শনিবার, ০৩ ফেব্রু ২০১৮ ০৩:০২ ঘণ্টা

প্রবাসে এক বাংলাদেশি আলেমের সাফল্য

Share Button

প্রবাসে এক বাংলাদেশি আলেমের সাফল্য

হুসাইন মুহাম্মদ ফাহিম:: মধ্যপ্রাচ্যে বাঙালিদের পরিচয়- শ্রমিক। ভাগ্য পরিবর্তনের তাড়নায় জীবিকা নির্বাহের জন্য তারা মাটি ও আপন মানুষের মায়া তুচ্ছ করে মধ্যপ্রাচ্যে যায়। শ্রমিক হিসেবেও সেখানে তাদের খুব একটা কদর নেই। ফলে মধ্যপ্রাচ্যে বাঙালি মানেই অবহেলিত জনগোষ্ঠী যারা অনাদর, অবহেলা ও দুঃখ-কষ্টকে জড়িয়ে মধ্যপ্রাচ্যে দিনাতিপাত করে। সেখানে একজন বাঙালির শিক্ষক হয়ে ওঠা বিরাট সাফল্যের ব্যাপার। যদিও এখন কিছু কিছু পেশাজীবী যেমন ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার ও শিক্ষকের দেখা মিলে, তবে তা খুবই নগণ্য।
শেখ সানাউল্লাহ আজহারি। মিশরের কায়রোতে বসবাসকারী একজন জনপ্রিয় শায়খ। সৃজনশীল উদ্যোক্তা। ইলমে নববীর ঝান্ডাবাহী আলেমেদ্বীন। দ্বীন ও দরসে মগ্ন একজন মেধাবী বাঙালি। যার ক্লাসের কোন ভূগোল নেই। সীমানা নির্ধারণ নেই। মিশরের কায়রোতে বসে জ্ঞান ও প্রজ্ঞার আলো পৌঁছে দিচ্ছেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। শিক্ষার্থীদের যেমন সরাসরি ক্লাসরুমে লেকচার প্রদান করেন, তেমনি প্রযুক্তির কল্যাণে পৃথিবীময় শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছেন মুহূর্তেই।
২০০৮ সালে তিনি মিশর সরকারের স্কলারশীপ নিয়ে চলে যান আল-আজহারে। মিশরে যাওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই প্রথমে তার সাথীদের নিয়ে ফরেন স্টুডেন্ট সিটিতে (আল-আজহারের বিদেশী ছাত্রদের হোস্টেল যেখানে বিশ্বের শতাধিক দেশের ছাত্র রয়েছে)  হাদীসের দারস শুরু করেন। এই দারসে বিভিন্ন দেশের বিদেশী ছাত্ররাও অংশগ্রহণ করতে থাকে । আস্তে আস্তে বিদেশী ছাত্রদের মধ্যে তার সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। এরপর বিদেশী ছাত্রদের নিয়ে তার বুখারী শরিফের নিয়মিত দারস চলতে থাকে।
বিদেশী ছাত্রদের গন্ডি পেরিয়ে তার সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে মিশরী ছাত্র ও আলেম উলামাদের মাঝে পরে বিভিন্ন মসজিদে বুখারী শরীফ ও উলুমুল হাদীসের দারস শুরু করেন। একজন বাংলাদেশী আলেমের নিকট মিশরী ও আরব দেশের ছাত্র ও আলেমগণ হাদীসের দারস নেয়া  সাধারণ ব্যাপার নয়। বাংলাদেশীদের জন্য যা অহংকারের বিষয়।
২০১২ সালে আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের শরিয়া এন্ড ল’ ফ্যাকাল্টি থেকে ফার্স্ট ক্লাস উইথ অনার নিয়ে অনার্স সম্পন্ন করার পর মিশরের কায়রোতে প্রতিষ্ঠা করেন মানারাতুত তিবইয়ান নামক একটি ব্যতিক্রমধর্মী প্রতিষ্ঠান। যেখান থেকে শরীয়াহ, আরবী ভাষা ও কম্পারেটিভ ফিকহ -এর ক্লাস নেন আল-আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের নামী শিক্ষকসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের তুখোড় মেধাবী শিক্ষকরা। প্রতিষ্ঠানটির ক্যাম্পাস কায়রোতে হলেও এর কার্যক্রম পুরো বিশ্বে। এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী পৃথিবীর যে কোন প্রান্তে বসে ভিডিও এ্যাপস ব্যবহার করে পছন্দানুযায়ী ক্লাসে অংশ গ্রহণ করতে পারছে খুবই সহজে। এখানে শিক্ষার্থীদের যেমন নির্দিষ্ট কোন জায়গায় বসে ক্লাসে অংশগ্রহণের বাধ্যবাধকতা নেই ঠিক তেমনি একজন শিক্ষকেরও ডেস্ক-ব্যাঞ্চের ক্লাসে উপস্থিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। এইসব ডিজিটাল ক্লাস কায়রোসহ মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে। বর্তমানে ইউরোপ, আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের প্রচুর ছাত্র মানারাতুত তিবইয়ান থেকে তাফসির, হাদিস, ফিক্হ ও আরবী ভাষাভিত্তিক বিভিন্ন কোর্সে অংশগ্রহণ করছে। এসব কোর্সের শিক্ষক হিসেবে ক্লাস নিচ্ছেন বাংলাদেশ-সহ বিশ্বের বড় বড় মুহাদ্দিসগণ। এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কর্মসংস্থান হয়েছে প্রচুর মেধাবী আলেমের।
বিশেষত ইউরোপ এবং আমেরিকায় বসবাসকারী মুসলিম যুবকেরা ইসলামী শরীয়াহ ও আরবী ভাষার পাঠ নিচ্ছে এই প্রতিষ্ঠান থেকে। তারা নিজেদের ঘরে বসে- প্রখ্যাত মুহাদ্দিছগণের কাছ থেকে বুখারী, মুসলিমসহ হাদিসের প্রামাণ্য কিতাবাদির দারসে অংশগ্রহণ করতে পারছে সহজতম পন্থায়। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য সহ ইউরোপ ও আমেরিকার বিভিন্ন দেশের ছাত্ররা এই প্রতিষ্ঠান থেকে লেখা-পড়া শেষ করে তাদের দেশে গিয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছে তন্মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় টিভি উপস্থাপক বিশিষ্ট দায়ী মাওলানা আরকাম রশিদ, মাওলানা নোমান খাঁন আরও অনেক। যুক্তরাজ্য ,যুক্তরাষ্ট্র থেকে তাঁর ছাত্রদের একটি দল ২০১৭ সালের শেষের দিকে বাংলাদেশে এসেছিলেন রোহিঙ্গাদের ত্রাণ নিয়ে সাথে তিনিও এসেছিলেন। পুণ্যভূমি সিলেটেও তারা বেড়াতে এসেছিলেন। সিলেটে অবস্থান কালে কথা হয় তাদের সাথে। তাঁরা শেখ সানাউল্লাও তাঁর প্রতিষ্ঠানের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং শিক্ষাক্ষেত্রে তার অবদান তুলে ধরেন এবং তাঁর অত্যন্ত কৃতজ্ঞ্তা জ্ঞাপন করেন।
শেখ সানাউল্লা আযহারি কেবল একজন শিক্ষকই নন। তিনি প্রবাসে বসে অনেক সমাজ-উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডও চালিয়ে যাচ্ছেন। ২০১৭ সালের শেষের দিকে তার সমন্বয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সাহায্যে  ‘স্ট্যান্ড উইথ রোহিঙ্গা’ নামক একটি ইভেন্ট শুরু হয়। যার মাধ্যমে তিন হাজার শীত বস্ত্র, ২৫ টি ঘর, আটটি ডিপ টিউবওয়েলসহ প্রচুর পরিমাণে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন। ইভেন্টটি বর্তমানেও সাফল্যের সাথে কর্মতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি আল আযহার ওয়েলফেয়ার সোসাইটি বাংলাদেশ কায়রোর সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কৃতিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। দায়িত্ব পালন করেছেন বাংলাদেশ স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশন কায়রোতে।  বর্তমানে হিউম্যান ফর হিউম্যানিটি নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সভাপতি।
এই বাঙালি শিক্ষক ইতোমধ্যে মিশরসহ মধ্যপ্রাচ্যে একজন ইসলামী ব্যক্তিত্ব হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছেন। মিশরের জাতীয় টেলিভিশন  ‘নীল টিভিতে’ টকশোতে অংশগ্রহণ করেন তিনি। মধ্যপ্রাচ্যে বাঙালি ছাত্রদের স্কলারশিপ নিয়েও কাজ করছেন। যুক্তরাজ্যের ‘ইলম ওয়া হিকমাহ পাবলিকেশন’,  ‘ইসলামওয়ে’,  ‘রাওয়াফিদ গ্রুপ, সহ বিভিন্ন ইসলামী গবেষণা ও প্রচার মাধ্যমে রয়েছে তার সক্রিয় উপস্থিতি। অনুবাদ করেছেন মুহাম্মাদ (সা.) নামক একটি বিখ্যাত সীরাতগ্রন্থ।
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার এরুয়াখাই গ্রামে ১লা মার্চ ১৯৮৫ সালে জন্ম গ্রহণ করেন এই কৃতি শিক্ষক। বাবা আলহাজ্ব আবুল হাশেম একজন আলেম ও শিক্ষাবিদ। বড় ভাই শায়খ ইকবাল বিন হাশেম একজন শায়খুল হাদিস ও সিলেটের ঐতিহ্যবাহী কওমী মাদ্রাসা জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার স্বনামধন্য মুহাদ্দিস এবং বাংলাদেশের আলেমকুলের শিরমণী আল্লামা আহমদ শফি সাহেবের খলিফা। বাবা মায়ের তৃতীয় সন্তান মাওলানা সানাউল্লাহর পড়াশোনার হাতেখড়ি মা-বাবার হাতেই।
জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহ হতে সম্পন্ন করেন হিফজুল ক্বোরান। জামেয়া দারুল আরকামে কৃতিত্বের সাথে মাধ্যমিকের পাঠ চুকিয়ে চলে যান পটিয়া ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখান থেকে মুমতাজসহ দাওরাহ (মাস্টার্স) শেষ করেন। পাশাপাশি আলিয়া মাদ্রাসা থেকে লাভ করেন আলিমের সার্টিফিকেট।
বাংলাদেশে হাদিস শাস্ত্রে অধ্যাপনা করেন বেশ কয়েক বছর। ইলমে হাদিস ও ফিকহের দারসের মাধ্যমে শুরু হয় তার কর্মজীবন। অধ্যাপনা করেছেন জামেয়া নুরিয়া ভার্থখলা, সিলেটে। শিক্ষাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মাদরাসা দারুল উলুম হেমু ও সুনামগঞ্জের দারুল হাদীস ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারে। পরে মিশর সরকারের বৃত্তি লাভ করে ২০০৮ সালে পাড়ি জমান কায়রোতে। আল-আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের শরিয়া এন্ড ল’ফেকাল্টিতে থেকে ফার্স্ট ক্লাস উইথ অনার সহ অনার্স সম্পন্ন করেন এবং একই বিভাগ থেকে পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিগ্র্রিলাভ করেন। উল্লেখ্য, আল-আজহারে মাস্টার্স করা খুবই কঠিন এবং প্রতিযোগিতাপূর্ণ এবং সময় সাপেক্ষ এজন্য অধিকাংশ ছাত্রই অনার্স শেষ করে দেশে চলে যান। মাস্টার্স করার সুযোগ খুব কম  ছাত্রই পেয়ে থাকেন কিন্ত তিনি সাফল্যের সাথে পোস্ট গ্রাজুয়েট সম্পন্ন করে বর্তমানে কম্পারেটিভ ফিকহ নিয়ে এমফিল গবেষণা করছেন।
তার ইচ্ছা দেশে ফিরে একটি আন্তর্জাতিক মানের ইসলামী শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলা বা প্রতিষ্ঠিত কোন প্রতিষ্ঠানকে নতুন আঙ্গিকে সাজিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া যেখান থেকে পুরো পৃথিবীতে দ্বীন ও জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিবেন।

এই সংবাদটি 1,081 বার পড়া হয়েছে