রবিবার, ০৪ ফেব্রু ২০১৮ ০১:০২ ঘণ্টা

বিচারপতি সঙ্কটে আপিল বিভাগ

Share Button

বিচারপতি সঙ্কটে আপিল বিভাগ

সিলেট রিপোর্ট: সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার সময়ে আপিল বিভাগে দুই বেঞ্চ থাকলেও তার ছুটি ও পদত্যাগের খবরের পর আপিল বিভাগে একটা বেঞ্চ চলছিল। এসকে সিনহার সময়ের আপিল বিভাগের একটা বেঞ্চের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন তিনি নিজে, অপরটির নেতৃত্বে ছিলেন সদ্য পদত্যাগী বিচারপতি আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা। সবশেষ ১৯৯৫ সালে আপিল বিভাগ এমন বিচারপতি সঙ্কটে পড়েছিল। ওই সময়ের মত আপিল বিভাগে এখন বিচারপতি সংখ্যা মাত্র চার; চলছে একটি মাত্র বেঞ্চ।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিয়েছেন সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। তিনি সহ আপিল বিভাগে এখন চারজন বিচারপতি। অন্য বিচারপতিগণ হলেন বিচারপতি ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার।

গত তিন মাসে প্রধান বিচারপতি এবং পরে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি দু’জন পদত্যাগ করেছেন। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা গত ১০ নভেম্বর এবং বিচারপতি মো. আব্দুল ওয়াহ্‌হাব মিঞা ২ ফেব্রুয়ারি পদত্যাগ করেন। এপরিস্থিতিতে আপিল বিভাগে নতুন বিচারপতি নিয়োগ না হলে একটি মাত্র বেঞ্চে বিচারকার্য পরিচালনা করতে হবে প্রধান বিচারপতিকে।

সুপ্রিম কোর্টের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে আপিল বিভাগে ১৬ হাজার ৫৬৫টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিচারকের অভাবে আপিল বিভাগের তিনটি বেঞ্চের দুটিতে তালা ঝুলছে। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানিও ২০০৯ সালে বন্ধ থাকা দুটি বেঞ্চের একটি বেঞ্চে হয়েছিল।

জানা গেছে, সাত বছর আগেও সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে ১১ জন বিচারপতি কর্মরত ছিলেন। গত বছরের শুরুতেও আপিল বিভাগে ৯ জন বিচারপতি কর্মরত ছিলেন। গত বছরের ১ জানুয়ারি বিচারপতি বজলুর রহমান ছানার মৃত্যুর পর আপিল বিভাগে বিচারপতির সংখ্যা দাঁড়ায় ৮ জনে। পরে ১৪ মার্চ বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম ও ৭ জুলাই বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা অবসরে যাওয়ার পর আপিল বিভাগের বিচারপতির সংখ্যা ৬ জনে নেমে আসে।

এ পরিস্থিতিতে তখন সুপ্রিম কোর্ট থেকে বিভিন্ন সময়ে বারবার তাগাদা দেওয়া সত্ত্বেও আপিল বিভাগে কোনো বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এরই মধ্যে আপিল বিভাগের আরও দু’জন বিচারপতি পদত্যাগ করেন।

এ ব্যাপারে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, রাষ্ট্রপতি ইতিমধ্যে প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দিয়েছেন। শিগগিরই তিনি উচ্চ আদালতেও বিচারক নিয়োগ দেবেন। এটি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেছেন, আপিল বিভাগে আগে দুটি বেঞ্চে মামলা পরিচালনা হতো। বিচারকের অভাবে একটি বেঞ্চে এখন মামলা নিষ্পত্তি করা হচ্ছে। এতে উচ্চ আদালতে মামলা জট তীব্র আকার ধারণ করছে।

উল্লেখ্য, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে তিনজন বিচারপতি নিয়ে আপিল বিভাগে বিচারকার্য শুরু হয়। ২০০৯ সালে আপিল বিভাগে বিচারপতির সংখ্যা ১১ জনে উন্নীত করে সরকার। ১৯৯৫ সালে আপিল বিভাগে চতুর্থ বারের মতো বিচারক সঙ্কট দেখা দিয়েছিল। এর আগে ১৯৭৩, ১৯৭৮ ও ১৯৮৫ সালে আপিল বিভাগে চারজন করে বিচারপতি কর্মরত ছিলেন।

সংবিধানে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতির কোনো সংখ্যা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি। সংবিধান অনুযায়ী প্রধান বিচারপতির পরামর্শ ও প্রয়োজন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি বিভিন্ন সময়ে বিচারপতি নিয়োগ দিতে পারেন।

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে