সোমবার, ০৮ জানু ২০১৮ ১২:০১ ঘণ্টা

আতংকের জনপদ টিলাগড়, ছাত্রলীগের গ্রুপিংয়ে ৪ মাসে ৩ খুন

Share Button

আতংকের জনপদ টিলাগড়, ছাত্রলীগের গ্রুপিংয়ে ৪ মাসে ৩ খুন

সিলেট রিপোর্ট: সিলেট-তামাবিল রোডের প্রাণকেন্দ্র ‘টিলাঘর’ এখন আতংকের জনপদে পরিনত হয়েছে।  বিগত ৪ মাসের মধ্যে টিলাগড়কেন্দ্রীক ছাত্রলীগের গ্রুপিং রাজনীতির বলি হতে হয়েছে তিন জন ছাত্রলীগ কর্মীকে। সর্বশেষ গতকাল রোববার রাত ৯টায় টিলাগড় পয়েন্টে ছুরিকাঘাত হন সরকারি কলেজের ছাত্রলীগ কর্মী তানিম খান। তাকে দ্রুত সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেছে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তানিম ছাত্রলীগের রঞ্জিত গ্রুপের অনুসারী। গ্রুপের পক্ষ থেকে এ ঘটনার জন্য প্রতিপক্ষ আজাদ গ্রুপকে দায়ী করা হয়েছে।
এদিকে, সিলেট সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ কর্মী তানিম খান হত্যার প্রতিবাদে তার সহকর্মীরা আজ সোমবার সকাল ১১টায় এমসি কলেজের সম্মুখে সড়ক অবরোধের সৃষ্টি করেছে। অবরোধের ফলে রাস্তার উভয় পাশে আটকা পড়েছে প্রচুর যানবাহন। এদিকে এ ঘটনায় রাতে নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। শাহপরান থানার ওসি আখতার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থালে গেছে। এমসি কলেজ ও টিলাগড় এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। তানিম হত্যার ঘটনায় ৪ জনকে আটকের বিষয়টিও নিশ্চত করেন তিনি। তবে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে বলেননি। এদিকে নিহত ছাত্রলীগ কর্মী তানিমের লাশ ওসমানী মেডিকেল কলেজের মর্গে রয়েছে। ময়না তদন্তের পর লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।
প্রসঙ্গত,   বিগত ৪ মাসের মধ্যে টিলাগড়কেন্দ্রীক ছাত্রলীগের গ্রুপিং রাজনীতির বলি হতে হয়েছে তিন জন ছাত্রলীগ কর্মীকে। নিহতরা হচ্ছেন জাকারিয়া মোহাম্মদ মাসুম, ওমর আহমদ মিয়াদ ও সর্বশেষ তানিম খান। এর মধ্যে মাসুম ছিলেন ছাত্রলীগের সুরমা গ্রুপের কর্মী। হামলাকারীরা সরাসরি টিলাগড়কেন্দ্রীক ছাত্ররাজনীতির সাথে জড়িত। এর আগে গত ১৬ অক্টোবর প্রকাশ্যে দিবালোকে কুপিয়ে হত্যা করা হয় ছাত্রলীগের হিরন মাহমুদ নিপু গ্রুপের সক্রিয় কর্মী এমসি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা ওমর আহমদ মিয়াদকে। আর রোববার (০৭ জানুয়ারি) রাত ৯ টার দিকে টিলাগড়েই নিভলো তানিম খান (২২) নামের আরেক ছাত্রলীগ কর্মীর জীবন প্রদীপ। তানিম খান টিলাগড়কেন্দ্রীক রঞ্জিত সরকার গ্রæপের কর্মী। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক জাকির হোসেন (২৫) নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করেছে শাহপরাণ থানা পুলিশ। স্থানীয় কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদের অফিসের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয় বলে জানাগেছে। এর আগে গত ১৬ অক্টোবর প্রকাশ্য দিবালোকে টিলাগড় মসজিদ সংলগ্ন রাস্তার সামনে অভ্যন্তরীণ বিরোধের জের ধরে ছাত্রলীগের খুন হন ছাত্রলীগ কর্মী ওমর আহমদ মিয়াদ। নিহত মিয়াদ সিলেট এমসি কলেজে বিএসএস এবং লিডিং ইউনিভার্সিটিতে আইন বিষয়ের ছাত্র ছিলেন। ওই দিন বেলা ৩টার দিকে প্রকাশ্যেই ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় তোফায়েল নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি বর্তমানে কারাগারে আছেন। মিয়াদের বাবার করা মামলায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম রায়হান চৌধুরীকে প্রধান আসামী করা হয়। এরপর কেন্দ্রের এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বাতিল করা হয় সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি। যা এখনো পুনর্গঠনে কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তারও আগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর বিকালে শিবগঞ্জে জাকারিয়া অহমদ মাসুমের উপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। আগের দিন রাতে নগরীর সোবহানীঘাটে আলী আহমদ মাহিন নামের এক ছাত্রলীগকর্মীকে মারধর করে মাসুমসহ ছাত্রলীগের আরো কয়েকজন কর্মী। এর জের ধরেই পরেরদিন হামলায় খুন হন মাসুম। হামলাকারী মাহিন ও তার সঙ্গীরা টিলাগড়কেন্দ্রীক ছাত্ররাজনীতির সাথে জড়িত। মাহিন ও তার সঙ্গীরা মাসুমকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে ফেলে গিয়েছিল। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে তার মৃত্যু হয়। নিহত মাসুম সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার শান্তিগঞ্জের মাসুক মিয়ার ছেলে। তিনি যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সমর্থিত সুরমা গ্র“পের কর্মী। হামলাকারী মাহিন ছাত্রলীগের টিটু-ডায়মন্ড গ্র“পের কর্মী বলে জানা গেছে।এ তিন খুনই শুধু নয়। এর আগেও প্রায় ১৭ বছর আগে ২০১০ সালের ১২ জুলাই অভ্যন্তরীণ বিরোধের জের ধরে টিলাগড়ে খুন হন এমসি কলেজের গণিত বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্র ও ছাত্রলীগ কর্মী উদয়েন্দু সিংহ পলাশ। এ ঘটনায় ছাত্রলীগের ৮ জনের নাম উলে¬খসহ অজ্ঞাত আরও ১০/১৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন পলাশের বাবা বীরেশ্বর সিংহ। এ মামলায় মূল অভিযুক্তদের কয়েকজনকে বাদ দিয়ে ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছে পুলিশ।

 

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে