Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | বেফাক কাউন্সিলে উপেক্ষিত দেশের র্শীষ তিন আলেম
বুধবার, ১৪ ফেব্রু ২০১৮ ১২:০২ ঘণ্টা

বেফাক কাউন্সিলে উপেক্ষিত দেশের র্শীষ তিন আলেম

Share Button

বেফাক কাউন্সিলে উপেক্ষিত দেশের র্শীষ তিন আলেম

 
সিলেট রিপোর্ট: গত ১২ ফ্রেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত দেশের কওমি মাদ্রাসাসমূহের কেন্দ্রীয় সর্ববৃহৎ বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক)এর কাউন্সিলে দাওয়াত পাননি বোর্ডের অন্যতম সহসভাপতি ও দেশের র্শীষ আলেম শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী।  জামিয়া আরাবিয়া উমেদ নগর এর মুহতামিম ও হবিগঞ্জ দ্বীনী বোর্ডের সভাপতি বরেন্য এই আলেমকে বেফাকের সদ্যসমাপ্ত কাউন্সিলে আমন্ত্রন জানানো হয়নি বলে জানাগেছে।  এবাপারে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি আল্লামা শাহ আহমদ শফীর প্রতি সম্মানের প্রতি লক্ষ রেখে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।  তবে তার ঘনিষ্ট সুত্র সিলেট রিপোর্টকে নিশ্চিত করেছেন যে,  তিনি কাউন্সিলের দাওয়াত পেলে অবশ্যই যেতেন’। 
এদিকে, কাউন্সিলে যাননি দেশের আরেক র্শীষ আলেম মাওলানা আনোয়ার শাহ কিশোরগঞ্জী।  ময়মনসিংহের প্রভাবশালী আলেম মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ সাদী তিন দফা প্রস্তাব দিয়েই সম্মেলন থেকে চলে আসেন।  এসব বিষয়নিয়ে সোস্যাল মিডিয়ায় প্রচুর লেখালেখি হচ্ছে।   ফেসবুকে অনেকেই ক্ষুব্ধপ্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন কাউন্সিল প্রক্রিয়া নিয়ে।  আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, যাত্রাবাড়ী মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মাহমুদুল হাসান, হাটহাজারী মাদরাসার সহকারী মহাপরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর নাম জুনিয়রদের নীচে রাখাকে অনেকেই এটাকে ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করেছেন।  বিশেষ করে কোন মাদরাসার মুহতামিম না হয়েও মুফতি ফয়জুল্লাহকে সহসভাপতি করায়, এছাড়া ও মাওলানা আনাস মাদানী ও মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু বয়সে জুনিয়র হওয়া সত্তেও তাদেরকে দাদার সমবয়সী আলেমদের আগে স্থান দেয়ায় বিরুপ মন্তব্য করেছেন অনেকেই।  এসব বিষয় নিয়ে বেফাকস্নিতুন কমিটির গ্রহনযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। 
প্রসঙ্গত,হেফাজত আমীর ও দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী চেয়ারম্যান হিসাবে পুনঃর্নিবাচিত হয়েছেন। অপরদিকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ঢাকা ফরিদাবাদ মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা আব্দুল কুদ্দুসকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়েছে। ১২ ফেব্রয়ারি সকাল ৯টা থেকে ঢাকার ফরিদাবাদ মাদ্রাসায় বেফাক-এর কেন্দ্রীয় কাউন্সিল শুরু হয়। এতে সভাপতিত্ব করছেন বেফাকের চেয়ারম্যান ও হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী। তিনি বেফাকের কাউন্সিল উপলক্ষে ঢাকায় আসেন।

কাউন্সিলে উপস্থিত রয়েছেন বেফাকের সিনিয়র সহসভাপতি ও মালিবাগ জামিয়া শরইয়্যার প্রিন্সিপাল আল্লামা আশরাফ আলী, জামিয়া মাদানিয়া বারিধারার প্রিন্সিপাল আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী, মাওলানা আব্দুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুর, মাওলানা নূরুল ইসলাম, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা নূরুল আমিন, মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজুসহ কমিটির সদস্য এবং ঢাকা ও ঢাকার বাইরের বোর্ডভুক্ত কওমি মাদ্রাসার প্রতিনিধিবৃন্দ।সভায় বেফাকের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আল্লামা আবদুল কুদ্দুস বেফাকভুক্ত মাদ্রাসাসমূহের শিক্ষার মানোন্নয়নে কিছু সুপারিশ পেশ করেন এবং এরপর আলোচনা-পর্যালোচনা শেষে সেগুলো সর্বসম্মতিক্রমে পাশ হয়। অনুমোদিত সুপারিশসমূহ হচ্ছে- (১) আগামী বছর থেকে অন্যান্য জামাতের মতো মক্তব (নুরানি) বিভাগের বার্ষিক পরীক্ষাও বেফাকের অধীনে পরিচালিত হবে। (২) বেফাকের কার্যক্রম সুষ্ঠু ও সহজভাবে পরিচালনার জন্য নিজস্ব একটি বহুতল ভবন নির্মাণ। (৩) কাফিয়া জামাতের বার্ষিক পরীক্ষাও বেফাকের অধীনে অনুষ্ঠিত হওয়া এবং (৪) ফতোয়া বিভাগের মান উন্নয়নের জন্য আগামী বছর থেকে ইফতা’র পরীক্ষা বেফাকের আওতায় গ্রহণ করা।বেফাকের কাউন্সিল সভায় বোর্ডের যুগ্ম মহাসচিব ও জামিয়া রাহমানিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহফুজুল হক লিখিত প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।
এদিকে বেফাকের কাউন্সিল অধিবেশনে ১১৬ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হয়। সভাপতি দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফী, সিনিয়র সহসভাপতি জামিয়া শরইয়্যাহ মালিবাগের পরিচালক আল্লামা আশরাফ আলী, মহাসচিব জামিয়া ইমদাদিয়া ফরিবাদাদের মুহতামিম মাওলানা আবদুল কুদ্দুস। সহসভাপতি হিসেবে ২৭ জন দায়িত্ব পালন করবেন, যথাক্রমে- আল্লামা আজহার আলী আনোয়ার শাহ (জামিয়া ইমদাদিয়া কিশোরগঞ্জ), আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (বারিধারা), মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস (মনিরামপুর যশোর), আল্লামা মোস্তফা আযাদ (আরজাবাদ), প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবিবুর রহমান (সিলেট), মাওলানা আবদুল কুদ্দুস ( মিরপুর), মাওলানা আবদুল বারী ধর্মপুরী (মৌলভীবাজার), মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী (বাবুনগর, চট্টগ্রাম), মাওলানা নূরুল ইসলাম আযাদী (ওলামাবাজার ফেনী) আল্লামা মাহমুদুল হাসান (যাত্রাবাড়ী), মাওলানা আবদুর রহমান হাফেজ্জী (মোমেনশাহী) মাওলানা আবদুল হামিদ (মধুপুর), মাওলানা নূরুল ইসলাম (খিলগাঁও), মাওলানা আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী (জামিয়া নূরিয়া), মাওলানা সাজিদুর রহমান (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), মাওলানা সালাহুদ্দীন (নানুপুর, চট্টগ্রাম), মাওলানা ছফিউল্লাহ (জামিয়া দ্বীনিয়া, মতিঝিল), মুফতি জাফর আহমদ (ঢালকানগর), মুফতি ফয়জুল্লাহ (লালবাগ), মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজু (সিলেট), মাওলানা আনাস মাদানী (হাটহাজারী) মাওলানা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, মাওলানা বদরুদ্দীন (সিলেট), মাওলানা আশেক এলাহী (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), মাওলানা ফয়জুল্লাহ (মাদানীনগর)।যুগ্মমহাসচিবের দায়িত্ব পালন করবেন ৯ জন। যথাক্রমে- মাওলানা মাহফুজুল হক (মুহতামিম, জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া ঢাকা), মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী (ইসলামবাগ মাদরাসার মুহতামিম) মুফতি নুরুল আমিন (মুহাদ্দিস, ফরিদাবাদ মাদরাসা ঢাকা), মুফতি কেফায়েতুল্লাহ আজহারী (আল মানহাল কওমী মাদরাসা উত্তরা), মুফতি নেয়ামাতুল্লাহ (জামিয়া সাহবানিয়া দারুল উলুম ঢাকা), মাওলনা শামসুল হক (দ্বীনি শিক্ষাবোর্ড হবিগঞ্জ), মালানা নজরুল ইসলাম (এদারায়ে তালিমিয়া সিলেট), মাওলানা মোবারক উল্লাহ (এদারায়ে তালিমিয়া বি.বাড়িয়া), মাওলানা জামালুদ্দীন মাহমুদ (তালিমি বোর্ড মাদানীনগর)।
কোষাধ্যক্ষ ১ জন হলেন, মাওলানা মুনিরুজ্জামান (মুহতামিম জামিয়া ইসলামিয়া বায়তুন নূর ঢাকা)। সাংগঠনিক সম্পাদক ১৫ জন হলেন, মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ সাদি (সওতুল হেরা মোমেনশাহী), মাওলানা ওবায়দুর রহমান মাহবুব (জামিয়া ইসলামিয়া মাহমুদিয়া বরিশাল) মাওলানা আনোয়ারুল করীম (জামিয়া এযাযিয়া দারুল উলূম,যশোর) মাওলানা ইয়াছিন (দারুল উলূম ফয়েজে আম, ঠাকুর গাঁও) মাওলানা ইসহাক (মেহেরীয়া মুইনুল ইসলাম চট্টগ্রাম) আবদুল খালেক (খাদিজা ইসলামিয়া মহিলা মাদরাসা সিলেট) মাওলানা  আবদুল কুদ্দুস (জামিয়া আরাবিয়া কাসেমুল উলূম কুমিল্লা) মাওলানা  হেলালুদ্দীন (চরকমলাপুর  মাদরাসা ফরিদপুর), মাওলানা আবদুল্লাহ (জামিয়া ইসলামিয়া মদিনাতুল উলূম ঢাকা),মাওলানা সিহাবুদ্দীন (মাদরাসাতুল মদীনা নাটোর), মাওলানা  আবদুল আজীজ (জামিয়া ফারুকিয়া সিলেট), মাওলানা মীর ইদ্রিস আলী (আল হুদা মহিলা মাদরাসা হাটহাজারী চট্টগ্রাম), মাওলানা শফিকুল ইসলাম (মাহমুদীয়া মহিলা মাদরাসা সাইনবোর্ড ঢাকা), মাওলানা আসাদুর রহমান আকন্দ (জামিয়া রাহেলা পারভিন মহিলা মাদরাসা নেত্রকোনা), মাওলানা রশিদ আহমদ (জামিয়া এমদাদিয়া মহিলা মাদরাসা যশোর)।

 

 

Image may contain: one or more people
Image may contain: 1 person
Image may contain: 1 person, beard and eyeglasses
No automatic alt text available.

এই সংবাদটি 1,352 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com