বৃহস্পতিবার, ০১ মার্চ ২০১৮ ০৮:০৩ ঘণ্টা

ইসলাম গ্রহণ করলেন মুম্বাইয়ের অভিনেত্রী দীপিকা

Share Button

ইসলাম গ্রহণ করলেন মুম্বাইয়ের অভিনেত্রী দীপিকা

ডেস্ক রিপোর্ট: ভারতের মুম্বাইয়ের জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী দীপিকা কাকার সম্প্রতি তার দীর্ঘদিনের প্রেমিক ও সহ-অভিনেতা শোয়েব ইব্রাহিমকে বিয়ে করতে ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়েছেন।

ধর্মান্তরের পর তিনি নিজের নাম পরিবর্তন করে ফাইজা ইব্রাহিম রেখেছেন। শোয়েব ইব্রাহিমের ধর্ম অনুযায়ী ইসলামিক রীতি অনুযায়ী তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসাবে ভারতে বহু ধর্মীয় সম্প্রদায়ের লোকেরা একই ছাদের নিচে বাস করছেন এবং প্রতি বছর দেশটিতে অনেক আন্তঃসম্পর্কের বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এসব দম্পতিদের অধিকাংশই ধর্মের পরিবর্তন না করেই তাদের নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে দেখা যায়।

তবে, বলিউডের এই অভিনেত্রী দীপিকা তার স্বামী শোয়েবের ধর্ম ইসলামকে নিজের ধর্ম হিসেবে বেছে নিয়েছেন।

শোয়েবের শৈশবের স্মৃতিবিজরিত ভোপালের বাড়িতে তাদের বিবাহের আয়োজন করা হয়েছিল। এতে মেহেদী অনুষ্ঠানের পাশাপাশি নিক্কাহের অনুষ্ঠান এবং একটি ছোট অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানেরও আয়োজন ছিল।

বিবাহের আমন্ত্রণ কার্ড অনুযায়ী, বিয়ে করার আগে দিপিকা তার নাম পরিবর্তন করে রাখেন ফায়জা।

 

অত্যন্ত সাদামাটা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে গত ২২ ফেব্রুয়ারি ভোপালে এই বিবাহ সম্পন্ন হলেও গতকাল মঙ্গলবার মুম্বাইয়ে তাদের গ্র্যান্ড অভ্যর্থনা দেয়া হয়।

এটা শোয়েবের প্রথম এবং দীপিকার দ্বিতীয় বিবাহ। দীপিকা এর আগে একজন পাইলটকে বিয়ে করেছিলেন কিন্তু তাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে যায়। তারপর এই অভিনেত্রী তার সহ-অভিনেতা শোয়েবের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।

 

এর আগে হেমা মালিনী এবং দিব্বা ভারতী সহ অন্যান্য অনেক অভিনেত্রীই তাদের মুসলিম সহ-অভিনেতাকে বিয়ে করার জন্য ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়েছেন।

সূত্র: বিজনেজ রেকর্ডার

এই সংবাদটি 2,920 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন