মঙ্গলবার, ০৬ মার্চ ২০১৮ ০৭:০৩ ঘণ্টা

জাফর ইকবালের ওপর হামলা ঘটনায় মামলা

Share Button

জাফর ইকবালের ওপর হামলা ঘটনায় মামলা

সিলেট রিপোর্ট:  শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে উত্তাল ছিল শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ গোটা সিলেট।
সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। মামলা দায়েরের বিষয়টি রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন নিশ্চত করেছেন। হামলার ঘটনায় নগরীর কম্পিউটার দোকানের একজন মালিকসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। এর মধ্যে রয়েছে হামলাকারী ফয়জুরের মা-বাবা, মামা ও চাচা। দায়িত্বে অবহেলার কারণে দুই পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলেও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

ড. জাফর ইকবালের উপর হামলার ঘটনায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা তিন দফা দাবি জানিয়েছেন। দাবিগুলো হলো- সুষ্ঠু তদন্ত করে সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে হবে, জড়িতদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে হবে এবং ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

এদিকে, র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারোক্তিতে ফয়জুর জানিয়েছে, জাফর ইকবাল ইসলামের শত্র“, তাই তাকে হত্যা করার জন্য হামলা করেছি। উনি নিজেও নাস্তিক এবং অন্য সবাইকেও নাস্তিক বানানোর জন্য প্রচার করে বেড়াচ্ছেন। তার লেখা পড়ে মানুষ বিভ্রাান্তির মধ্যে পড়ছে। প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারীর মামা ও চাচাকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় তিন সদস্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। রোববার শাবি ভিসি প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করছেন।

হামলাকারী ফয়জুর রহমান ওরফে ফয়জুল ওরফে শফিকুরকে পুলিশের হেফাজতে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার বিকালে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে র‌্যাব। এরপর পুলিশ কড়া পাহারায় ফয়জুরকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার আবদুল ওয়াহাব।

এদিকে হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দাও প্রতিবাদ জানিয়েছে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। রোববার এক জরুরী সভায় কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্তগুলো হল: তদন্ত কমিটি গঠন, আজ সোমবার দুই ঘন্টার কর্মবিরতি, কালো ব্যাজ ধারণ, প্রতীকি অবস্থান কর্মসূচি, এবং ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা জোরদার করা। এছাড়াও এঘটনায় আওয়ামীপন্থী ও বিএনপিপন্থী শিক্ষক ফোরামের নিন্দা, শাবি প্রেসক্লাবের দিনব্যাপি কালো ব্যাজ ধারণ এবং মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে শাবি ছাত্রলীগ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট।

ঘটনায় মামলা দায়ের : প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। মামলা দায়েরের বিষয়টি রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন নিশ্চত করেছেন। রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন জানান, সিএসই বিভাগের সহকারি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম ও ইইই বিভাগের শিক্ষক রিতেশ^র তালুকদারের জবানবন্দির ভিত্তিতে মামলা এজহারভূক্ত করার জন্য থানায় পাঠানো হয়েছে। জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বলেন, মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে।

শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবি : ড. জাফর ইকবালের উপর হামলার ঘটনায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা তিন দফা দাবি জানান। দাবি সমূহ হলো: সুষ্ঠু তদন্ত করে সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে হবে, জড়িতদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে হবে এবং ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আরো বেশকয়েকটি দাবি পেশ করেছেন। দাবিগুলো হলো ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রবেশ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে এবং দ্রুততম সময়ে বিশ^বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর নির্মান করতে হবে।

যে কারনে হামলা : র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারোক্তিতে ফয়জুর জানায়, জাফর ইকবাল ইসলামের শত্রু, তাই তাকে হত্যা করার জন্য হামলা করেছি। উনি নিজেও নাস্তিক এবং অন্য সবাইকেও নাস্তিক বানানোর জন্য প্রচার করে বেড়াচ্ছেন। তার লেখা পড়ে মানুষ বিভ্রাান্তির মধ্যে পড়ছে। রোববার সকালে ফয়জুরের এই স্বীকারোক্তির কথা জানান র‌্যাব-৯ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আলী হায়দার আজাদ।

হামলাকারীর মা-বাবা, মামা চাচা আটক :
 শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর হামলায় জড়িত ফয়জুলের বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে। তাছাড়া হামলাকারীর মামা ও চাচাকেও আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। জাফর ইকবালের ওপর হামলার পর শনিবার রাত ১২টার দিকে হামলাকারী ফয়জুর রহমানের সিলেটের শেখপাড়ার বাসায় তল্লাাশি চালায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। সেখান থেকে তার মামা ফজলুর রহমানকে আটক করে তারা। এ সময় উদ্ধার করা হয় একটি ল্যাপটপ। জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুর রহমান তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। এদিকে রোববার ভোর ৪টার দিকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা থেকে হামলাকারী ফয়জুরের চাচা আবুল কাহারকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর হামলায় জড়িত ফয়জুলের বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে, রোববার রাতে নগরীর পনিটুলা এক আত্মীয়ের বাসা থেকে হামলাকারী ফয়জুলের বাবা হাফিজ আতিকুল ইসলাম ও মা মিনারা বেগমকে আটক করে পুলিশ। হামলাকারী ফয়জুল হাসান ছাড়াও এ নিয়ে ৫ জনকে আটক করা হয়েছে।

আটক অন্যরা হলেন, হামলাকারীর চাচা আবদুল কাহার লুলই, মামা ফজলুর রহমান, ফয়জুলের সাবেক কর্মস্থল নগরীর জল্লারপাড়ের রাজা ম্যানশনের কম্পিউটার দোকান মালিক মঈন উদ্দিন।

সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য গিয়াস উদ্দিন পুলিশের বরাত দিয়ে  বলেন, হামলাকারী ফয়জুলের বাবা-মাকে নগরীর মদিনা মার্কেট পনিটুলা এলাকা থেকে রাত সাড়ে ১০টায় অভিযান চালিয়ে আটক করে পুলিশ। তাদের ধরতে প্রথমে দিরাই উপজেলার জগদল উশনপুরে হামলাকারীর বোনের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়।  সেখানকার তথ্য মতে তাদের পনিটুলা থেকে আটক করা হয়।

সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুস শহিদ  বলেন, হামলাকারী ফয়জুলের বাবা-মা আটক হয়েছিন জানতে পেরেছেন। দিরাই উপজেলার জগদল ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে তারা আত্মসমর্পনের উদ্দেশ্যে সিলেটে আসেন। তার আগেই পুলিশের একটি টিম তাদের আটক করে।
সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম  আটকের সত্যতা স্বীকার করেছেন। তবে আটককৃতদের রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত আটককৃতদের থানায় আনা হয়নি।

মামলার তদন্তের দায়িত্ব তাঁর উপর ন্যাস্ত রয়েছে উল্লেখ করে ওসি বলেন, ‘মামলায় শুধু হামলাকারী ফয়জুর রহমানকে গ্রেফতার দেখিয়েছি। বাকিদের মধ্যে মঈনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব ধরে নিয়ে গেছে শুনেছেন এবং ফয়জুলের চাচা ও মামাকে আটক রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এ ঘটনার পর রাতেই ফয়জুলের মামা ফজলুর রহমানকে শেখপাড়া এলাকার বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। রোববার ভোররাতে র‌্যাবের অভিযানে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কালিয়ারকাপন নিজ বাড়ি থেকে আটক হন হামলাকারীর চাচা আবদুল কাহার লুলই।  এছাড়া নগরীর রাজা ম্যানশনে ফয়জুলের সাবেক কর্মস্থল কম্পিউটার দোকান মালিক মঈন উদ্দিনকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

তদন্ত কমিটি গঠন :
 শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় তিন সদস্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। রোববার শাবি ভিসি প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করছেন। তিন সদস্য কমিটির প্রধান হলেন সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. আবদুল গণি। তদন্ত কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- রসায়ন বিভাগের প্রফেসর ড. সাইফুল ইসলাম ও সিএসই বিভাগের প্রফেসর ড. শহীদুর রহমান।

ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে: শাবি ভিসি
প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার দাবি জানিয়ে শাবি ভিসি প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, এ ঘটনার বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার মর্মাহত। দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাই। তিনি বর্তমানে শঙ্কামুক্ত ও ঝুকিমুক্ত রয়েছেন। ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে তার চিকিৎসার জন্য পাচঁ সদস্যের একটি টিম গঠন করা হয়েছে। পুরো বিশ্ববিদ্যালয়কে সিসি ক্যামেরার আওতাধীন আনা হবে। শীঘ্রই ক্যাম্পাসের সীমানা প্রাচীরের কাজ শুরু করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী জঙ্গীবাদের সাথে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, বিভাগগুলোতে চিঠি দেওয়া হয়েছে কোন শিক্ষার্থী ১৫ দিনের বেশি অনুপস্থিত থাকলে, তার সর্ম্পকে খোজঁ-খবর নেওয়া হবে। এবং শিক্ষকরা এ ক্ষেত্রে সহয়তা করতে পারে।শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে উত্তাল ছিল শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ গোটা সিলেট।
সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। মামলা দায়েরের বিষয়টি রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন নিশ্চত করেছেন। হামলার ঘটনায় নগরীর কম্পিউটার দোকানের একজন মালিকসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। এর মধ্যে রয়েছে হামলাকারী ফয়জুরের মা-বাবা, মামা ও চাচা। দায়িত্বে অবহেলার কারণে দুই পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলেও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

ড. জাফর ইকবালের উপর হামলার ঘটনায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা তিন দফা দাবি জানিয়েছেন। দাবিগুলো হলো- সুষ্ঠু তদন্ত করে সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে হবে, জড়িতদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে হবে এবং ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

এদিকে, র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারোক্তিতে ফয়জুর জানিয়েছে, জাফর ইকবাল ইসলামের শত্র“, তাই তাকে হত্যা করার জন্য হামলা করেছি। উনি নিজেও নাস্তিক এবং অন্য সবাইকেও নাস্তিক বানানোর জন্য প্রচার করে বেড়াচ্ছেন। তার লেখা পড়ে মানুষ বিভ্রাান্তির মধ্যে পড়ছে। প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারীর মামা ও চাচাকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় তিন সদস্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। রোববার শাবি ভিসি প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করছেন।

হামলাকারী ফয়জুর রহমান ওরফে ফয়জুল ওরফে শফিকুরকে পুলিশের হেফাজতে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার বিকালে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে র‌্যাব। এরপর পুলিশ কড়া পাহারায় ফয়জুরকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার আবদুল ওয়াহাব।

এদিকে হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দাও প্রতিবাদ জানিয়েছে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। রোববার এক জরুরী সভায় কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্তগুলো হল: তদন্ত কমিটি গঠন, আজ সোমবার দুই ঘন্টার কর্মবিরতি, কালো ব্যাজ ধারণ, প্রতীকি অবস্থান কর্মসূচি, এবং ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা জোরদার করা। এছাড়াও এঘটনায় আওয়ামীপন্থী ও বিএনপিপন্থী শিক্ষক ফোরামের নিন্দা, শাবি প্রেসক্লাবের দিনব্যাপি কালো ব্যাজ ধারণ এবং মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে শাবি ছাত্রলীগ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট।

ঘটনায় মামলা দায়ের : প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। মামলা দায়েরের বিষয়টি রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন নিশ্চত করেছেন। রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন জানান, সিএসই বিভাগের সহকারি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম ও ইইই বিভাগের শিক্ষক রিতেশ^র তালুকদারের জবানবন্দির ভিত্তিতে মামলা এজহারভূক্ত করার জন্য থানায় পাঠানো হয়েছে। জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বলেন, মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে।

শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবি : ড. জাফর ইকবালের উপর হামলার ঘটনায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা তিন দফা দাবি জানান। দাবি সমূহ হলো: সুষ্ঠু তদন্ত করে সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে হবে, জড়িতদের দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে হবে এবং ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আরো বেশকয়েকটি দাবি পেশ করেছেন। দাবিগুলো হলো ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রবেশ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে এবং দ্রুততম সময়ে বিশ^বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর নির্মান করতে হবে।

যে কারনে হামলা : র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারোক্তিতে ফয়জুর জানায়, জাফর ইকবাল ইসলামের শত্রু, তাই তাকে হত্যা করার জন্য হামলা করেছি। উনি নিজেও নাস্তিক এবং অন্য সবাইকেও নাস্তিক বানানোর জন্য প্রচার করে বেড়াচ্ছেন। তার লেখা পড়ে মানুষ বিভ্রাান্তির মধ্যে পড়ছে। রোববার সকালে ফয়জুরের এই স্বীকারোক্তির কথা জানান র‌্যাব-৯ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আলী হায়দার আজাদ।

হামলাকারীর মা-বাবা, মামা চাচা আটক :
 শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর হামলায় জড়িত ফয়জুলের বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে। তাছাড়া হামলাকারীর মামা ও চাচাকেও আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। জাফর ইকবালের ওপর হামলার পর শনিবার রাত ১২টার দিকে হামলাকারী ফয়জুর রহমানের সিলেটের শেখপাড়ার বাসায় তল্লাাশি চালায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। সেখান থেকে তার মামা ফজলুর রহমানকে আটক করে তারা। এ সময় উদ্ধার করা হয় একটি ল্যাপটপ। জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুর রহমান তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। এদিকে রোববার ভোর ৪টার দিকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা থেকে হামলাকারী ফয়জুরের চাচা আবুল কাহারকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপর হামলায় জড়িত ফয়জুলের বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে, রোববার রাতে নগরীর পনিটুলা এক আত্মীয়ের বাসা থেকে হামলাকারী ফয়জুলের বাবা হাফিজ আতিকুল ইসলাম ও মা মিনারা বেগমকে আটক করে পুলিশ। হামলাকারী ফয়জুল হাসান ছাড়াও এ নিয়ে ৫ জনকে আটক করা হয়েছে।

আটক অন্যরা হলেন, হামলাকারীর চাচা আবদুল কাহার লুলই, মামা ফজলুর রহমান, ফয়জুলের সাবেক কর্মস্থল নগরীর জল্লারপাড়ের রাজা ম্যানশনের কম্পিউটার দোকান মালিক মঈন উদ্দিন।

সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য গিয়াস উদ্দিন পুলিশের বরাত দিয়ে  বলেন, হামলাকারী ফয়জুলের বাবা-মাকে নগরীর মদিনা মার্কেট পনিটুলা এলাকা থেকে রাত সাড়ে ১০টায় অভিযান চালিয়ে আটক করে পুলিশ। তাদের ধরতে প্রথমে দিরাই উপজেলার জগদল উশনপুরে হামলাকারীর বোনের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়।  সেখানকার তথ্য মতে তাদের পনিটুলা থেকে আটক করা হয়।

সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুস শহিদ  বলেন, হামলাকারী ফয়জুলের বাবা-মা আটক হয়েছিন জানতে পেরেছেন। দিরাই উপজেলার জগদল ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে তারা আত্মসমর্পনের উদ্দেশ্যে সিলেটে আসেন। তার আগেই পুলিশের একটি টিম তাদের আটক করে।
সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম  আটকের সত্যতা স্বীকার করেছেন। তবে আটককৃতদের রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত আটককৃতদের থানায় আনা হয়নি।

মামলার তদন্তের দায়িত্ব তাঁর উপর ন্যাস্ত রয়েছে উল্লেখ করে ওসি বলেন, ‘মামলায় শুধু হামলাকারী ফয়জুর রহমানকে গ্রেফতার দেখিয়েছি। বাকিদের মধ্যে মঈনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব ধরে নিয়ে গেছে শুনেছেন এবং ফয়জুলের চাচা ও মামাকে আটক রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এ ঘটনার পর রাতেই ফয়জুলের মামা ফজলুর রহমানকে শেখপাড়া এলাকার বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। রোববার ভোররাতে র‌্যাবের অভিযানে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কালিয়ারকাপন নিজ বাড়ি থেকে আটক হন হামলাকারীর চাচা আবদুল কাহার লুলই।  এছাড়া নগরীর রাজা ম্যানশনে ফয়জুলের সাবেক কর্মস্থল কম্পিউটার দোকান মালিক মঈন উদ্দিনকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

তদন্ত কমিটি গঠন :
 শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় তিন সদস্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। রোববার শাবি ভিসি প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করছেন। তিন সদস্য কমিটির প্রধান হলেন সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. আবদুল গণি। তদন্ত কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- রসায়ন বিভাগের প্রফেসর ড. সাইফুল ইসলাম ও সিএসই বিভাগের প্রফেসর ড. শহীদুর রহমান।

ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে: শাবি ভিসি
প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনায় ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার দাবি জানিয়ে শাবি ভিসি প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, এ ঘটনার বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার মর্মাহত। দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাই। তিনি বর্তমানে শঙ্কামুক্ত ও ঝুকিমুক্ত রয়েছেন। ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে তার চিকিৎসার জন্য পাচঁ সদস্যের একটি টিম গঠন করা হয়েছে। পুরো বিশ্ববিদ্যালয়কে সিসি ক্যামেরার আওতাধীন আনা হবে। শীঘ্রই ক্যাম্পাসের সীমানা প্রাচীরের কাজ শুরু করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী জঙ্গীবাদের সাথে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, বিভাগগুলোতে চিঠি দেওয়া হয়েছে কোন শিক্ষার্থী ১৫ দিনের বেশি অনুপস্থিত থাকলে, তার সর্ম্পকে খোজঁ-খবর নেওয়া হবে। এবং শিক্ষকরা এ ক্ষেত্রে সহয়তা করতে পারে।

এই সংবাদটি 1,018 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com