সোমবার, ২২ জানু ২০১৮ ১০:০১ ঘণ্টা

হাওর এলাকার কৃষি ও কৃষক রক্ষার দাবীতে ঢাকায় মানববন্ধন

Share Button

হাওর এলাকার কৃষি ও কৃষক রক্ষার দাবীতে ঢাকায় মানববন্ধন

 সিলেট রিপোর্ট: বিএনপি’র জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, অবিলম্বে ভাটি অঞ্চলের জলাবদ্ধতা দূর করা না হলে বোরো ফসল উৎপাদনে মারাত্মকভাবে হ্রাস পাবে এবং তীব্র খাদ্য সংকট দেখা দিবে। গত বছর উজানের পানির ঢলে ভাটি এলাকায় ব্যাপক ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হবার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, কৃষকরা এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারে নাই, এবার জলাবদ্ধতার কারণে ধানের চারা রোপণ করা যাচ্ছে না। ভাটি এলাকায় জলাবদ্ধতার জন্য বর্তমান সরকারের ভ্রান্তনীতি এবং উন্নয়নের নামে অপরিকল্পিতভাবে রাস্তা নির্মানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সারাদেশের মত সেখানেও উন্নয়ন না, লুটপাটের জন্য বড় বড় প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে, যা জনগণের কল্যানে নয়। ক্ষমতাসীনদের পকেট ভারী করার জন্য করা হয়েছে।
সোমবার সকালে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ভাটি অঞ্চলের জলাবদ্ধতা দূর করে কৃষি ও কৃষকদের রক্ষার দাবীতে ভাটি বাংলা জাতীয়তাবাদী ফোরাম কেন্দ্রীয় সংসদ আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন।
সাবেক মন্ত্রী নজরুল ইসলাম আরো বলেন, বর্তমান সরকার লুটপাটের জন্য হাওরাবাসীর স্বার্থ জলাঞ্জলী দিয়ে ক্ষমতাসীনরা কালো টাকার মালিক বানাচ্ছে কিন্তু হাওড়ের কৃষক কিংবা প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষকদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হচ্ছে না। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এক সময় বলেছেন, শিক্ষকদের দাবী দাওয়া করতে হবে না। তিনি নিজেই শিক্ষকদের অবস্থা বিবেচনা করে সমস্যার সমাধান করবেন। কিন্তু আজ বাস্তবতা হচ্ছে দাবী আদায়ের জন্য শিক্ষকদেরকে স্কুল কলেজ ছেড়ে রাস্তায় অনশন করতে হচ্ছে। নির্বাচিত সরকার না থাকলে কৃষক, শ্রমিক, ছাত্র, শিক্ষক-কারই সমস্যার সমাধান হবে না। জনগনের প্রকৃত সরকারই পারে দেশের সমস্যার সমাধান করতে। আর জনগনের সরকার কায়েম করতে প্রয়োজন নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। সেজন্যই আমরা প্রহসনের নির্বাচন নয়, সকল দলের অংশগ্রহনে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। যারা নির্বাচিত হয়ে জনদাবী বাস্তবায়ন করবেন।
বিএনপি’র কেন্দ্রীয় সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডা: সাখাওয়াত হাসান জীবনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিশাল মানববন্ধনে ঢাকায় অবস্থানরত বৃহত্তর হাওরাঞ্চল সুনামগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার, ময়মনসিংহ ও নেত্রকোনা সহ হাওর এলাকার বিভিন্ন শ্রেনী পেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশ নেন।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এডভোকেট ফজলুর রহমান, বি.এন.পি’র সাংগঠনিক সম্পাদক (ময়মনসিংহ বিভাগ) সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক (সিলেট বিভাগ) কলিম উদ্দিন মিলন, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাধারণ সমপাদক নুরুল ইসলাম নুরুল, কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের যুগ্ম সম্পাদক হুমায়ুন কবির, সহ-সভাপতি ওয়াকিফুর রহমান গিলমান, বানিয়াচং উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ বশির আহমদ, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোঃ আব্দুল হক, যুগ্ম সম্পাদক মো: মুনাজ্জির হোসেন সুজন, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুজ্জামান আরিফ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতা নিজাম উদ্দিন, সহ-সম্পাদক নজরুল ইসলাম মিজান, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতা আব্দুল বারী, যুবদল নেতা মিয়া মোহাম্মদ সোহেল, ছাত্রদল নেতা ফয়সাল আহমেদ প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন