সোমবার, ১২ ফেব্রু ২০১৮ ১১:০২ ঘণ্টা

বিশ্বনাথে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ক্বারীদের তিলাওয়াতে মুগ্ধ মুসল্লীরা

Share Button

বিশ্বনাথে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ক্বারীদের তিলাওয়াতে মুগ্ধ মুসল্লীরা

 সিলেট রিপোর্ট:  বিশ্বনাথে আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থা’র উদ্যোগে ইসলামী সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা ও ক্বিরাত মাহফিল সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (১০ফেব্রুয়ারি) রাতে উপজেলা সদরের রামপাশা রোডস্থ হাজী আব্দুল খালিক কমিউনিটি সেন্টার প্রাঙ্গণে এই মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ক্বারীদের তিলাওয়াত শুনে মুগ্ধ হয়েছেন মাহফিলে আগত মুসল্লীরা।
মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী মুহাম্মদ মুনতাসির আলী বলেন, কুরআন সকলের জন্য অনুপম আদর্শ। কুরআনের আলোকে দেশ-সমাজ পরিচালিত হলে কোন অপসংস্কৃতি, অবিচার এবং হানাহানি থাকবে না। তিনি কুরআনভিত্তিক সমাজভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানায়।
মাহফিলে পর্যায়ক্রমে সভাপতিত্ব করেন সংস্থার উপদেষ্টা কাজী মাওলানা আব্দুল ওয়াদূদ, সভাপতি মাওলানা রফিকুল ইসলাম জাকারিয়া ও সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আনসার মাহমুদ গনি।
কবি মীম সুফিয়ান’র উপস্থাপনায় মাহফিলে কুরআন তিলাওয়াত করবেন বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ক্বারী শায়েখ আহমদ বিন ইউসুফ আল আজহারী, ক্বারী সাদ সাইফুল্লাহ মাদানী, ক্বারী মাজহারুল আনোয়ার, শিশু ক্বারী হাফেজ মারজিয়া জান্নাত মারিহা। ইসলামী সংগীত পরিবেশন করেন ইসলামী সংগীত জগতের কিংবদরাতী জাগ্রত কবি মুহিব খাঁন, ঢাকা কলরব শিল্পীগোষ্ঠীর পরিচালক আহমদ আব্দুল্লাহ, সিলেট চেতনা শিল্পীগোষ্ঠীর সদস্য তাহের আব্দুল্লাহ, ইসহাক আলমগীর, রেজাউল করিম, মোশারফ আবেদীন ও সুনামগঞ্জ থেকে আগত শাহ গোলাম মাওলা।
অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বিশ্বনাথ মুহাম্মদিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা নুরুল হক, শিক্ষা সচিব মাওলানা ফয়জুর রহমান, বিশ্বনাথ মাদানিয়া মহিলা মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা কামরুল ইসলাম ছমির, রাজনীতিবিদ মাওলানা নেহাল আহমদ, সমাজসেবক আলহাজ্ব আরশ আলী গনি, রাজনীতিবিদ মাওলানা আব্দুল মতিন, বিশ্বনাথ মর্নিং স্টার একাডেমীর প্রিন্সিপাল সায়েক আহমদ শায়েক, বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী মুহাম্মদ জামাল উদ্দিন, সহ-সভাপতি তজম্মুল আলী রাজু, সাধারণ সম্পাদক প্রনঞ্জয় বৈদ্য অপু, যুগ্ম সম্পাদক এমদাদুর রহমান মিলাদ, সদস্য নূর উদ্দিন, আবুল কাশেম, সাংবাদিক নাজমুল ইসলাম মকবুল, আসিক আলী, রুহেল আহমদ, বদরুল ইসলাম মহসিন।
অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগীতায় ছিলেন- সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হাফিজ জিয়াউল হক, যুগ্ম সম্পাদক রফিক আহমদ রাজু, সহ সম্পাদক এনামুল হক, অর্থ সম্পাদক আবু সুফিয়ান, অফিস সম্পাদক জাওয়াদ রহমান, সদস্য খলিলুর রহমান, শাহিন আহমদ, আবিদুল হাসান গণি, জাহেদ জেহিন, খালেদ আহমদ, আব্দুল কাদির, জাহেদ আহমদ, মাসুক মিয়া, হাফিজ নিজাম উদ্দিন, কুতবে আলম, মুহিবুর রহমান প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে হিফজুল কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগীতায় বিজয়ী মাজহারুল আনোয়ার, আহসান হাবিব, লুৎফুর রহমানের হাতে সম্মাননা (নগদ টাকা) তুলে দেন অনুষ্ঠাানের অতিথিবৃন্দ।
পক্ষ থেকে সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদ সর্বস্তরের ব্যবসায়ী, সিলেট চেম্বারের সদস্য, বিভিন্ন মার্কেট ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ, সাংবাদিক ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

এই সংবাদটি 1,062 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন