শুক্রবার, ২৩ ফেব্রু ২০১৮ ১০:০২ ঘণ্টা

শীর্ষ দুই আলেমের অশ্রুসিক্ত বিদায়

Share Button

শীর্ষ দুই আলেমের অশ্রুসিক্ত বিদায়

সিলেট রিপোর্ট:
একই দিনে মৃত্যুবরণ কারী  দেশের দুই শীর্ষ আলেমের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।  পৃথক স্থানে রাজধানীর এই দুই বরেন্য আলেমের জানাযায় হাজার হাজার আলেম-উলামা অশ্রুসিক্ত নয়নে তাদের অন্তি শয়ানে সমাহিত করাহয়। তারা হলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাবেক নির্বাহী সভাপতি ও আরজাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মুক্তিযোদ্ধা মাওলানা মোস্তফা আজাদ এবং হাফেজ্জী হুজুরের বড় ছেলে ও বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের সাবেক আমির মাওলানা আহমাদুল্লাহ আশরাফ।  শুক্রবার সকালে তারা ইন্তেকাল করেন। তারা দুজনই দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থতায় ভুগছিলেন।
তাদের ইন্তেকালের সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে কওমি অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে আসে।

মাওলানা মোস্তফা আজাদ
দেশের বরেন্য আলেম জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ সভাপতি,বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার সহসভাপতি ও জামিয়া হোসাইনিয়া আরজাবাদ মিরপুর,ঢাকার মুহতামিম ,বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধ আলেম মাওলানা মোস্তফা আজাদ আর নেই। তিনি আজ শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯.৪৫ মিনিটে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওইন্না ইলাহী রাজিউন। তিনি কিছু দিন যাবত ওরিয়ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মরহুমের জানাযার নামায বাদ মাগরিব আরজাবাদ মাদরাসা সংলগ্ন ৯ নং ওয়ার্ড গোলারটেক ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

জানাযায় ইমামতি করেন দারুল উলুম দেওবন্দের শায়খে সানী হযরত মাওলানা আব্দুল হক আজমী (রহ) এর ছাহেব যাদা মাওলানা আব্দুল বার আজমী। পরে মিরপুরস্থ শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাযায় উপস্থিত ছিলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী, খেলাফত মজলিসের আমির মাওলানা ইসহাক, মহাসচিব ড.অধ্যাপক আহমদ আব্দুল কাদের, নেজামে ইসলাম পার্টির নেতা মুফতি ইজহারুল হক,  বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস নেতা মাওলানা মাহফুজুল হক, ইসলামী ঐক্যজোট নেতা মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, জমিয়ত নেতা মাওলানা জহিরুল হক ভুইয়া, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, মাওলানা মনজুরূল ইসলাম আফেন্দিসহ বিভিন্ন সংগঠনের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ সহ বিপুল সংখ্যক আলেম উলামা উপস্থিত ছিলেন।
 জামিয়ার নায়বে মুহতামিম মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া সিলেট রিপোর্টকে এই তথ্য জানান। মুত্যকালে তার বয়স হয়েছিলো প্রায় ৬৫ বছর। স্ত্রী, ৩ মেয়ে, ১ ছেলেসহ অসংখ্য আত্মিয় স্বজন,ছাত্র রেখেযান। মাওলানা মোস্তফা আজাদ ১৯৫৩ সালের ১০ ই মে গোপালগঞ্জ জেলার সাধুহাটি গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম বাদশা মিয়া। প্রাথমিক লেখা পড়া গ্রামের মক্তবে শেষ করেন। ১৯৭৩ সালে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া থানাধীন ঐতিহ্যবাহী দারুল উলুম গওহর ডাঙ্গা খাদেমুল ইসলাম মাদরাসা থেকে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন। ১৯৭৭ সালে কাশিয়ানী উপজেলাধীন রামদিয়া কলেজ থেকে ডিগ্রী পাশ করেন। ১৯৭৮ সালে জামিয়া হোসাইনিয়া আরজাবাদে মুজাহিদে মিল্লাত মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমীর নিকট তাফসীর র্কোস সম্পন্ন করেন। ১৯৭৯ সালে তাকে অত্র মাদরাসার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেন মরহুম শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ)। পরে নায়বে মুহতামি নিযুক্ত হন। অত:পর ১৯৯৬ সালে শামছুদ্দীন কাসেমী সাহেব ইন্তেকালের পরে মজলিশে শুরায় তিনি মুহতামিম নিযুক্ত হন। মৃত্যুপর্যন্ত তিনি আরজাবাদ জামিয়ার মুহতামিম ছিলেন। রাজনৈতিক ময়দানে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নিবার্হী সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন । বর্তমান কমিটির তিনি সিনিয়র সহসভাপতি পদে ছিলেন। তার বাবা ছিলেন ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলসের অবসরপ্রাপ্ত সুবেদার মেজর। গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে তাদের গ্রামের বাড়ি। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন মেয়ে, এক ছেলে, হাজার ছাত্র-শিষ্য ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

জমিয়তের শোক:

দেশের এই র্শীষতম আলেমেদ্বীনের ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি আল্লামা আব্দুল মোমিন,মহাসচিব আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা শরফুদ্দীন ই্য়াহইয়া,সাধারণ সম্পাদক মাওলানা গোলাম মাওলা,প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী,ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতি নাসির উদ্দীন খান।

মাওলানা আহমাদুল্লাহ আশরাফ

শুক্রবার আসর নামাজের পর রাজধানীর কামরাঙ্গীচরে অবস্থিত জামিয়া নুরিয়া আশরাফাবাদে  হাফেজ্জী হুজুর রহ.-এর কনিষ্ঠপুত্র ও খেলাফত আন্দোলনের বর্তমান আমীর আল্লামা শাহ্‌ আতাউল্লাহ হাফেজ্জীর ইমামতীতে জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। বর্ষীয়ান আলেম আজ শুক্রবার সকাল ৭ টা৩০ মিনিটে রাজধনীর ধানমন্ডির শংকর এলাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

উল্লেখ্য,  ১৯৮৭ সালের ৭ মে হাফেজ্জী হুজুরের ইন্তেকালের পর খেলাফত আন্দোলনের দায়িত্ব ভার গ্রহণ করেন মাওলানা কারী শাহ আহমাদুল্লাহ আশরাফ।একটানা ২৭ বছর আমীরের দায়িত্ব পালন করেন । পরে তিনি পর পর কয়েক বার ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে খেলাফত আন্দোলনের দায়িত্ব ভার তার ছোট ভাই কারী মাওলানা শাহ আতাউল্লাহকে বুঝিয়ে দেন।বর্ষীয়ান  এই আলেমের জানাযায় হাজার হাজার আলেম-ওলামা ও ধর্মপ্রাণ মুসলমান অংশগ্রহণ করেন। তিনি দীর্ঘদিন জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের প্রধান মুয়াজ্জিন ছিলেন। হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির ছিলেন তিনি। বাদ আসর কামরাঙ্গীরচরের জামিয়া নুরিয়া মাদ্রাসা ময়দানে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এই সংবাদটি 1,100 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com