বৃহস্পতিবার, ০৮ ফেব্রু ২০১৮ ০৮:০২ ঘণ্টা

লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে হামলা

Share Button

লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে হামলা

 ডেস্ক রিপোর্ট:বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলায় রায় ঘোষণার প্রাক্কালে লন্ডনে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশনে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছে। এ সময় দূতাবাস কর্মচারীদের মারধর করা হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এ ঘটনাকে বাংলাদেশের ওপর হামলা হিসাবে অভিহিত করেছেন।

লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক ঘটনাবলীর বিষয়ে একটি স্মারকলিপি হস্তান্তরের অজুহাতে গত বুধবার বিকেলে বিএনপি যুক্তরাজ্য ইউনিটের একদল কর্মী হাইকমিশনে ঢুকে পড়ে। আকস্মিকভাবে তারা মিশনের কর্মীদের ওপর হামলা চালায় এবং সম্পদের ভাঙচুর করে।

বিবৃতিতে বলা হয়, লন্ডন হাইকমিশন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে। হাইকমিশনের সম্পদের ক্ষতি দেশের সম্পদের ক্ষতির সমতুল্য।

হাইকমিশন এই হামলাকে অপ্রত্যাশিত ও লজ্জাজনক হিসেবে বর্ণনা করে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

ঘটনার ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আজ বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে হামলা মূলত বাংলাদেশের ওপর হামলার সমতুল্য। অপরাধীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হাইকমিশনের কর্মীদের ওপর হামলা এবং সম্পদের ক্ষতি করার ভিডিও ফুটেজ বৃটিশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এ ধরনের সহিংস এবং বেআইনী কার্যক্রম বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ব্যাপকভাবে কলঙ্কিত করেছে।

মিডিয়া রিপোর্টে বলা হয়, খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায়ের প্রাক্কালে বিএনপি যুক্তরাজ্য ইউনিটের একদল কর্মী-সমর্থক ব্যানার ও প্লাকার্ড নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশন চত্বরে সমবেত হয়। আকস্মিকভাবেই তারা হাইকমিশনে ঢুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ভাঙচুর করে। লন্ডন মেট্রোপলিটান পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নাসির আহমদ নামে একজনকে আটক করে। তিনি জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের ইউকে চ্যাপ্টরের সভাপতি।

রিপোর্টে বলা হয়, স্মারকলিপি দিতে পুলিশ মাত্র একজন প্রতিনিধিকে হাইকমিশনে ঢোকার অনুমতি দেয়। কিন্তু ১০ থেকে ১২ জন প্রতিবাদকারী জোরপূর্বক ঢুকে পড়ে সেখানে ভাঙচুর চালায়। হাইকমিশন উচ্চ নিরাপত্তা ঝুঁকিসহ ঘটনার বর্ণনা দিয়ে কূটনৈতিক প্রটোকল কার্যালয়ে বার্তা পাঠিয়েছিল।

এই সংবাদটি 1,025 বার পড়া হয়েছে