রবিবার, ২৫ ফেব্রু ২০১৮ ০৬:০২ ঘণ্টা

এবার সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে পারবেন সৌদি নারীরা

Share Button

এবার সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে পারবেন সৌদি নারীরা

   ডেস্ক রিপোট: নারীরা এখন থেকে সৌদি আরবের সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে পারবেন বলে দেশটির জেনারেল সিকিউরিটি বিভাগ ঘোষণা দিয়েছে। তবে প্রাথমিকভাবে দেশটির রাজধানী রিয়াদসহ মক্কা, আল-কাসিম ও আল-মদিনার নারীরা এই সুযোগ পাবেন।

সৌদি আরবের ইংরেজি দৈনিক আল আরাবিয়া এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, যে নারীরা সেনাবাহিনীতে সৈনিকপদে আবেদন করবেন তাদের অবশ্যই সৌদি বংশোদ্ভূত ও সৌদিতে বেড়ে উঠতে হবে। তবে সরকারি চাকরিতে বিদেশে কর্মরত কর্মকর্তাদের সন্তান যারা বিদেশে পিতার-মাতার সঙ্গে বসবাস করছেন, তারাও আবেদন করতে পারবেন।

চাকরিতে বয়সের সর্বোচ্চসীমা ২৫ থেকে ৩৫ বেঁধে দেয়া হয়েছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে উচ্চ-মাধ্যমিক পাস হতে হবে।

চাকরিতে নিয়োগ পাওয়ার আগে আবেদনকারী নারীদের প্রাথমিক পরীক্ষা, সাক্ষাৎকার ও মেডিক্যাল চেকআপ উতড়ে যেতে হবে। এছাড়া আবেদনকারী নারীদের ভালো আচরণের সনদপত্র থাকতে হবে। এছাড়া সরকারি খাত ও সেনাবাহিনীতে কর্মরত প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন না।

সৌদি গ্যাজেট বলছে, বিদেশি নাগরকিদের যে নারীরা বিয়ে করেছেন তারাও আবেদনের অযোগ্য বিবেচিত হবেন।

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সৌদি নারীদের এগিয়ে নিতে দেশটির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ব্যাপক সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারের লক্ষ্যে ভিশন-২০৩০ হাতে নিয়েছেন। তেল নির্ভর অর্থনীতি থেকে বেরিয়ে আসার লক্ষ্যে এ সংস্কার পরিকল্পনা করেন যুবরাজ।

দেশটিতে গত কিছুদিন ধরেই পরিবর্তনের হাওয়া বইছে। গত বছর সেখানে বাণিজ্যিক সিনেমার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। এছাড়া চলতি বছরের মার্চে সেখানে প্রথম সিনেমা হল চালুর কথা রয়েছে।

গত ডিসেম্বরে সৌদি আরবে প্রথম কোন গানের কনসার্টে নারী সঙ্গীত শিল্পীকে গাইতে দেখা যায়। সৌদি আরবে স্টেডিয়ামে গিয়ে মেয়েদের খেলার দেখারও অনুমতি দেয়া হয়েছে কিছুদিন আগে।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন