শনিবার, ১৭ মার্চ ২০১৮ ০৩:০৩ ঘণ্টা

সরকারের গৃহীত প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের দায়িত্ব স্থানীয় সরকারী কর্মকর্তাদের – জেলা প্রশাসক

Share Button

সরকারের গৃহীত প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের দায়িত্ব স্থানীয় সরকারী কর্মকর্তাদের – জেলা প্রশাসক

সিলেটের নবাগত জেলা প্রশাসক নুমেরী জামান বলেছেন, সরকারের গৃহীত প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের দায়িত্ব স্থানীয় সরকারী কর্মকর্তাদের। বর্তমানে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম প্রতিটি ক্ষেত্রে ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই আমাদের সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে কাজ করতে হবে। গত বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় উপাজেলার সম্মেলন কক্ষে উপজেলা প্রশাসনের সরকারী সকল কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, সাংবাদিক সমাজ হচ্ছে স্বচ্ছতার আয়না। আমরা সকল গণমাধ্যমকর্মীদের সর্বক্ষেত্রে সহযোগিতা চাচ্ছি । তিনি সরকারী কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন আপনারা জনগণের দায়বদ্ধতা নিয়ে স্বচ্ছতার সাথে জবাবদিহিতামূলক মনোভাব নিয়ে কাজ করবেন।
সরকার ইতিপূর্বে তথ্য অধিকার আইন পাশ করে এর কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এ আইনটিই হচ্ছে জনগন তাদের প্রয়োজনে যে কোন তথ্য নিতে বা চাইতে আসলে আপনারা দিতে বাধ্য থাকিবেন মর্মে সরকার এ আইনটি করেছেন।
গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্দ শরীফুল ইসলামের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম, উপাজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুমান উদ্দিন মুরাদ, উপজেলা সহাকারি কমিশনার (ভূমি) মামুনুর রহমান, প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুল আলম, নির্বাচন অফিসার সাইদুর রহমান, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুল আহাদ, গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ফজলুল হক শিবলী, ডিজিএম মাামুনুর রহমান, উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্রা এর আরআমও ডা. শাহিনুর ইসলাম, গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইউনুছ চৌধুরী, গোলাপগঞ্জ রিপোটার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক সেলিম হাসান কাওছার।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, দৈনিক উত্তরপূর্বের গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি এনামুল হক এনাম, উপজেলা সমবায় অফিসার জামাল মিঞা, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা তানজিলা তাসনিম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা খাদিজা খাতুন, পরিবার পরিকল্পনা কর্মতর্কা আব্দুর রহমান প্রমুখ।-বিজ্ঞপ্তি

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন