মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রু ২০১৮ ১১:০২ ঘণ্টা

“মাওলানা শায়খ আব্দুল মতীন ফাউন্ডেশনের সংর্বধনা ও বৃত্তিপ্রদান ২৩ ফেব্রুয়ারি

Share Button

“মাওলানা শায়খ আব্দুল মতীন ফাউন্ডেশনের সংর্বধনা ও বৃত্তিপ্রদান ২৩ ফেব্রুয়ারি

সিলেট রিপোর্ট: বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন,শায়খুল আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী (রাহঃ)এর একান্ত শাগরিদ,জামেয়া মুশাহিদিয়া খাগাইল,কোম্পানীগঞ্জের দীর্ঘকালীন নাজিমে তা’লিমাত,সিলেটের বরেণ্য আলেমে মাওলানা আবদুল মতীন হাফিজাহুল্লাহ এর নামে প্রতিষ্ঠিত সংগঠন “মাওলানা শায়খ আব্দুল মতীন ফাউন্ডেশন,সিলেট”র উদ্যোগে ১৪৩৮ হিজরিতে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম বারের মতো সম্মিলিতভাবে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে ‘আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’র অধীনে অনুষ্ঠিত দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স সমমান) পরীক্ষায় মেধাতালিকার শীর্ষ ৪০-এ অবস্থানকারী সিলেট বিভাগের কৃতী তরুণ আলেমদের সংবর্ধনা ও বৃত্তিপ্রদান করবে। আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার, বিকাল ০৩টা। শহীদ সুলেমান হলে অনুষ্ঠিত সংর্বধনায় আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তা’লীম বাংলাদেশ ও বেফাকুল মাদারিসের কেন্দ্রীয় মুরব্বি, জামিয়া দরগাহ, কাজিরবাজার, তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা, ভার্থখলা, দারুল কুরআন, সোবহানীঘাট, গলমুকাপনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মুরব্বি উলামায়ে কেরাম, শিক্ষাবিদ ও লেখক-সাংবাদিক সহ দেশ-বিদেশের মেহমানগণ উপস্থিত থাকবেন।উক্ত অনুষ্ঠান সফল করে তোলার জন্য সমন্বয়কারী মাওলানা নুরুযযামান সাইদ,মাওলানা রুহুল আমীন নগরী ও মাওলানা ইলিয়াস মাশহুদ আহবান জানিয়েছেন।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন