বৃহস্পতিবার, ১৮ জানু ২০১৮ ০৩:০১ ঘণ্টা

দেওবন্দের মুহতামিম মুফতি আবুল কাছিম নু’মানী বাংলাদেশ আসছেন

Share Button

দেওবন্দের মুহতামিম  মুফতি আবুল কাছিম নু’মানী বাংলাদেশ আসছেন

সিলেট রিপোর্ট:  বিশ্ববিখ্যাত ঐতিহ্যবাহী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ‘দারুল উলুম দেওবন্দের’ মুহতামিম ও  মুহাদ্দিস হযরত মাওলানা মুফতি আবুল কাছিম নু’মানী (দাঃবাঃ) এক দ্বীনী সফরে বাংলাদেশ আসছেন। তিনি  আগামি ৭ ফ্রেবরুয়ারী দশদিনের সফরে বাংলাদেশে আগমন করবেন ৷সফর সূচীঃ
১ঃ-
তারিখঃ- ৮/২/২০১৮
রোজঃ- বৃহস্পতিবার ৷
সময়ঃ- বাদ মাগরিব ৷
স্থানঃ- জামিয়া ইসামিলায়া পটিয়া,চট্টগ্রাম৷
২:-
তারিখঃ- ৯/২/২০১৮
রোজঃ- শুক্রবার ৷
সময়ঃ- সকাল ৮টা৷
স্থানঃ-১০নং সেক্টর,উত্তরা,(মুফতি আহমদ আলি সাহেব দাঃ )
৩:-
তারিখঃ- ৯/২/২০১৮
রোজঃ- শুক্রবার ৷
সময়ঃ- বাদে জুমু’আ ৷
স্থানঃ- দারুল উলুম রগুনাথপুর,ফেনী ৷
৪:-
তারিখঃ- ৯/২/২০১৮
রোজঃ- শুক্রবার ৷
সময়ঃ- বাদে মাগরিব ৷
স্থানঃ- দারুল ফিকর ওয়াল ইরশাদ,রাসূলবাগ,24 ফিট,কদমতলী,ঢাকা৷
৫:-
তারিখঃ- ৯/২/২০১৮
রোজঃ- শুক্রবার ৷
সময়ঃ- বাদে ইশা ৷
স্থানঃ-সাভার ইত্তিহাদুল মাদারিসিল কাওমিয়্যাহ ঈদগাহ ময়দান ৷ ঢাকা
৬:-
তারিখঃ- ১০/২/২০১৮
রোজঃ- শনিবার ৷
সময়ঃ- বাদ ফজর ৷
স্থানঃ- ৭নং সেক্টর,জামে মাসজিদ,
উত্তরা ঢাকা,1230৷
৭:-
তারিখঃ- ১০/২/২০১৮
রোজঃ- শনিবার ৷
সময়ঃ- বাদ যোহর ৷
স্থানঃ- শেখ আব্দুল্লাহ কাওমি মাদরাসা,
সিরাজদিখা,মন্সীগঞ্জ৷
৮:-
তারিখঃ- ১০/২/২০১৮
রোজঃ- শনিবার ৷
সময়ঃ- বাদ ইশা৷
স্থানঃ- খুলনা শহর ৷
৯:-
তারিখঃ- ১১/২/২০১৮
রোজ- রোববার ৷
সময়ঃ- বাদ ইশা৷
স্থানঃ- দিনাজপুর শহর ৷
১০:-
তারিখঃ- ১২/২/২০১৮
রোজঃ- সোমবার৷
সময়ঃ- বাদ যোহর৷
স্থানঃ-মাদরাসা আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রা,
মাগুরা দোহার, ঢাকা৷
১১:-
তারিখঃ- ১২/২/২০১৮
রোজঃ- সোমবার৷
সময়ঃ- বাদ মাগরিব ৷
স্থানঃ- জামিয়া সাদিয়্যাহ মাদরাসা,রায়দর৷
হবিগঞ্জ সদর৷
১২:-
তারিখঃ- ১৩/২/২০১৮
রোজঃ- মঙ্গলবার ৷
সময়ঃ- সকাল ৮টা
স্থানঃ- মারকাযুল উলুম আল-ইসলামিয়া,
বনশ্রী ঢাকা৷
১৩:-
তারিখঃ- ১৩/২/২০১৮
রোজঃ- মঙ্গলবার ৷
সময়ঃ- বাদ মাগরিব৷
স্থানঃ- জামিয়া ছিদ্দিকিয়া বেতিয়ারকান্দী
মাদরাসা,কুলিয়ারচর কিশোরগঞ্জ৷
১৪:-
তারিখঃ- ১৪/২/২০১৮
রোজঃ- বুধবার ৷
সময়ঃ- দুপুর ১২টা ৷
স্থানঃ- জামিয়াতুস সুন্নাহ কাসিমুল উলুম কারিমিয়া, দুল্লা মুক্তাগাছা, ময়মংসিংহ৷
১৫:-
তারিখঃ- ১৪/২/২০১৮
রোজঃ- বুধবার ৷
সময়ঃ- বাদ মাগরিব৷
স্থানঃ- নোয়াখালি শহর৷
১৬:-
তারিখঃ- ১৫/২/২০১৮
রোজঃ- বৃহস্পতিবার ৷
সময়ঃ- দুপুর ১২টা ৷
স্থানঃ- জামিয়াতুল খায়র আল ইসলামিয়া,
সিলেট৷
১৭:-
তারিখঃ- ১৫/২/২০১৮
রোজঃ- বৃহস্পতিবার ৷
সময়ঃ- বাদ মাগরিব ৷
স্থানঃ-ফ্রেন্ডস ক্লাব মাঠ,৩নং সেক্টর,
উত্তরা- ঢাকা৷
১৮:-
তারিখঃ- ১৬/২/২০১৮
রোজঃ- শুক্রবার ৷
সময়ঃ- বাদ জুমু’আ৷
স্থানঃ- জামিয়া ইসলামিয়া আজিজিয়া
কাছিমুল উলুম, ছাগল নাইয়া ফেনী৷
১৯:-
তারিখঃ- ১৬/২/২০১৮
রোজঃ- শুক্রবার ৷
সময়ঃ- বাদে মাগরিব৷
স্থানঃ- জামিয়াতু ফালাহ ময়দান,চট্টগ্রাম৷

এই সংবাদটি 1,047 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন