বুধবার, ১৪ ফেব্রু ২০১৮ ০১:০২ ঘণ্টা

প্রশ্ন ফাঁস: চট্টগ্রামে ১৮ পরীক্ষার্থী, এক শিক্ষক আটক

Share Button

প্রশ্ন ফাঁস: চট্টগ্রামে ১৮ পরীক্ষার্থী, এক শিক্ষক আটক

ডেস্ক রিপোর্ট: চট্টগ্রামে এসএসসি পরীক্ষায় পদার্থ বিজ্ঞানের পরীক্ষার আগে প্রশ্নপত্র পাওয়ায় তিনটি কেন্দ্রের ৩৩ পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এদের মধ্যে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে ১৮ জনকে। আটক হয়েছেন একজন শিক্ষকও।

মঙ্গলবার চট্টগ্রাম নগরের দুটি ও ফটিকছড়ি উপজেলার একটি কেন্দ্র থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী জানান, পরীক্ষা শুরুর এক ঘণ্টা আগে বাসে করে কেন্দ্রে আসার সময় ফাঁস হওয়া প্রশ্ন দেখে বহিষ্কৃত হয়েছেন চট্টগ্রাম আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের পটিয়া ক্যাম্পাসের বিজ্ঞানের ২৪ ছাত্র। তাদের মধ্যে নয় শিক্ষার্থী ও তাদের সঙ্গে থাকা শিক্ষিকাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এসএসসির প্রতিটি বিষয়ের নৈর্ব্যত্তিক পরীক্ষার প্রশ্ন আগেভাগেই আসছে সামাজিক মাধ্যমে। আর স্মার্টফোনের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে পড়ছে ব্যাপক হারে। এই অবস্থায় রবিবার নতুন নির্দেশনা জারি করে শিক্ষা বিভাগ। এতে কেন্দ্রের আশেপাশে ২০০ মিটারের মধ্যে কারও হাতে মোবাইল ফোন থাকলে তাকে গ্রেপ্তারের কথা বলা হয়েছে।

সকালে পরীক্ষা শুরুর আগে নগরীর কোতয়ালি থানাধীন বাংলাদেশ মহিলা সমিতি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রের বাইরে পরীক্ষার্থীদের একটি বাসে তল্লাশি চালিয়ে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোনে প্রশ্ন পাওয়া যায়। পরে দেখা যায়, হুবহু সেই প্রশ্নেই নেয়া হয়েছে পরীক্ষা।

ওই বাসে করে পরীক্ষা দিতে যাচ্ছিল পটিয়া আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা।  পরে পরীক্ষার্থীদেরকে বিশেষ পাহারা দিয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়। পরে ঘটনাস্থলে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের একটি টিম ঘটনাস্থলে যায়।

পরীক্ষার আগে বাস থেকে সাতটি মোবাইল ফোন ও দুটি খাতা জব্দ করা হয়। এই বাসের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩০ জন ব্যবসায় শিক্ষা এবং ২৪ জন বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষার্থী ছিলেন। তার তাদের আনা নেওয়ার দায়িত্বে ছিলেন গ্রেপ্তার হওয়া শিক্ষিকা।

আর পরীক্ষা শেষে যাদের হাতে মোবাইল ফোন ছিল এবং যাদের হাতে খাতা ছিল, তাদেরকে এবং তাদের আনা নেয়ার দায়িত্বে থাকা শিক্ষিকারে গ্রেপ্তার করা হয়।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) হাবিবুর রহমান বলেন, নুরুল ইসলাম নামে এক পরীক্ষার্থী প্রশ্নগুলো সংগ্রহ করে ফেইসবুক মেসেঞ্জার গ্রুপে শেয়ার করে বলে জানিয়েছে।

দুই বোন গ্রেপ্তারআসামি বাবা

এছাড়া পুলিশ লাইন্স ইনস্টিটিউট কেন্দ্রের সামনে দাঁড়িয়ে পরীক্ষার্থী দুই মেয়েকে মোবাইলে প্রশ্নোত্তর দেখিয়ে মামলার আসামি হয়েছেন তাদের বাবা। ওই দুই বোনকে বহিষ্কারের পাশাপাশি গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পরীক্ষা শুরুর আগে কেন্দ্রের বাইরে দাঁড়িয়ে দুই মেয়েকে প্রশ্ন দেখানোর সময় অন্য অভিভাবকরা হট্টগোল শুরু করলে দুই মেয়ের বাবা মোবাইল ফোন রেখে পালিয়ে যান।

ফটিকছড়িতে গ্রেপ্তার সাত

এর বাইরে ফটিকছড়ি উপজেলার হেঁয়াকো বনানী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে মোবাইল ফোনে প্রশ্ন পাওয়ার পর সাত শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা থেকে বহিষ্কারের পাশাপাশি গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

ফটিকছড়ির ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল হাসনাত মো. শহীদুল হক জানান, এই শিক্ষার্থীদের কাছে যে প্রশ্ন পাওয়া গেছে, পরীক্ষায় আসা প্রশ্নের সঙ্গে তার হুবহু মিল পাওয়া গেছে।

ঢাকাটাইমস

 

এই সংবাদটি 1,024 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com