শুক্রবার, ০২ মার্চ ২০১৮ ০৩:০৩ ঘণ্টা

চুনারুঘাটে সুন্নি নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

Share Button

চুনারুঘাটে সুন্নি নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ডেস্ক রিপোর্ট:চুনারুঘাটে দুর্বৃত্তদের হামলায় সুন্নি জামাত চুনারুঘাট উপজেলা শাখার সভাপতি ও ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলহাজ আবুল হোসেন ওরফে আকল মিয়া (৬০) নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ভোরে মসজিদ থেকে নামাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে সন্ত্রাসীরা তার ওপর আক্রমণ চালায় এবং এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এতে তিনি মারাত্মক আহত হন। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সিলেট ওসমানী  মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। আকল মিয়ার মৃত্যুতে উপজেলার সুন্নি জামাত ও তাবলীগ জামাতের সমর্থকরা পৃথক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছেন। বিক্ষোভকারীরা দ্রুত খুনিদের আটক করার দাবি জানিয়েছেন।

চুনারুঘাট পৌর শহরে অতিরিক্ত পুলিশ, র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, প্রতিদিনের মতো সুন্নি জামাতের এই নেতা পৌর শহরের একটি মসজিদে নামাজ পড়তে যান। নামাজ শেষ করে বাসায় ফেরার পথে একদল অস্ত্রধারী তার গতিরোধ করে এবং এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এতে তিনি মারাত্মক আহত হন। তার শোর চিৎকারে অন্য মুসল্লিরা এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সভাপতি আকল মিয়ার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে শত শত লোক চুনারুঘাট পৌর শহরে জমা হতে থাকেন। সকাল ১০টায় সুন্নি জামাতের অনুসারীরা প্রথমে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি পৌর শহর প্রদক্ষিণ শেষে মধ্য বাজারে এসে পথসভায় মিলিত হয়। এ সভায় সুন্নি নেতার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়। এরপর তাবলীগ জামাত পৌর শহরে আরো একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আকল মিয়া হত্যার বিচার দাবি করেন। চুনারুঘাটে যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। কী কারণে ওই হত্যা এ বিষয়ে পুলিশ বা স্থানীয় সূত্রগুলো কিছুই জানাতে পারেনি। তবে জমি কেনাবেচা, গ্রাম্য বিচারে উনার কোনো প্রতিপক্ষ সৃষ্টি হয়েছিলো কিনা বা ধর্মীয় কোনো কারণ আছে কিনা- এ  তিনটি বিষয়কে সামনে এনে তদন্তকাজ পরিচালনা করছে পুলিশ।

এই সংবাদটি 1,181 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com