বুধবার, ১৪ ফেব্রু ২০১৮ ০২:০২ ঘণ্টা

বেফাকে ‘পরিবারতন্ত্র’

Share Button

বেফাকে ‘পরিবারতন্ত্র’

 

সিলেট রিপোর্ট:  দেশের কওমি মাদ্রাসাসমূহের কেন্দ্রীয় সর্ববৃহৎ বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক)এর কাউন্সিল গত ১২ ফ্রেব্রুয়ারি অনিষ্ঠিত হয়।  সে দিন বোর্ডের ১১৬ সদস্য বিশিষ্ট বেফাকের বিশাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। এটা নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনার ঝড়বইছে।  অনুসন্ধানে জানাগেছে,
পাঁচ বছর পর এই কাউন্সিল হওয়ার কথা থাকলেও কিছুটা দেরিতে অনুষ্ঠিত হলো। সভাপতি হিসেবে অবিসংবাদিত মুরব্বি আল্লামা শাহ আহমদ শফী পুনরায় নির্বাচিত হবেন সেটা নিয়ে কারও কোনো সন্দেহ ছিল না। মহাসচিব পদেও মাওলানা আবদুল কুদ্দুস সাহেব ‘ভারমুক্ত’ হবেন এটাও প্রায় নিশ্চিত ছিল। তবে সবার কৌতূহল ছিল পরবর্তী পদগুলোর ব্যাপারে। কে নতুন যোগ হচ্ছেন, আর বাদ পড়ছেন কে সেটা নিয়ে ভেতরে ভেতরে অনেক গুঞ্জন ছিল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও এই কাউন্সিল নিয়ে ছিল উত্তাপ। অনেকে তাদের প্রত্যাশার কথা ফেসবুকে প্রচার করেছেন। যাদের কাউন্সিলে থাকার সুযোগ হবে না তারা ফেসবুকেই বলেছেন মনের কথাগুলো। বেফাকের প্রতি তাদের প্রত্যাশাগুলো অনেকে বড় করে উপস্থাপন করেছেন। অনেকেই পরিবার তন্ত্রের অভিযোগ তুলেছেন ।   আল আমীন কাসেমী তার ফেসবুক আইডি থেকে এক অভিনন্দন বার্তায় ফুটে উঠেছে বিষয়টি।   তিনি উল্লেখ করেন:

গতকাল (১২ ফেব্রুয়ারি) সোমবার বেফাকের বিশাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। এটা নিয়ে অল্পবিস্তর সমালোচনা হয়েছে। আমিও সমালোচনা করেছি। কিন্তু এই পোস্টটি কোনো সমালোচনার জন্য নয়, বরং অভিনন্দন জানানোর জন্য। এখানে কেউ অন্যকোনো অর্থ খুঁজবেন না। সবকিছুতে সমালোচনা ঠিক না। মুরুব্বিদের সিদ্ধান্ত নিয়ে কথা বলা বেয়াদবি। এগুলো করে সময় নষ্ট না করে শুরু হোক অভিনন্দন জানানো এবং মেনে নেওয়ার রীতি।

বেফাকের কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে অভিনন্দন- পুনরায় সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের সদয় সম্মতির জন্য। সেই সঙ্গে অভিনন্দন সভাপতিপুত্র মাওলানা আনাস মাদানিকে সহ-সভাপতি এবং সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে সভাপতির জামাতা মাওলানা ইসহাকের অন্তর্ভূক্তির জন্য।

মাওলানা আবদুল কুদ্দুস মহাসচিব হয়েছেন। তার ভগ্নিপতি মুফতি নুরুল আমীন যুগ্ম মহাসচিব এবং ভাই মাওলানা আব্দুল কাদির আছেন নির্বাহী সদস্য হিসেবে। তাদেরও অভিনন্দন।

সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী এবং তার জামাতা মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন।

মুফতি ওয়াক্কাস সহ-সভাপতি এবং তার ছেলে মাওলানা রশিদ আহমদ সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন। তাদেরও অভিনন্দন।

মুফতি মাহফুজুল হক যুগ্ম-মহাসচিব এবং তার ভগ্নিপতি মুফতি নেয়ামত উল্লাহকে যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে মোবারকবাদ। মাওলানা মহমুদুল হাসান সহ-সভাপতি এবং তার জামাতা মাওলানা নেয়ামত উল্লাহ ফরিদি আছেন শুরা সদস্য হিসেবে। তাদেরও অভিনন্দন। এ ছাড়া দলীয়ভাবে যারা কমিটিতে এসেছেন, বেফাকের কমিটিতে কেবলমাত্র মুহতামিমদের সদস্য হওয়ার বিধান থাকা সত্ত্বেও যারা ভিন্নভাবে কমিটিতে স্থান পেয়েছেন তাদের জন্যও আলাদা অভিনন্দন সম্বলিত পোস্ট দরকার। তো শুরু হোক অভিনন্দন জানানোর পালা….

এই সংবাদটি 1,280 বার পড়া হয়েছে