মঙ্গলবার, ০৬ ফেব্রু ২০১৮ ১০:০২ ঘণ্টা

ঢাকায় পৌঁছেছেন খালেদা

Share Button

ঢাকায় পৌঁছেছেন খালেদা

 ডেস্ক রিপোর্ট: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সিলেট সফর শেষে ঢাকায় পৌঁছেছেন। মঙ্গলবার ভোর সোয়া ৪টায় তিনি তার গুলশানের বাসায় পৌঁছান বলে জানিয়েছেন তার মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার।

 

সোমবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটে নগরীর সার্কিট হাউস থেকে ঢাকার পথে রওনা দেন খালেদা জিয়া। এ সময় তার সঙ্গে ঢাকা থেকে আসা দলের নেতাকর্মীরাও রওনা হন।

এর আগে সন্ধ্যা ছয়টার দিকে হজরত শাহজালাল (রহ.) মাজারে পৌঁছান খালেদা জিয়া। সেখানে ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মোনাজাত করেন।

পরে রাত আটটার দিকে হযরত শাহপরান (রহ.)-এর মাজার জিয়ারত করেন। সেখানেও ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মোনাজাত করেন।

খালেদা জিয়ার আগমন ঘিরে আগে থেকেই হাজার হাজার নেতাকর্মী মাজার দুটির ফটকে অবস্থান করছিলেন। নেতাকর্মীদের ভিড় ঠেলে সামনে এগিয়ে যেতে তার ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীদের ব্যাপক হিমশিম খেতে হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় সামনে রেখে সিলেটে মাজার জিয়ারতের উদ্দেশে সোমবার সকাল ৯টায় গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’ থেকে যাত্রা শুরু করেন খালেদা জিয়া। বিকাল সাড়ে ৪টায় সিলেট সার্কিট হাউসে পৌঁছান।

সফরের পথে ভৈরব, কামারটেক, হবিগঞ্জেরর মাধবপুর, শায়েস্তাগঞ্জ, মীরপুর, গোয়ালাবাজার, শেরপুর মোড়, দয়ামীর বাজার, রশিদপুর, চন্ডিপুল, দক্ষিণ সুরমা, মেন্দিবাগে সড়কে অবস্থান নিয়ে হাজার হাজার নেতাকর্মী খালেদা জিয়াকে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় কয়েকটি স্থানে পুলিশ ও সরকার দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পথে পথে বিভিন্ন স্থানে দেখা দেয় উত্তেজনা। গ্রেপ্তার করা হয় বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন