শুক্রবার, ১৬ মার্চ ২০১৮ ০৩:০৩ ঘণ্টা

সুনেত্র থেকে আবারও গ্যাস পাওয়ার আশা

Share Button

সুনেত্র থেকে আবারও গ্যাস পাওয়ার আশা

সিলেট রিপোর্ট: সুনেত্র থেকে আবারও গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। প্রথমবার দ্বিমাত্রিক জরিপ করেই সেখানে প্রাথমিকভাবে গ্যাস পাওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। কিন্তু কূপ খনন করে সেখানে পর্যাপ্ত গ্যাস পাওয়া যায়নি। এরপর গ্যাসের সম্ভাবনা যাচাই করতে নতুন করে আবার ত্রিমাত্রিক জরিপ করা হয় ওই ক্ষেত্রে। এবার নতুন স্তরে গ্যাসের অস্তিত্ব পেয়েছে বাপেক্স।

জানা গেছে, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা—দুই জেলার অংশ বিশেষজুড়ে এই গ্যাসের স্তর ছড়িয়ে রয়েছে। দুই জেলার নামের অংশ বিশেষ এর সঙ্গে মিল করে এই ভূ-ঞ্চলটির  নাম রাখা হয়েছে সুনেত্র।

বাপেক্সের কর্মকর্তারা বলছেন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা এলাকায় ২৬০ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় তৃতীয়মাত্রার (থ্রি-ডি সাইসমিক সার্ভে) জরিপ করা হয়। তাতে বলা হয়, সেখানে গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এর আগে, ২০০৯ সালে প্রথমবারের মতো সুনেত্রে গ্যাস আছে কিনা, তা জানতে প্রথমবার ৫০০ লাইন কিলোমিটার এলাকায় দ্বিমাত্রিক জরিপ করে বাপেক্স। জরিপে তারা বিশাল গ্যাসের আধার থাকার সম্ভাবনা দেখতে পায়।এর পরপরই তারা সেখানে দুই টিসিএফের বেশি গ্যাস পাওয়ার ঘোষণা দেয়। ঘোষণা দেওয়ার পর ২০১২ সালের আগস্ট মাসে প্রথম কূপ খনন করা হয়। এরপর ২০১৩ সালের মার্চ মাসে এসে কূপে গ্যাস না পাওয়ার ঘোষণা দিয়ে কূপটি সিলগালা করে দেওয়া হয়।

ওই সময় পেট্রোবাংলা সুত্র জানায় যে, পেট্রোবাংলার জিওলোজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট প্রাথমিকভাবে সুনেত্র’র যে স্থানে অনুসন্ধান কূপ খননের সুপারিশ করেছিল। বাপেক্স সে স্থানে অনুসন্ধান কূপ খনন করেনি। বরং পেট্রোবাংলার সিদ্ধান্ত অনুযায়ীই নতুন জায়গায় অনুসন্ধান কূপ খননের কাজ শুরু করা হয়। এ বিষয়ে সত্যতা স্বীকার করে বাপেক্সের তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালকও। তিনি ওই সময় বলেছেন, ‘জিওলোজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট যে স্থান নির্বাচন করেছিল, তার চেয়ে পেট্রোবাংলার নির্বাচিত স্থানটিতে গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি ছিল। একারণেই  স্থান পরির্বতন করা হয়।’

নতুন করে ত্রিমাত্রিক জরিপের ফলেও ওপর ভিত্তি করে আবারও কূপ খননের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বাপেক্স।তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলতে চাননি কেউই। বাপেক্সের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘তখন যতটা খনন করে গ্যাস পাওয়ার আশা করা হয়েছিল, ওই পরিমান খনন করা সম্ভব হয়নি।কূপের নকশা করার ক্ষেত্রে ভুল থাকতে পারে বলে ধারণা করা হয়। এ কারণে চার হাজার ৭৬৩ মিটারের নিচে খনন করা সম্ভব হয়নি। এজন্য সুনেত্রে গ্যাস পাওয়ার জন্য ৫ হাজার মিটার অতিক্রম করতে হবে বলে তৃতীয়মাত্রার জরিপে ধারণা পাওয়া গেছে।’

ওই সময় গ্যাস পাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন পেট্রোবাংলার তৎকালীন চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হোসেন মনসুর। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘প্রথমবার কূপ খননে কিছু সমস্যা ছিল। আমরা যতটা গভীর পর্যন্ত খনন করতে চেয়েছিলাম, তা সম্ভব হয়নি। আমাদের মনে হয়েছিল পাঁচ হাজার মিটারের নিচে গ্যাস রয়েছে। কিন্তু আমাদের ৫ হাজার মিটারের আগেই খনন কাজ থামিয়ে দিতে হয়। সুনেত্রে কোনও কারণে মাটির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় হাইপ্রেসার জোন অনেক নিচে। সেখানে হাইপ্রেশার জোনের ওপরেই গ্যাস রয়েছে। এজন্য কূপ খননের আগেই যথাযথভাবে কূপের নকশা করে নেওয়া জরুরি।’

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক বদরুল ইমাম বলেন, ‘প্রথমবার জরিপ করেই গ্যাস পাওয়ার কথা ঘোষণা দেওয়া উচিত হয়নি। কূপ খনন করে নিশ্চিত হয়ে ঘোষণা দেওয়া উচিত ছিল।’ তিনি বলেন, ‘সুনেত্রতে গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। কারণ সুনেত্রর ভূ-গঠন খুবই ভালো। অনেক সময় একটি কূপ খনন করেই সেখানে গ্যাস নেই, তা বলা যায় না। অন্য একটি কূপে গ্যাস পাওয়া যেতেই পারে। যেহেতু ত্রিমাত্রিক জরিপে গ্যাসের সম্ভাবনা বেশি, তাই আবারও কূপ খনন করা জরুরি।’
সুত্র-বাংলাট্রিবিউন

এই সংবাদটি 1,026 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com