শুক্রবার, ০২ মার্চ ২০১৮ ১২:০৩ ঘণ্টা

যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমবিদ্বেষী আইন প্রণয়নের চেষ্টা: উদ্বেগ মানবাধিকার গোষ্ঠীর

Share Button

যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমবিদ্বেষী আইন প্রণয়নের চেষ্টা: উদ্বেগ মানবাধিকার গোষ্ঠীর

ডেস্ক রিপোর্ট:  যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে ২০১০ সাল থেকে ৪৩ অঙ্গরাজ্যে মুসলিমবিদ্বেষী ২০১টি বিল উত্থাপন করা হয়েছে। এতে মুসলিমবিদ্বেষী গ্রুপগুলো সক্রিয়া ভূমিকা রাখছে। সর্বশেষ আইদাহো অঙ্গরাজ্যে দফায় দফায় মুসলিমবিদ্বেষী আইন প্রণয়ণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশটির বিভিন্ন মানবাধিকার গ্রুপ।

ওয়াশিংটন ডিসিভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা আমেরিকা ইসলাম সম্পর্কিত পরিষদ (সিএআইআর) সম্প্রতি রাজ্যের প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া একটি বিলের বিরুদ্ধে ভোট দিতে আইদাহো সিনেটের কাছে আহ্বান জানিয়েছে। খবর আলজাজিরা ও আইদাহো স্টেটসম্যান।

বিদেশি আইন বাস্তবায়ন নিষিদ্ধ করতে ওই বিল পাস হতে যাচ্ছে। বিদেশি আইন বলতে আইদাহোর গভর্নর বুচ ওটার বলেন, আদালত আমাদের নিজস্ব আইন কার্যকর করবে। অন্য কোনো দেশের আইন আমাদের দেশে কার্যকর বন্ধ হতে যাচ্ছে। এর অর্থ দাঁড়াচ্ছে, আইদাহোতে শরিয়াহ বা ইসলামিক আইন নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে।

রাজ্যটির প্রতিনিধি পরিষদের রিপাবলিকান সদস্য এরিক রেডম্যান বলেন, বিভিন্ন মামলায় শরিয়াহ নামে পরিচিত বিদেশি আইনি মতবাদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে আমেরিকান আদালতকে। আমি এ বিষয়ে নিশ্চুপ থাকতে পারি না।

সিএআইআর বলেছে, এইচবি-৪১৯ নামে এ আইন মুসলিমদের লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে পাস হতে যাচ্ছে। এই অসাংবিধানিক বিল ইসলামিক আইন বা শরিয়াহকে নিষিদ্ধ করে আমেরিকায় মুসলমানদের অশুভ হিসেবে হাজির করতে চাচ্ছে।

আইদাহোর প্রতিনিধি পরিষদে যখন এইচবি-৪১৯ আইনটি পাস হয়েছে, তখন মন্টানা, ওরেগন ও উইসকনসিনসহ যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যেও তা নিয়ে ভাবা হচ্ছে। এসব রাজ্যও এ আইনটি পাসের কথা ভাবছে।

আইদাহো অঙ্গরাজ্যের সিনেটের স্টেট অ্যাফেয়ার্স কমিটির চেয়ারম্যান জেফ সি সিড্ডোওয়েকে দেয়া একটি খোলা চিঠিতে সিএআইআরের সরকারবিষয়ক পরিচালক রবার্ট ম্যাকাও বলেন, এইবি-৪১৯ বিলটি আমাদের জাতীয় মূল্যবোধের বিপরীত। এর মাধ্যমে একটি ধর্মীয় গোষ্ঠী কিংবা সম্প্রদায়কে সুনির্দিষ্টভাবে হেয় করা হবে।

তিনি বলেন, এর মাধ্যমে মুসলিমবিদ্বেষী মনোভাব ঢাকা যাবে না। কোনো ধর্মকে সুনির্দিষ্টভাবে আঘাত হানা যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের লঙ্ঘন। কারণ সংবিধানে বলা হয়েছে- সরকারকে অবশ্যই ধর্মনিরপেক্ষ হতে হবে এবং সব ধর্মের লোকদের সঙ্গে সমান আচরণ করতে হবে।

প্রতিনিধি পরিষদে বিলটি উপস্থাপন করেন এরিক রেডম্যান। গেল দুই বছরে তিনি এ রকম দুইটি আইন পাসের প্রস্তাব করেন।

আলবামা ভিত্তিক ধর্ম অবমাননাবিষয়ক পর্যবেক্ষক সংস্থা সাউদার্ন পোভার্টি ল’ সেন্টার (এসপিএলসি) জানায়, ২০১০ সাল থেকে ৪৩টি অঙ্গরাজ্যে ২০১টি শরীয়াহ বিরোধী বিল উত্থাপন করা হয়েছে। এক্ষেত্রে মুসলিম বিদ্বেষী গ্রুপগুলো সক্রিয়া ভূমিকা রেখেছে। ইসলামিক আইনে যে হুমকিগুলো নেই, সেগুলোকেও ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে প্রচার করা হচ্ছে। শরীয়াহ নিয়ে মানুষকে সন্ত্রস্ত করে তোলা হচ্ছে।

চলতি মাসের শুরুতে রেডম্যান বলেন, এ বিলটি ঠিক শরীয়াহ সম্পর্কিত না। যে কোনো আন্তঃদেশীয়, জনবিরোধী ও দুর্বল বিদেশি আইন এতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেগুলো নিষিদ্ধ করা হবে। তিনি বলেন, আমাদের এখানে ধর্মীয় স্বাধীনতা আছে। তাই বলে তাদের শরীয়াহ আমাদের সাংবিধানিক আইনকে অতিক্রম করে যেতে পারে না।

এই সংবাদটি 1,621 বার পড়া হয়েছে