শনিবার, ০৭ এপ্রি ২০১৮ ০৩:০৪ ঘণ্টা

সরকারের চিকিৎসার দরকার নেই খালেদার: মওদুদ

Share Button

সরকারের চিকিৎসার দরকার নেই খালেদার: মওদুদ

ডেস্ক রিপোর্ট :

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সরকারের চিকিৎসা করানোর কোনো প্রয়োজন নেই-বলেছেন মওদুদ আহমদ। তিনি ব্যক্তিগত চিকিৎসক দিয়ে দলীয় প্রধানকে চিকিৎসা করানোর দাবি জানিয়েছেন।

আর এই চিকিৎসা করানোর স্বার্থে দলীয় প্রধানের মুক্তিও দাবি করেছন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হওয়ার পর থেকে পুরান ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন বিএনপি নেত্রী। ৫৮ দিন পর সেখান থেকে বের করে শনিবার সকালে নেয়া হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে।

বিএনপি নেত্রীকে কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল নিয়ে কেবিন ব্লকের ৫১২ নম্বর কক্ষে নেয়া হয়। এরপর তার এক্সরে করা হয়।

বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দেড়টা অবধি তিনি সেখানে ছিলেন। দেড়টার পর বিএনপি নেত্রীকে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে আনার খবরে তার বেশ কয়েকজন আইনজীবী যান বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে। এদের একজন মওদুদ। তিনি বলেন, ‘আমরা দাবি করব তাকে (খালেদা জিয়া) অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা করানোর। সরকারের তার চিকিৎসা করানোর কোনো প্রয়োজন নেই। ওনি বের হয়ে ওনি ঠিক করবেন কীভাবে চিকিৎসা করাবেন।’

‘তবে আমরা নির্দিষ্ট করে বলতে পারছি না ওনাকে কেন এক্সরে করানো হচ্ছে, কেন বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করানো হচ্ছে।’

মওদুদ বলেন, ‘নির্জন কারাগারে রাখার কারণে তার (খালেদা জিয়া) মানসিক অবস্থার পাশাপাশি শারীরিক অস্থার অবনতি হয়েছে। তাকে যে চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল, সেটা যথেষ্ট হয়। আমরা সবাই উদ্বিগ্ন।’

‘নির্জন কারাবাসে রাখার জন্য যে অবস্থা তৈরি হয়েছে, সেটার দায় কখনও সরকার এড়াতে পারে না।’

খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির একেকজন নেতা একেক ধরনের দাবি করছেন। তাহলে তাদের মধ্যে কোনো সমন্বয়হীনতা আছে কি না-এমন প্রশ্নে মওদুদ বলেন, ‘কোনো ধরনের সমন্বয়হীনতা নেই। আমরা এতদিন বলে আসছি ওনি অসুস্থ, সবাই আমরা একই কথা বলছি। এর বাইরে তো আমাদের কিছু করার নেই।’

এ সময় মওদুদের সঙ্গে বিএনপি নেতা আমানউল্লাহ আমান, মাহবুব উদ্দিন খোকন, সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ উদ্দিন আহমেদ, সাখাওয়ার হোসেন শায়ন্ত, খালেদার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর বউ শর্মিলা রহমান, কোকোর ছোট মেয়ে জাহিয়া রহমান প্রমুখ হাসপাতালে উপস্থিত ছিলেন। তবে তারা কেউ বিএনপি নেত্রীর দেখা পাননি।

বিএনপি নেত্রীকে কারাগার থেকে হাসপাতালে আনা এবং নেয়ার পথে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য কড়া পাহারায় থাকে। দুই ঘণ্টা হাসপাতালে থাকা অবস্থায় ভেতরেও ছিল নিরাপত্তার কড়াকড়ি।

এই সংবাদটি 1,001 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন