সোমবার, ২৬ ফেব্রু ২০১৮ ০৩:০২ ঘণ্টা

হাতিরঝিলের মসজিদ এখনো পুনর্নির্মাণ করা হয়নি!

Share Button

হাতিরঝিলের মসজিদ এখনো পুনর্নির্মাণ করা হয়নি!

ডেস্ক রিপোর্ট: আলোর মুখ দেখছে না হাতিরঝিলের জাবাল-ই নুর মসজিদ। জমি অধিগ্রহণ করে মসজিদ সরিয়ে দেয়ার দীর্ঘ দিন পরেও হাতিরঝিল উন্নয়ন প্রকল্প এলাকার ১৬ বছরের পুরনো এই মসজিদটি পুনর্নির্মাণ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হয়নি। মসজিদের সাথে সংশ্লিষ্টরা এ জন্য রাজউকের কিছু কর্মকর্তাকে দায়ী করেছেন।
বেগুনবাড়ী খালসহ হাতিরঝিল এলাকার সমন্বিত উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণের সময় প্রকল্প ও রাস্তার এলাইনমেন্টের ভেতরে পাঁচটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান পড়ে। এর অন্যতম হচ্ছে ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত উলন মৌজার মধুবাগ সংলগ্ন জাবাল-ই নুর মসজিদ ও মাদরাসা (আর এস খতিয়ান নম্বর ৩১২, দাগ নম্বর ১৫৩৫)। মসজিদটির জন্য ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি ওয়াকফ করে দেন ৬৪৩ বড় মগবাজারের অধিবাসী এ এস এম আব্দুল হাকিম ও মগবাজার চৌরাস্তা জামে মসজিদের সাবেক খতিব মাওলানা মাহমুদুল হাসান পাটোয়ারী। তারা জানিয়েছেন, মসজিদটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই মসজিদের নামে জমির নামজারি খতিয়ান, খাজনা পরিশোধসহ সব ধরনের কাগজপত্র হালনাগাদ করা আছে।
জানা গেছে, ঢাকার তৎকালীন জেলা প্রশাসক কামালউদ্দিনের সভাপতিত্বে ২০০৮ সালের ১৫ মে অনুষ্ঠিত ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভার কার্যবিবরণীতে উল্লেখ রয়েছে হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকার ২২৩.৪৮৯৯ একর জমিতে পাঁচটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এগুলো হলো তেজগাঁও শিল্প এলাকার আহসানুল উলুম হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানা, শাহজাদী খানম জামে মসজিদ, উত্তর বেগুনবাড়ী বায়তুন নুর জামে মসজিদ, মগবাজার আরএস ১৫০৭, ১৫০৮ ও ১৫০৯ দাগে একটি মসজিদ ও মাদরাসা, একই মৌজার ১৫৩৫ দাগে অবস্থিত জাবাল-ই নুর জামে মসজিদ ও মাদরাসা কমপ্লেক্স।
২০০৮ সালে হাতিরঝিল প্রকল্প বাস্তবায়নের স্বার্থে জমি অধিগ্রহণ এবং ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো সরিয়ে নেয়ার জন্য এগুলোর প্রতিনিধিদের সাথে দফায় দফায় বৈঠক করেন রাজউক ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এর মধ্যে ২০০৮ সালের ১৫ মে অনুষ্ঠিত ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে জমি বরাদ্দ দিয়ে প্রয়োজনে দোতলা, তিন তলা করে পুনর্নির্মাণের কথা বলা হয়। সে সিদ্ধান্ত অনুসারে অন্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো পুনর্নির্মাণ করে হস্তান্তর করা হলেও জাবাল-ই নুর জামে মসজিদের ক্ষেত্রে কোনো অগ্রগতি নেই। মসজিদ কমিটির সভাপতি ও মোতাওয়াল্লি এ এস এম আব্দুল হাকিম জানান, আমরা দিনের পর দিন রাজউকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে গিয়েছি কিন্তু সমস্যাটির সমাধানের কার্যকর কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি।
বিষয়টি নিয়ে রাজউকের হাতিরঝিল প্রকল্পের পরিচালক মো: জামাল আক্তারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ২০০৮ সালে সেনাবাহিনী সব অবৈধ স্থাপনা ভেঙে দেয়। তখন জাবাল-ই নুর মসজিদের কেউ তাদের বৈধ কাগজপত্র নিয়ে রাজউক অথবা সেনাবাহিনীর কাছে গিয়েছে বলে আমরা জানি না। হঠাৎ করে মসজিদ কমিটি মসজিদটি তৈরি করে দেয়ার জন্য বলছেন কেন আমরা বলতে পারব না। তবে জামাল আক্তার বলেন, বিষয়টি মসজিদ বলে আমরা রাজউকের উচ্চপর্যায়ে অবহিত করেছি। তারাই সিদ্ধান্ত দেবেন এ বিষয়ে।

এই সংবাদটি 1,048 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com