রবিবার, ০৪ ফেব্রু ২০১৮ ০২:০২ ঘণ্টা

‘জ্যেষ্ঠতার লঙ্ঘন’ ৭ বার

Share Button

‘জ্যেষ্ঠতার লঙ্ঘন’ ৭ বার

ডেস্ক রিপোর্ট: আপিল বিভাগের বিচারক সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের পর পদত্যাগ করেছেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠতম বিচারক মো. আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা, যিনি আড়াই মাস আগে বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার পর ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

এর মাধ্যমে চাকরির মেয়াদের ১০ মাস আগেই পদত্যাগ করলেন ওয়াহহাব মিঞা। তাঁর পদত্যাগের পর কথা ওঠেছে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘনের কারণে তিনি পদত্যাগ করেছেন, তবে রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো চিঠিতে তার প্রকাশ ঘটেনি।

সুপ্রিম কোর্টের প্যাডে পাঠানো ওই চিঠিতে তিনি লিখেছেন, “আমার অনিবার্য ব্যক্তিগত কারণ বশত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারকের পদ হইতে এতদ্বারা পদত্যাগ করিলাম।”

দেশের ইতিহাসে এ নিয়ে ৭ বার জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের ঘটনা ঘটল। তবে সংবিধান অনুযায়ী প্রধান বিচারপতি নিয়োগে জ্যেষ্ঠতা অনুসরণ করতেই হবে- এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। সংবিধানের ৯৫ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন এবং প্রধান বিচারপতির সহিত পরামর্শ করিয়া রাষ্ট্রপতি অন্যান্য বিচারককে নিয়োগদান করিবেন।’

আইনজ্ঞরা বলছেন, বিচারপতি আব্দুল ওয়াহ্‌হাব মিঞার পদত্যাগে বিচার বিভাগে কোনো প্রভাব পড়বে না। সরকার শিগগিরই আপিল বিভাগে আরও বিচারপতি নিয়োগ করে শূন্যতা পূরণের উদ্যোগ নেবে।

এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, সংবিধান অনুসারে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের বিষয়টি সম্পূর্ণ রাষ্ট্রপতির এখতিয়ার। এ নিয়ে কারও কোনো প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই। তবে শিগগিরই আপিল বিভাগ ও হাই কোর্ট বিভাগে বিচারপতি নিয়োগ করা হবে।

সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ বলেন, সংবিধানে জ্যেষ্ঠতা অনুসারে প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দিতে হবে- এমন কোনো বিধান নেই। রাষ্ট্রপতি যাকে যোগ্য মনে করেছেন তাকেই নিয়োগে দিয়েছেন। তবে বিচারপতি আব্দুল ওয়াহ্‌হাব মিঞার পদত্যাগের বিষয়টি দুঃখজনক। অতীতে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে, এটি নতুন কিছু নয়।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ব্যক্তিগত কারণে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আব্দুল ওয়াহ্‌হাব মিঞা পদত্যাগ করেছেন। এতে বিচার বিভাগের কোনো সংকট হবে না।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, দেরিতে হলেও প্রধান বিচারপতি নিয়োগ হয়েছে, এটা অত্যন্ত ইতিবাচক দিক।

প্রধান বিচারপতি নিয়োগে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন নতুন কিছু নয়। গত ১৫ বছরে সাতবার এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে বিএনপি সরকারের আমলে দুইবার, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় একবার এবং আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে চারবার এ ঘটনা ঘটল।

সদ্য সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা ছুটিতে থাকাকালীন সময়ে গত ১০ নভেম্বর তিনি পদত্যাগ করেছেন বলে জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এসকে সিনহার ছুটিতে যাওয়ার পর থেকেই ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন জ্যেষ্ঠতম বিচারপতি আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা। নিয়ম অনুযায়ি এসকে সিনহার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল ৩১ জানুয়ারি।

এদিকে, শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাষ্ট্রপতি আপিল বিভাগের দ্বিতীয় জ্যেষ্ঠ বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দেন। পরে সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে পদত্যাগপত্র পাঠান বিচারপতি মো. আব্দুল ওয়াহ্‌হাব মিঞা।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে প্রথম আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. রুহুল আমিনকে ডিঙিয়ে ২০০৩ সালের ২৩ জুন বিচারপতি কেএম হাসানকে নিয়োগ দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

দ্বিতীয় দফা বিচারপতি মোহাম্মদ ফজলুল করিমকে ডিঙিয়ে বিচারপতি সৈয়দ জে আর মোদাচ্ছের হোসেনকে ২০০৪ সালের ২৭ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ১ মার্চ বিচারপতি এমএম রুহুল আমিনকে প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া হয় জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মোহাম্মদ ফজলুল করিমকে ডিঙিয়ে।

এছাড়া আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে এ পর্যন্ত চারবার জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের ঘটনা ঘটেছে। ২০০৯ সালের ২৩ ডিসেম্বর বিচারপতি মোহাম্মদ ফজলুল করিমকে ডিঙিয়ে বিচারপতি তাফাজ্জাল ইসলামকে প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

২০১০ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হককে নিয়োগ দেওয়া হয় বিচারপতি এমএ মতিন ও বিচারপতি শাহ আবু নাঈম মোমিনুর রহমানকে ডিঙিয়ে। পরে ওই দুই বিচারপতি মেয়াদ থাকা অবস্থায় আর বিচারকার্যে অংশ নেননি।

এরপর ২০১১ সালের ১৮ মে বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনকে প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হলে দ্বিতীয় দফা জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘনের শিকার হন বিচারপতি শাহ আবু নাঈম মোমিনুর রহমান। পরে তিনি ৭ মাসের বেশি সময় ছুটিতে থাকার পর ২০১১ সালের ১২ মে পদত্যাগ করেন। বিচারপতি শাহ আবু নাঈম মোমিনুর রহমান ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মরহুম ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এএসএম হান্নান শাহর ভাই।

সর্বশেষ ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি নতুন প্রধান বিচারপতি নিয়োগের মধ্যে দিয়ে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটল। এবার তাৎক্ষণিকভাবে পদত্যাগ করেছেন বিচারপতি আব্দুল ওয়াহ্‌হাব মিঞা। ৩ ফেব্রুয়ারি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নেন।

এই সংবাদটি 1,173 বার পড়া হয়েছে