বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রু ২০১৮ ০৬:০২ ঘণ্টা

খালেদার আপিল গ্রহণ, জামিনের শুনানি রবিবার

Share Button

খালেদার আপিল গ্রহণ, জামিনের শুনানি রবিবার

  ডেস্ক রিপোর্ট:  দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আপিল গ্রহণ করেছে উচ্চ আদালত। আর দুদকের সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জামিন আবেদনের ওপর রবিবার দুপুর দুইটায় শুনানি হবে বলে জানিয়েছে হাইকোর্ট বেঞ্চ। একই সঙ্গে খালেদাকে দেয়া অর্থদণ্ড স্থগিত করেছেন আদালত।

 

বৃহস্পতিবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর র‌হিম ও স‌হিদুল করিমের বেঞ্চে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর আপিলের গ্রহণযোগ্যতার ‍ওপর শুনানি শেষে এই আদেশ দেয়া হয়।

খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এজে মোহাম্মদ আলী ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন। দুদকের পক্ষে শুনানি করেন খুরশিদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আপিল শুনানির জন্য আসলে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফরহাদ হোসেন সময় আবেদন করেন। এরপর আদালত বেলা ১২টায় শুনানির জন্য সময় নির্ধারণ করেন।

কিন্তু বেলা ১২টার আগেই বিএনপি, আওয়ামী লীগপন্থি ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের উপস্থিতিতে আদালত কক্ষ ভরে যায়। জ্যেষ্ঠ আইনজীবীদের আদালত কক্ষে প্রবেশ করতে বেশ বেগ পেতে হয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আদালত বলেন, আমরা শুনানির জন্য ১২টায় সময় দিয়েছি। কিন্তু এখন আমরা শুনানির জন্য প্রস্তুত। আপনারা শুনানি করতে পারেন। এ সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, এজে মোহাম্মদ আলী এখনও আসেননি।

আদালত কক্ষে হৈচৈ চলতে থাকলে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন যারা শুনানি করবেন উভয়পক্ষের আইনজীবীদের নির্ধারণ করে দেন। তখন জয়নুল আবেদীন বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল একটি প্রস্তাব দিয়েছেন, এরতো বিরোধিতা করতে পারি না। পরে আদালত বলেন, আদালত ১০ মিনিটের জন্য বিরতিতে যাচ্ছে। আপনারা পরিস্থিতি সামাল দেন। এরপর বেলা ১২টায় আদালতের এজলাসে বিচারকদ্বয় আসনগ্রহণ করেন। শুনানি শুরু করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী।

শুনানির সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপি নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জমির উদ্দীন সরকার, মওদুদ আহমেদ, খন্দকার মাহবুব হোসেন, মাহবুব উদ্দীন খোকন প্রমুখ। আওয়ামীপন্থি আইনজীবীদের মধ্যে ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, আইন সম্পাদক শ ম রেজাউল করিম প্রমুখ।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি বিচারিক আদালতে রায় ঘোষণা করা হয়। রায়ে বিএনপি প্রধান খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেয়া হয়। এছাড়া তারেক রহমানসহ মামলার অন্য পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড করা হয়। রায় ঘোষণার পর খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেয়া হয়।

রায়ের দিন খালেদার আইনজীবীরা ১১ ফেব্রুয়ারি আপিলের কথা জানালেও রায়ের অনুলিপি না পাওয়ায় আপিল করতে পারেননি। এরপর থেকে প্রতিদিনই রায়ের কপি পাওয়ার আশার কথা জানালেও পাননি আইনজীবীরা। অবশেষ গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বিকালে রায়ের অনুলিপি পান খালেদার আইনজীবীরা।

১১৭৪ পৃষ্ঠার রায়ের অনুলিপি আদালত থেকে বুঝে নেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া। ৬৩২ পৃষ্ঠার রায়ের অনুলিপি হয়েছে ১১৭৪ পৃষ্ঠা। এর মধ্যে ১১৬৮ পৃষ্ঠা রায়ের বিবরণ এবং ছয় পৃষ্ঠা মূল আদেশ।

বিচারিত আদালতের সাজার বিরুদ্ধে গত ২০ ফেব্রুয়ারি আপিল করেন খালেদা জিয়া। ওইদিনই শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন নির্ধারণ করেন আদালত।

এই সংবাদটি 1,036 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com