শুক্রবার, ০২ মার্চ ২০১৮ ০২:০৩ ঘণ্টা

ভাষা কমিশন ও বাংলা প্রচলন আইন কেন অপরিহার্য?

Share Button

ভাষা কমিশন ও বাংলা প্রচলন আইন কেন অপরিহার্য?

 

ভাষার দুর্গতি নিয়ে সবিস্তার দুঃখ করেন, পত্রিকায় ভাষাদূষণ নিয়ে লেখালেখি করে (ইদানিং যদিও কমেছে) জনগণের মনোযোগকে বেহুদা ভিন্নদিকে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেন। তারপর একুশে ফেব্রুয়ারি তারিখে শহীদমিনারে বহু লক্ষ মন ফুলের গাদার নিচে চাপা পড়ে যায় বাঙালি মনের বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা না করতে পারাজনিত লোক দেখানো যত দুঃখ, ফাঁপা ব্যর্থতার যত হা-হুতাশ, মাছের মায়ের যত পুত্রশোক।

একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি পাওয়ার আনন্দে বাঙালি ভুলেই গেছে যে আন্দোলনটি ছিল মূলত রাষ্ট্রভাষার জন্যে। ‘মাতৃভাষা দিবস’ নামটি যথার্থ নয়। সঠিক নাম হওয়া উচিত ‘রাষ্ট্রভাষা দিবস’। মাতৃভাষা হচ্ছে বাতাসের অক্সিজেন বা আকাশের রোদের মতো। মানুষের এই সব স্বাভাবিক অধিকার উপভোগে কোনো রাষ্ট্র কখনও বাধা দিয়েছে বলে শোনা যায়নি। মাতৃভাষার অধিকার হয় না, রাষ্ট্রভাষার অধিকার হয়। কোনো জনগোষ্ঠীকে কখনও মাতৃভাষার দাবি করতে হয়নি, কিন্তু রাষ্ট্রভাষার দাবি পৃথিবীর অনেক জনগোষ্ঠীই করেছে। ‘ওরা আমার মুখের ভাষা কাইড়া নিতে চায়!’ কথাটায় যতটা আবেগ আছে, ততটা সত্য নেই। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী আমাদের বাংলা বলার অধিকার কেড়ে নিতে চায়নি। তারা বাংলার রাষ্ট্রভাষা হবার অধিকার কেড়ে নিতে চেয়েছিল। ‘একুশে ফেব্রুয়ারি’ মাতৃভাষা নয়, রাষ্ট্রভাষার অধিকার আদায়ের আন্দোলনের প্রতীক। একুশে ফেব্রুয়ারি তারিখটিকে ‘মাতৃভাষা দিবস’ দাবি করা বাঙালির আবেগতাড়িত এবং ভাষাবিষয়ক অজ্ঞানতাজনিত ভুল সিদ্ধান্তের অন্যতম উদাহরণ এবং এই সিদ্ধান্তের কারণেও রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলার প্রতিষ্ঠা পিছিয়ে যাবার আশঙ্কা রয়েছে।

অস্বীকার করার উপায় নেই, গত দুই দশকে প্রাতিষ্ঠানিক স্তরে বাংলা ভাষার ব্যবহার বেড়েছে। বহু পণ্যের ব্যবহারবিধি বাংলায় দেওয়া হয়। আমি নিজে লক্ষ্য করেছি, আমলারা বাংলাতেই তাদের নথি পড়েন এবং বিভিন্ন আদেশ দিয়ে থাকেন। নিম্ন আদালতে বাংলায় রায় দেওয়া হয়। শাসনবিভাগ, বিচারবিভাগ ও ব্যবসায় জগতে ব্যবহৃত বাংলা জনগণের বোধগম্য কিনা সেই প্রশ্ন না তুলেও বলা যায় যে বাংলা প্রচলনের ক্ষেত্রে এগুলো গুরুত্বপূর্ণ অর্জন। কিন্তু তবুও  সরকার ও জনগণের পছন্দের ভাষা যে বাংলা নয়, তা বিভিন্ন বেসরকারি ও সরকারি প্রতিষ্ঠানের নামকরণ প্রবণতাতেই প্রকাশ পাচ্ছে। একটি বিভাগীয় ক্রিকেট দলের নামও বাংলায় রাখা হয়নি। সরকারি প্রতিষ্ঠানের নাম- টেলিটক, বিজিবি, এনসিটিবি।

উচ্চ আদালত বাংলায় রায় দেয় না। দেয় না ঠিক নয়, দিতে অক্ষম, অনিচ্ছুক। উচ্চ আদালতের যে কোনো রায়ের সিংহভাগ জুড়ে থাকে পূর্বের বহু রায়ের কপি-পেস্ট। বিচারকদের অজুহাত- বেশির ভাগ আইন বাংলায় লেখা নেই। সুতরাং বাংলা রায় দিতে গিয়ে সহজ-স্বাভাবিক কপি-পেস্ট পদ্ধতি প্রয়োগ করা যায় না। গত পাঁচ দশকে বিচারকেরা একাধিকবার তাঁদের সম্মানী বহুগুণ বৃদ্ধি করেছেন।  আইনগুলোকে বাংলায় অনুবাদ করার উদ্যোগ কেন তাঁরা নেননি, সেই সঙ্গত প্রশ্ন করাই যায়। যাই হোক, আইন অনুবাদের জন্যে একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া যেতেই পারে এবং বছর পাঁচেকের মধ্যে বহুল ব্যবহৃত আইনগুলো বাংলায় অনুবাদ করা হলে সেগুলোর ব্যবহার শুরু হতেও হয়তো দেরি হবে না। ব্যবহার করতে করতেই সেই সব অনুবাদের সংশোধন ও উন্নয়ন সাধন করা অসম্ভব নয়।

আপাতত কাজির গরু কাগজে আছে, গোয়ালে নেই। বাংলা ডি জুরো বা আইনত  বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা হলেও কার্যত বা ডি ফ্যাক্টো বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা নয়। প্রশ্ন হচ্ছে, কেন বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করতেই হবে? এটা কি নিছক কিছু বেকার লোকের আবেগের প্রশ্ন? যারা ভূতাবস্থা বজায় রাখতে চান তারা তাই মনে করেন এবং বাংলাকে কার্যত রাষ্ট্রভাষা করার বিপক্ষে তারা কমপক্ষে তিনটি যুক্তি তুলে ধরেন।

প্রথম যুক্তি, বাংলাভাষার আন্দোলন নিছকই স্বাধীনতার অর্জনের একটি পর্যায়। স্বাধীনতা যেহেতু অর্জিত হয়ে গেছে, সেহেতু রাষ্ট্রভাষা নিয়ে হৈচৈ করে লাভ কী?

দ্বিতীয় যুক্তি, চল্লিশ ও পঞ্চাশের দশকের পৃথিবীর আর আজকের পৃথিবী এক নয়। এখনকার পৃথিবীতে বাংলার তুলনায় ইংরেজির গুরুত্ব অনেক বেশি। সুতরাং ইংরেজির দিকেই আমাদের ঝুঁকতে হবে।

তৃতীয় যুক্তি, ভাষা আন্দোলন ছিল উর্দুর বিরুদ্ধে। উর্দুর রাষ্ট্রভাষা হবার আশঙ্কা যেহেতু নেই, সেহেতু রাষ্ট্রভাষার প্রশ্ন তোলারও কোন প্রয়োজন নেই।

স্বাধীনতা লাভের প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বাংলাদেশের বাঙালিরা রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন করেনি। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের মূল প্রেরণা ছিল অর্থনৈতিক। উর্দু একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হলে বাংলাভাষীরা অর্থনৈতিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়তো। রাষ্ট্র গঠন, রাষ্ট্রভাষার আন্দোলন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা… এই সব কিছু আমরা কেন করেছি? করেছি একটা মাত্র কারণে- ‘আমার সন্তান যাতে থাকে দুধেভাতে!’

এই যে দুধভাত, যা কিনা উন্নয়নের রূপক, সেই উন্নয়ন শতভাগ জ্ঞাননির্ভর। যারা ঊনবিংশ শতকে জ্ঞানচর্চা করেছেন, আমরা আজ পণ্যের জন্যে, সেবার জন্যে তাদের দিকে তাকিয়ে আছি। আমাদের প্রায় সমস্ত জ্ঞান পাশ্চাত্য থেকে আসছে। আমরা নিজেরা কোনো জ্ঞানই সৃষ্টি করতে পারিনি সম্প্রতি। প্রযুক্তি আমদানি করা যায়, যেমনটা করছে দুবাই কিংবা সৌদি আরব, কিন্তু দীর্ঘ চর্চার মাধ্যমে জ্ঞান নিজেকেই অর্জন করতে হয়। জ্ঞানচর্চার উপজাত হিসেবে আমরা পাই টেকসই প্রযুক্তি। আমরা যদি আজ জ্ঞানচর্চা না করি, তবে আগামী শতাব্দীতে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মও একইভাবে জ্ঞানের জন্যে পরমুখাপেক্ষী হয়ে থাকবে। যার জ্ঞান নেই, সে কামলা দেবে আর যার জ্ঞান আছে, সে কামলা খাটাবে।

ভাষা বা জ্ঞানগত উন্নয়নের সঙ্গে ভৌত উন্নয়নের তফাৎ আছে। বিদেশি কোনো কোম্পানিকে দিয়ে রাস্তাঘাট, ভবন বা নগরের উন্নয়ন করিয়ে নেয়া যায়। কিন্তু ভাষা বা জ্ঞানগত উন্নয়ন সাধন করতে হলে কোনো জনগোষ্ঠীর কয়েক দশকের নিরলস প্রস্তুতি ও বিনিয়োগ প্রয়োজন। যে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে সরকারি বিনিয়োগের পরিমাণ শূন্যের কাছাকাছি, সে দেশে জ্ঞানগত উন্নয়নের আকাশকুসুম স্বপ্ন না দেখাই শ্রেয়।

স্মরণ রাখতে হবে যে ব্যক্তি এবং সময় ভাষা ও জ্ঞানগত উন্নয়নের অপরিহার্য দুটি নিয়ামক। অর্থের ব্যবস্থা হয়তো এক সময় করা যায়, কিন্তু কাজ করার মতো মানুষ মিলে না। যেমন ধরুন, সরকার সম্প্রতি বাংলাভাষার উন্নয়নের জন্যে প্রায় ১৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এ অর্থ ব্যয় করার উদ্দেশে যে প্রকল্পগুলো বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল হাতে নিয়েছে সেগুলো সম্পাদন করার উপযুক্ত ভাষাবিজ্ঞানী বাংলাদেশে নেই।

ভাষা নিয়ে উল্লেখযোগ্য কোনো গবেষণাই বাংলাদেশে কখনও হয়নি। যে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে ভাষা-গবেষক সৃষ্টি হবার কথা ছিল, যেমন বাংলা একাডেমি, আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাবিজ্ঞান বিভাগ এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট, দুর্ভাগ্যজনক হলেও একথা সত্য যে এই প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কর্তব্য পালনে লজ্জাজনকভাবে ব্যর্থ হয়েছে।

এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের কী করণীয় হওয়া উচিত, বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকদের সে ব্যাপারে কোনো ধারণাই নেই। সুতরাং যার যা কাজ নয়, তাই সে বাগিয়ে নিচ্ছে ছলে বলে, কৌশলে এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যেমনটা হয়, সরকার এবং এর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা যথেষ্ট আন্তরিক হওয়া সত্ত্বেও উপরোক্ত অর্থ হয় অব্যবহৃত থাকছে, অথবা (ছাগল দিয়ে হালচাষ করাতে গিয়ে) অপব্যয়িত হচ্ছে।

ইংরেজিই আমাদের সময়ে জ্ঞানচর্চার অন্যতম মাধ্যম। তাই যদি হয় তবে ইংরেজি ভাষাকে অবলম্বন করে বাংলাদেশে জ্ঞানচর্চা করা যাবে না কেন? আর্থিক সঙ্গতি নেই বলে? এটা কি নিছকই গরীবের ঘোড়ারোগ। না, গরীবও পরিশ্রম করে পয়সা জমিয়ে বা ধারদেনা করে ঘোড়া কিনে ফেলতে পারে। আসলে প্রাকৃতিক কারণেই গড় বাঙালি কখনই ইংরেজি শিখতে পারবে না। কী রকম?

চমস্কির দাবি, মানুষের যে কোনো ভাষা অর্জন করার জন্মগত ক্ষমতা আছে। মানবশিশু ‘বিশ্বব্যাকরণ’ নামে একটি ভাষা অঙ্গ বা ডিভাইস নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। কিন্তু সেই ডিভাইস ব্যবহার করার একটা অপরিহার্য শর্ত হচ্ছে, একটা বিশেষ বয়সে (ধরা যাক সাত বছর বয়স পর্যন্ত) বিশেষ ভাষার ইনপুট দিয়ে এই ডিভাইস নিয়মিত অ্যাক্টিভেইট করতে হয়। বাঙালি শিশুর শতকরা সাড়ে নিরানব্বই ভাগ ভাষা অর্জনের বয়সে ইংরেজি ইনপুট পায় না। সুতরাং ইংরেজিতে তাদের স্বাভাবিক দখল না থাকাটাই স্বাভাবিক।

ঠিক এ কারণেই ইউরোপের জনগণকে ল্যাটিনভাষী করে তোলা যায়নি। বাংলাদেশের মানুষকেও ইংরেজিভাষী করে তোলা যাবে না। লাখে একজন হয়তো ইংরেজি ভাষা সাবলীলভাবে ব্যবহার করতে সক্ষম হবে। ইওরোপেও খুব কম লোকই কৃত্রিম ল্যাটিন ভাষা শিখেছিল।

বাংলাদেশের সর্বত্র যে ভাষাটির ইনপুট আছে সেটি হচ্ছে বাংলা। সুতরাং শিশুরা বাংলা ভাষাটাই ঠিকঠাক মতো শিখতে পারতো যদি শিখবার ব্যবস্থা থাকতো। তাতো আমরা পারছিই না, বরং জোর করে তাদের আমরা ইংরেজি শেখাচ্ছি। এর ফলে বর্তমান প্রজন্ম বাংলাও শিখছে না, ইংরেজিও শিখছে না। এর অব্যবহিত ফল হিসেবে দ্বিভাষী বা বাইলিঙ্গুয়াল না হয়ে বর্তমান প্রজন্মের প্রত্যেকে হয়ে উঠছে অর্ধভাষী বা সেমিলিঙ্গুয়াল।

না ঘরকা, না ঘাটকা। ভাষায় যার দখল নেই সে কীভাবে জ্ঞানচর্চায় সামিল হবে? সাংস্কৃতিক ও সামাজিক দিক থেকেও অর্ধভাষীরা একেক জন ‘জেরবাদী’ বা সুকুমার রায়ের ভাষার- ‘হাঁস ছিল সজারু, ব্যাকরণ মানি না। হয়ে গেল হাঁসজারু, কেমনে তা জানি না।’

এক্ষেত্রে হাঁসজারু প্রজন্ম তৈরি করছি আমরা নিজেরাই এবং সচেতনভাবে।

এখানে সংখ্যার একটা ব্যাপার রয়েছে। ইংরেজি যদি বাঙালির জ্ঞানচর্চার ভাষা হয় তবে যত লোক জ্ঞানচর্চায় সামিল হবে, তার চেয়ে  বহুগুণ বেশি লোক জ্ঞানচর্চায় সামিল হওয়ার কথা, বাংলা যদি জ্ঞানচর্চার ভাষা হয়। ধরা যাক, এক এক প্রজন্মে সত্যিকার জ্ঞানী ব্যক্তি মিলে লাখে এক জন। যত বেশি লোক জ্ঞানচর্চায় সামিল হবে, সত্যিকার দার্শনিক, বিজ্ঞানী সৃষ্টির সম্ভাবনা তত বেশি হবে। যত বেশি কয়লার খনি উদ্ঘাটন হবে, দুই একটি হীরকখণ্ড পাবার সম্ভাবনাও আনুপাতিক হারে তত বেশি বেড়ে যাবে। ঠিক এ কারণেই বাংলা বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়া এবং বাংলাদেশের উন্নয়ন অঙ্গাঙ্গি জড়িত।

ইংরেজি মাধ্যমে দেশের শতভাগ লোককে শিক্ষিত করার দুরাশা কখনই পূরণ হবার নয়। নীতি-নির্ধারকদের মস্তিষ্কের অন্তস্থলে অবস্থান করা এই ঘোড়ারোগ শতভাগ এবং টেকসই গণশিক্ষাকে ব্যাহত করবে। টেকসই গণশিক্ষা ব্যাহত হলে দেশের উন্নয়নও যে ব্যাহত হবে সে কথা বলা বাহুল্য। রাষ্ট্রভাষার সমস্যা সমাধান না করে ২০২৪ সালে উন্নত দেশের কাতারে সামিল হবার সরকারি ঘোষণা আকাশ-কুসুম স্বপ্ন ছাড়া আর কিছুই নয়। প্রায় শ খানেক বছর ধরে শতভাগ গণশিক্ষা নিশ্চিত করে পাশ্চাত্যের দেশগুলো উন্নত দেশে পরিণত হয়েছে। উন্নত দেশ মানেই রাষ্ট্রভাষায় জনগণের উন্নত শিক্ষা, উন্নত আচরণ, উন্নত জীবনবোধ। বাংলা কার্যত রাষ্ট্রভাষা হলেও বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের জনগণকে পাশ্চাত্যের পর্যায়ে নিয়ে যেতে আরও কয়েক দশক লেগে যাবে। বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করাতে যদি গড়িমসি করা হয়, তবে এক শতকেও এই লক্ষ্য অর্জিত হবে না।

আমরা যদি পরনির্ভরতা কমাতে জ্ঞানভিত্তিক টেকসই উন্নয়ন চাই, তবে বাংলাকেই শিক্ষা ও জ্ঞানচর্চার মাধ্যম করতে হবে। অতীতে গ্রিক, রোমান, ভারতীয়, ইংরেজ ও রুশরা যখন অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক উন্নতির শীর্ষে উঠতে যাচ্ছিল, তখন রাষ্ট্রভাষার প্রশ্নে তারা কী সিদ্ধান্ত নিয়েছিল? রাশিয়ায় দীর্ঘদিন রুশের তুলনায় ফরাসির গ্রহণযোগ্যতা বেশি ছিল। কিন্তু বিপ্লবের পর অপেক্ষাকৃত দুর্বল রুশকেই একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছিল। চীনা ভাষার অন্তত দশটি উপভাষা ছিল, এখনও আছে। কিন্তু বিপ্লবের পর থেকে ম্যান্ডারিনকেই একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা চলছে। এর কারণ কী? যে ভাষায় উন্নয়ন সবচেয়ে সাশ্রয়ী, সবচেয়ে টেকসই সেই ভাষাকেই উন্নয়নের মাধ্যম করে সেই সব জাতি যাদের জ্ঞান ও কাণ্ডজ্ঞান দুটোই আছে।

তদুপরি যখনই কোনো জাতি অন্যদের তুলনায় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে, সে জাতি নিজের রাষ্ট্রভাষাকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে চেষ্টা করেছে। ইতিহাসের বিভিন্ন পর্যায়ে গ্রিকেরা গ্রিক, রোমানরা ল্যাটিন, ভারতীয়রা সংস্কৃত, আরবরা আরবি এবং ইংরেজরা ইংরেজি ভাষাকে লিঙ্গুয়া ফ্রাঙ্কা করে তুলতে সমর্থ হয়েছেন। অস্ত্র দিয়ে দেশ জয় করা যায়, কিন্তু সে জয় দীর্ঘস্থায়ী হয় না। একমাত্র ভাষাগত বিজয় দীর্ঘস্থায়ী হয়।

আরব বা ফরাসি উপনিবেশ বহুদিন গত হয়েছে, কিন্তু সেখানকার জনগণ এখনও আরবি বা ফরাসি বলতে বাধ্য হচ্ছেন। ভাষা এমন একটি অস্ত্র যেটি যত বেশি লোকের দখলে থাকে, ততই তার ক্ষমতা বেড়ে যায়। আপনার ভাষা অন্য একজন বলছে মানেই আপনার কিছু না কিছু অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ফায়দা তাতে আছে। ইংরেজি ভাষা তথা টোফেল বা আই-ই-এল-টি-এস বিক্রি করে আরও বহু যুগ টু পাইস কামাবে ইংল্যান্ড বা আমেরিকা।

যখন থেকে নিজেদের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক গুরুত্ব উপলব্ধি করেছে, তখন থেকে চীনারা গ্রিক, রোমান ও ইংরেজ উপনিবেশকদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে সারা পৃথিবীতে চিনা ভাষা শিক্ষা দিতে উঠে পড়ে লেগেছেন। সর্বত্র কনফুসিয়াস ইনস্টিটিউট খোলা হচ্ছে। কোটি কোটি ইউয়ান বৃত্তি দিয়ে সারা পৃথিবীর তরুণদের চীন দেশে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে চিনা ভাষা শিখতে। আমরাওতো এক সময় চীনের মতো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারি। পারি বা না পারি, স্বপ্ন দেখতে, চেষ্টা করতে দোষ কী? বাস্তবতা হচ্ছে, আমরা বাংলাভাষা শিক্ষাকে নিরুৎসাহিত করছি।

বিদেশিদের পক্ষে বাংলাদেশে এসে (ধরা যাক, আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটে) বাংলা শেখার জন্যে প্রয়োজনীয় ভিসা বা অনাপত্তি সনদপত্র জোগাড় করা সহজ নয়। আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রায়ই তাদের হাতে আসে না বলে তারা  অনেক সময় পরীক্ষা না দিয়েই বাংলাদেশ ছাড়তে বাধ্য হয়। এই সব অহেতুক ঝামেলা এড়াতে বাংলা শিখতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে না এসে যায় পশ্চিমবঙ্গে, পাকিস্তানে, এমনকি সৌদি আরবে।

অনেকে এই কুযুক্তি দিতে পারেন যে আফ্রিকার যেসব দেশের রাষ্ট্রভাষা ফরাসি বা ইংরেজি, সেখানে কি উন্নয়ন হচ্ছে না? প্রথমত, উন্নয়ন টেকসই হচ্ছে কি হচ্ছে না, সেটা বোঝা যাবে আরও কয়েক দশক পর।

দ্বিতীয়ত, আফ্রিকার একাধিক দেশের এবং বাংলাদেশের ভাষা পরিস্থিতি এক নয়। আফ্রিকার দেশগুলো ইংরেজি বা ফরাসিকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে মেনে নিয়েছে অনেকটা বাধ্য হয়ে, কারণ সবার কাছে বোধগম্য, এমন কোনো ভাষা গোষ্ঠীবিভাজিত আফ্রিকার দেশগুলোতে নেই। এসব দেশে যারা ফরাসি বা ইংরেজি শিখেছে উন্নয়নের ননীটুকু তারাই খেয়ে নিচ্ছে। কেউ খাবে তো কেউ খাবে না, এটা কখনই টেকসই উন্নয়নের মডেল হতে পারে না। এর ফলে আফ্রিকার সমাজে অসন্তোষ সৃষ্টি হচ্ছে; অসন্তোষ থেকে অস্থিরতা, গৃহযুদ্ধ, সন্ত্রাস, বোকো হারামের জঙ্গি হাঙ্গামা।

আমরা উপরে দেখলাম, কোন বিশেষ ভাষাটি রাষ্ট্রভাষা হচ্ছে তার উপর বিশেষ রাষ্ট্রের, জাতির অর্থনৈতিক উন্নয়ন নির্ভর করে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবি জারি রাখার কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু  বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকেরা শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে বাংলার উপর আস্থা রাখতে পারছেন না। বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকেরা নিশ্চিত হয়েছেন যে বাংলাকে একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করা ঠিক হবে না। ‘কাগজে-কলমে’ এ দাবি করতে না পারলেও ‘কাজে-কর্মে’ বাংলাকে হটিয়ে ইংরেজিকে অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার ষড়যন্ত্র তাঁরা করে চলেছেন।

ইংরেজি ভাষায় বিসিএস, সরকারি বিদ্যালয়ে ইংলিশ ভার্সান চালু, উচ্চ আদালতে বাংলা ব্যবহারে গড়িমসি, সরকারি প্রতিষ্ঠান ও পণ্যের ইংরেজি নাম, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ৭ই মার্চ, ১লা বৈশাখকে যথাক্রমে ২১ ফেব্রুয়ারি, ৭ মার্চ ও ১ বৈশাখ বলে বাংলা ভাষা ব্যবহারে দ্বিধার অবকাশ সৃষ্টি করা সেই ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নেরই আলামত।

আম বাংলাভাষীও শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে বাংলার উপর আস্থা রাখতে পারছেন না। শিক্ষায় বাংলার ব্যবহার কমছে। বাড়ছে দুর্বল, অতি দুর্বল ইংরেজির ব্যবহার। ভোলার চর কুকরি-মুকরিতেও সম্ভবত খোলা হয়েছে তথাকথিত ‘ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল’। নামেই পরিচয়, ‘ইংলিশ মিডিয়াম’, সুতরাং ‘মিডিয়াম’ মানের ইংরেজিই সেখানে পড়ানো হয়। গত দুই শতকে প্রতিষ্ঠিত প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মাধ্যম বাংলা নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের নামও বাংলা রাখা হয় না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, যে শিক্ষায়তন ভাষা আন্দোলনের সূতিকাগার, সেখানেই অনেক বিভাগে, ইনস্টিটিউটে ইংরেজিতে পড়ানো, পরীক্ষায় ইংরেজিতে উত্তর দেয়া অনেকটাই বাধ্যতামূলক।

শিক্ষার ইতিহাসে এই ঘটনা অবশ্য নতুন নয়। এটা মূলত ‘মধ্যযুগীয়’ বদভ্যাস। মধ্যযুগের দ্বিতীয় পর্বে (১২০০-১৪০০) ইউরোপে স্থাপিত হওয়া উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা ছিল ল্যাটিন। ল্যাটিন ৫০০ সাল থেকেই মৃত ভাষা। এই ভাষাটিকেই জীবিত ভাষা হিসেবে চালানো হচ্ছিল, অথচ তখন জনগণের ভাষা ইংরেজি, ফরাসি বা জার্মানকে শিক্ষা ও জ্ঞানচর্চার ভাষা হিসেবে ব্যবহার করার ঘোর বিরোধী ছিলেন মধ্যযুগের নীতিনির্ধারকেরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ে এই সব ভাষা ব্যবহার করা ছিল শাস্তিযোগ্য অপরাধ। বাংলাদেশেও অনেক স্কুলে নাকি বাংলা বললে শাস্তি পেতে হয়। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এই প্রথা অনুসরণ করছে না স্রেফ চক্ষুলজ্জার খাতিরে।

মধ্যযুগের শিক্ষার ইতিহাসের আলোকে দাবি করা যেতে পারে, যে ভাষা সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের ব্যবহার্য নয়, সেই ভাষাকে খুব বেশি দিন শিক্ষার মাধ্যম করা যায় না শুধু নয়, জোর করে শিক্ষার মাধ্যম করতে গেলে সেই ভাষাটির মৃত্যু হয়। রেনেসাঁ শুরু হবার অব্যবহিত পরেই কৃত্রিমভাগে পুনরুজ্জীবিত ল্যাটিনের পুনর্মৃত্যু হয়ে গিয়েছিল, শিক্ষার মাধ্যম হয়ে উঠেছিল জনগণের মুখের ভাষা ফরাসি, জার্মান, স্প্যানিশ কিংবা ইংরেজি। বাংলাদেশেও এর অন্যথা হবার কোনো কারণ নেই। জনগণের সংখ্যার বিচারে ইংরেজিকে কখনই বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা করা যাবে না। সেই ক্ষমতা অর্থনৈতিকভাবে আমাদের চাইতে বহুগুণ শক্তিশালী চীন কিংবা জাপানেরও নেই। বাংলা আগে পরে বাংলাদেশের সর্বত্রগামী রাষ্ট্রভাষা হবেই হবে, ঠিক যেভাবে পুনর্জাগরণের যুগে ফ্রান্সে ল্যাটিনকে হটিয়ে ফরাসি কিংবা ইংল্যান্ডে ফরাসিকে হটিয়ে ইংরেজি রাষ্ট্রভাষা হয়ে উঠেছিল।

 

 

বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকেরা অজ্ঞানতার বশবর্তী হয়ে বাংলা ভাষার প্রতিষ্ঠা অর্জনের এই স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে পারেন, কিন্তু একেবারে বন্ধ করতে পারবেন না। তবে নীতিনির্ধারকদের অবিমৃশ্যকারিতার কারণে অর্থ ও সময়ের অপচয় হবে। অপচয় হবে একাধিক প্রজন্মের। আরও কয়েক প্রজন্ম আমরা আরব দেশ বা মালয়েশিয়ায় গিয়ে কামলা দেবো। নীতিনির্ধারকদের ভাষাপরিকল্পনার জ্ঞান ও কাণ্ডজ্ঞানের অভাব যে জাতির প্রভূত ক্ষতিসাধন করতে পারে তা বাঙালির চেয়ে ভালো আর কে জানে? মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ বা পাকিস্তানের মাথামোটা পাঞ্জাবীদের যদি কিছুমাত্র ভাষাপরিকল্পনার জ্ঞান ও কাণ্ডজ্ঞান থাকতো তবে তো ভাষা আন্দোলনই হয় না, একাত্তরে প্রাণ হারায় না ত্রিশ লক্ষ শহীদ।

ইংলিশ মিডিয়ামের রোগটা একাধারে বংশগত এবং সংক্রামক। আজ থেকে মাত্র একশ বছর আগের একটি ছবি কল্পনা করুন। সার্কিট হাউজের বারান্দায় আরাম কেদারায় বসে আছে এক সাহেব, আর আমাদের পিতামহ মেঝেতে বসে সাহেবের পা টিপছেন। সাহেব সোনা-বাঁধানো গড়গড়ার নলে সুখটান দিচ্ছে আর পান থেকে চুন খসলেই খিস্তি করে উঠছে, ‘ড্যাম নিগার’। আমাদের পিতামহ সাহেবের গালাগালিতে কান দিচ্ছেন না। নিচে বসে সাহেবের পা টিপতে টিপতে তিনি স্বপ্ন দেখছেন, সাহেবের আরাম কেদারায় বসে আছে তার ছেলে, পা টেপার জন্যে এসেছে নতুন এক খেদমতগার। খেদমতগারটি যদিও বাঙালি তবুও আসনগুণে ছেলে তাকেও ‘ড্যাম নিগার’ বলছে। পিতামহ তখন আর পা টিপছেন না, কারণ তিনি তো তখন কালা সাহেবের বাপ! বাঙালি মনের অবচেতনে এ স্বপ্ন পুরুষানুক্রমে সজীব আছে বলে এদেশে ইংলিশ মিডিয়ামের বাজার তৈরি হয়েই আছে। রোগটা সংক্রামক বলে আশেপাশের সবাই এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। তাছাড়া রোগই সংক্রামক হয়, স্বাস্থ্য নয়।

আপনারা নিশ্চয়ই মনে মনে বলছেন, রোগনির্ণয় হয়ে গেল, সমস্যাতো আমরা কমবেশি বুঝলাম, এখন সমাধান কী, চিকিৎসা কী? একমাত্র এবং আশু সমাধান একটি পূর্ণাঙ্গ, বিশদ ও বোধগম্য বাংলা ভাষা প্রচলন আইন প্রণয়ন।

সংবিধানে ‘প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রভাষা বাংলা’ কিংবা ১৯৮৭ সালের বাংলা প্রচলন অধ্যাদেশ কখনই একটি পূর্ণাঙ্গ আইনের বিকল্প হতে পারে না। আইন থাকলেই যে লোকে মানবে এমন কোনো কথা নেই, কিন্তু আইন থাকাটা না থাকার চেয়ে শ্রেয়তর এ কারণে যে আইন থাকলে আইন ভাঙার প্রশ্ন আসে, এবং আইন ভাঙার জন্য শাস্তি বিধানও সম্ভবপর হয়। সভ্যতার প্রথম সোপানই হচ্ছে আইন প্রণয়ন। শাস্তিবিধানের মাধ্যমে দুই প্রতিযোগী ভাষার মধ্যে দুর্বলতরটিকে সংরক্ষণ এমনকি অর্থনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করা যে সম্ভব তার প্রমাণও আছে। ফরাসি ভাষা আইন ১০১ প্রয়োগের মাধ্যমে কমনওয়েলথভুক্ত রাষ্ট্র কানাডার কুইবেক প্রদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের মাতৃভাষা ফরাসিকে তিন দশকের মধ্যে (১৯৭৪-২০০৪) রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা সম্ভবপর হয়েছে। ফরাসি ভাষা আইনের ধারাগুলোতে ‘ফরাসি’ কথাটার জায়গায় ‘বাংলা’ কথাটা বসিয়ে দিলেই একটি খসড়া বাংলা প্রচলন আইন প্রণয়ন করা অসম্ভব নয়।

ফরাসি ভাষা আইন ১০১ এর আদলে বাংলা প্রচলন আইনে একটি ভাষাকমিশন গঠনের ব্যবস্থা থাকবে এবং (অনেকটা নির্বাচন কমিশনের মতো) এই ভাষাকমিশন সরকারের অধীন হবে না, রাষ্ট্রপতির অধীন হবে। সরকার এবং রাষ্ট্রের পঞ্চরঙ্গ: বিচার, শাসন, দেশরক্ষা, শিক্ষা, ব্যবসায়ের ভাষিক আচরণ নিয়ন্ত্রণ করবে এই কমিশন। রাষ্ট্রপতি প্রতি পাঁচ বছরের জন্যে যোগ্য কোনো নাগরিককে ভাষাকমিশনের সভাপতি নির্বাচিত করবেন। দেশের বিভিন্ন জেলাশহরে বাংলা ভাষা কমিশনের অফিস থাকবে। ভাষা কমিশনের মুখ্য দায়িত্ব হবে সর্বস্তরে বাংলাভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করা। পাঠ্যবই ও আইনের অনুবাদ করা, প্রতিশব্দ তৈরি করা থেকে শুরু করে বাংলা প্রচলনে যাবতীয় প্রতিবন্ধকতা দূর করা হবে বাংলা ভাষা কমিশনের অন্যতম দায়িত্ব। প্রতি বছর একুশে ফেব্রুয়ারি তারিখে ভাষাকমিশনের অগ্রগতির প্রতিবেদন রাষ্ট্রপতির নিকট এবং জনসমক্ষে পেশ করতে হবে।

ফরাসি ভাষা আইন ১০১ এর আদলে বাংলা ভাষা আইনে আরও দুটি সংগঠন সৃষ্টির ব্যবস্থা থাকবে-

১. বাংলা প্রচলন (অধি/পরি) দপ্তর এবং ২. বাংলা প্রচলন উপদেষ্টা পরিষদ।

বাংলা প্রচলন আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করার দায়িত্বে থাকবে বাংলা প্রচলন দপ্তর। এই দপ্তর প্রতি বছর বাংলা প্রচলনের অগ্রগতি কিংবা বাংলা প্রচলন করতে গিয়ে উদ্ভুত কোনো সমস্যার ব্যাপারে কমিশনকে অবহিত করবে। পেশাদার, ডিগ্রিধারী এবং স্বনামধন্য ভাষাবিজ্ঞানীরা হবেন উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, যাতে করে বাংলা প্রচলনে যে কোনো সমস্যা সম্পর্কে তাঁরা ভাষা কমিশনের সভাপতিকে পরামর্শ দিতে পারেন।

বাংলায় টোফেল বা আইইলটিএসের আদলে পেশাদার ভাষাবিজ্ঞানীদের দিয়ে একাধিক পরীক্ষাপদ্ধতি প্রণয়ন করতে হবে। সেই পরীক্ষাপদ্ধতি যেন ভাষাজ্ঞানহীন আনাড়ি শিক্ষকদের হাতে তৈরি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিপরীক্ষার মুখস্তবিদ্যাভিত্তিক তোতাকাহিনি না হয়। শাসনবিভাগে এমন কোনো আমলা, বিচার বিভাগে এমন কোনো বিচারক কিংবা কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমন কোনো শিক্ষক নিয়োগ দেয়া যাবে না, যিনি ওই বাংলা পরীক্ষায় সন্তোষজনক ফল লাভ করবেন না। যারা ইতিমধ্যে নিয়োগ পেয়েছেন, তাদেরও পদোন্নতি নিশ্চিত করতে হলে ওই পরীক্ষা পাশ করতে হবে। নিয়োগ ও পদোন্নতির ক্ষেত্রে বাংলা ভাষাজ্ঞানের আবশ্যিকতাকে যদি প্রতিষ্ঠিত করা যায়, তবে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলা প্রতিষ্ঠিত হতে দেরি হবে না।

শিক্ষার মাধ্যম বাংলা নয় এমন শিক্ষায়তন (বিদ্যালয় বা বিশ্ববিদ্যালয়) অবশ্যই প্রতিষ্ঠিত করা যাবে, কিন্তু সেই শিক্ষায়তনে তারাই ভর্তি হতে পারবে যাদের পিতামাতা উভয়ের মাতৃভাষা বাংলা নয়। কুইবেকের ভাষা আইনে এই ধরনের একটি ধারা রয়েছে। পাঠযোগ্য এবং বোধগম্য বাংলায় ব্যবহারবিধি সরবরাহ না করে কোনো পণ্য বাজারে আনা যাবে না। কম্পিউটার প্রোগ্রাম যেমন উইন্ডোজ এবং মাইক্রোসফট ওয়ার্ড বাংলায় হতে বাধা কোথায়? ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম বাংলার রাখা না হলে কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড বাংলায় লেখা না হলে কিংবা ইংরেজি অক্ষরের তুলনায় বাংলা অক্ষর যথেষ্ট বড় না হলেও জরিমানার ব্যবস্থা থাকবে। সরকার, বিশ্ববিদ্যালয়, বিচারালয়… রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্ঠান জরিমানার আওতাভুক্ত হবে।

ভাষা আইনে পরিষ্কার বলা থাকবে, কোন ধারা ভঙ্গ করার জন্যে কী দণ্ড হবে। উদাহরণস্বরূপ, কোনো আমলা, বিচারক, শিক্ষকের ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃতভাবে বাংলা ভাষা ব্যবহার না করার প্রমাণ যদি পাওয়া যায়, তবে ধরা যাক, তাঁকে হাজার বিশেক টাকা জরিমানা করতে হবে (কুইবেকের ভাষা আইনে এটা ৫০০ ডলার)। একই ধরনের অপরাধের পুনরাবৃত্তি হলে জরিমানার পরিমাণ দ্বিগুণ বা তিনগুণ হবে। প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এই জরিমানার হার কয়েকগুণ বেশি হতে পারে।

বাংলা ভাষা প্রচলন আইনের মূল লক্ষ্য হবে বাংলাভাষার অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠা। কোনো ভাষার তিন ধরনের প্রতিষ্ঠার কথা ভাবা যেতে পারে- ১. সামাজিক প্রতিষ্ঠা, ২. রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠা এবং ৩. অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠা।

বাংলার সামাজিক প্রতিষ্ঠা হয়েছিল মধ্যযুগে, সুলতানী আমলে। রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠা হয়েছে বাংলাদেশ স্বাধীন হবার সঙ্গে সঙ্গে। বাকি আছে অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠা যেটি নিশ্চিত করার উপর নির্ভর করছে বাংলা ভাষার দীর্ঘজীবীতা এবং বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নতি। বাংলা ভাষা প্রচলন আইনের প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে যত বেশি দীর্ঘসূত্রিতা হবে, ততই পিছিয়ে যাবে সর্বস্থরে বাধ্যতামূলকভাবে বাংলাভাষার প্রয়োগ এবং এর ফলে ব্যাহত হবে বাংলাদেশে টেকসই অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন।

শিশির ভট্টাচার্য্যঅধ্যাপক, আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সুত্র-বিডি নিউজ

এই সংবাদটি 1,018 বার পড়া হয়েছে