শুক্রবার, ১৬ মার্চ ২০১৮ ০৯:০৩ ঘণ্টা

শিক্ষার্থীদের কল্যাণে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে: এনামুল হক মামুন

Share Button

শিক্ষার্থীদের কল্যাণে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে: এনামুল হক মামুন

সিলেট রিপোর্ট : খ্যাতিমান স্কলার, রাজনীতিবিদ ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আ.ক.ম এনামুল হক মামুন বলেছেন- শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করা প্রকৃতপক্ষে দেশের জন্য কাজ করা। কারন আজকের শিক্ষার্থীরাই ভবিষ্যৎ বাংলাদেশের দায়িত্ব নেবে, দেশ-জাতির প্রতিনিধিত্ব করবে। তাই কোমলমতি শিক্ষার্থী বিশেষ করে সমাজের গরীব, এতিম ও অসহায় শিক্ষার্থীদের কল্যাণে সরকারের পাশাপাশি প্রত্যেকের নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতে হবে। শুক্রবার বিকেলে বিশ্বনাথের সমসপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের হল রুমে লতিফিয়া আইডিয়াল সোসাইটি আয়োজিত এলাকার গরীব, এতিম ও অসহায় ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। লতিফিয়া আইডিয়াল সোসাইটির সভাপতি আজাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে এবং ক্রীড়া সম্পাদক আবু সাউদের পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- সমসপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, সংগঠনের উপদেষ্টা মাওলানা আনছার অালী, বিশ্বনাথ ইসলামী ছাত্র সংস্থার সাবেক সভাপতি মো. আলতাফুর রহমান, সংগঠনের উপদেষ্টা চৌধুরী আলী আনহার শাহান, আবুল কাসেম, হাফিজ আখতার আলী, মাওলানা তাওহীদ খান রাসেল। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন- সংগঠনের সাবেক সভাপতি গিয়াস উদ্দিন, রাহিন আহমদ, তরুণ সমাজকর্মী শিব্বির আহমদ। সংগঠনের সিনিয়র সহ-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদের কোরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন সদস্য মুহিবুর রহমান ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন- সহ-সাধারণ সম্পাদক মাসুদ আহমদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন- বিশিষ্ট সালিশ ব্যক্তিত্ব মো. চেরাগ আলী, সংগঠনের সহ-সভাপতি মাহবুব আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সেবুল আহমদ, অর্থ-সম্পাদক বাবুল মিয়া, অফিস সম্পাদক ইলিয়াস আল-মুবিন, সহ-ক্রীড়া সম্পাদক কামাল উদ্দিন, সমাজকল্যাণ সম্পাদক হোশিয়ার আলী, সহ-সমাজকল্যাণ সম্পাদক আতিকুর রহমান, পাঠাগার সম্পাদক নুর আলম, স্কুল সম্পাদক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত এতিম ও অসহায় ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এই সংবাদটি 1,042 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন