরি হয়েছে আমাদের সে মতেই চলতে হবে। তিনি সবাইকে সংবিধান মেনে আকাবিরে আসলাফের আদর্শ অনুযায়ী কাজের আহ্বানও জানান তার বক্তব্যে। এরপরে মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, জমিয়ত এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের শায়খের এখলাসের কারণে। আমাদের সবার উচিত তার কদর করা ও তার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চলা। তাহলেই জমিয়ত এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, আমাদের কাজ করতে হবে বেশি বেশি। আমরা পদের জন্যই নই। আমাকেও এক সময় নির্বাহী সভাপতির পদ দেয়া হয়েছিল। সেসময় খান সাহেব (মাওলানা মুহিউদ্দীন খান) যখন জমিয়তে আসেন আমি নির্বাহী সভাপতির পদ ছেড়ে দেই। তাকে আমরা নির্বাহী বানাই। তিনি বলেন, কাজ করলে পদ এমনিতেই আসবে। আল্লাহ পাকই আমাদের পদ পদবী দিয়ে সম্মানিত করবেন। আমাদের বেশি বেশি কাজ করতে হবে। আল্লাহ আমাদের এখলাসের সঙ্গে কাজের তওফিক দিন।’
ব্রিফিংকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্তিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের ট্রেজারার হাফিজ হোসাইন আহমদ বিশ্বনাথী, সিলেট মহানগর জমিয়তের সেক্রেটারী মাওলানা ফখরুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ সালিম কাসেমী, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা আখতারুজ্জামান,প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী,ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী সাইফুর রহমান, ছাত্র নেতা হাফিজ শাহিদ হাতিমী, মাওলানা মুহাম্মদ আলী,মাওলানা সৈয়দ শোয়াইব আহমদ,সৈয়দ উবায়দুর রহমান, আহমাদুল হক উমামা,মাওলানা কায়সান মাহমুদ আকবরী, মাওলানা ফয়সাল আহমদ প্রমুখ। উল্লেখ্যযে, ৯ ডিসেম্বর (২০১৭ ) দলের পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আমেলায় দলের সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গের ‘অভিযোগে’ এবং অসাংবিধানিক কর্মকান্ড পরিচালনার দায়ে সহসভাপতি মুফতী মুহাম্মদ ওয়াক্কাসের নির্বাহী সদস্যপদ স্থগিত করা হয়। এর আগে কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীনের সভাপতিত্বে আমেলার এক বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে দলীয় গঠনতন্ত্রের আলোকে ‘নির্বাহী সভাপতি’র পদ বাতিল করা হয়।

এই সংবাদটি 1,189 বার পড়া হয়েছে