রবিবার, ০৮ এপ্রি ২০১৮ ০৪:০৪ ঘণ্টা

মোবাইল ও অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কেনার নিয়মাবলী

Share Button

মোবাইল ও অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কেনার নিয়মাবলী

ডেস্ক রিপোর্ট:  বর্তমানে মোবাইল ও অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কেনা পদ্ধতি জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন না এ পদ্ধতিতে ট্রেনের টিকেট কেনার পদ্ধতি। তাদের জন্যই আমাদের আজকের আয়োজন। মোবাইলের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কেনার নিয়মাবলী: * ফোন থেকে *131*1# ডায়াল করুন * Answer বাটন চেপে যাত্রার তারিখ টাইপ করুন এবং Send প্রেস করুন (আপনার যাত্রার তারিখ 0৫ জানুয়ারি হলে টাইপ করুন 05, ১৫ জানুয়ারি হলে টাইপ করুন 15)। * Answer বাটন চেপে আপনার যাত্রা শুরুর স্টেশনের পাশে নম্বরটি টাইপ করে Send প্রেস করুন। * আপনার গন্তব্য স্টেশনের প্রথম তিনটি অক্ষর টাইপ করুন। আপনার সামনে বেশ কয়েকটি স্টেশনের নাম দেখা যাবে। Answer বাটন চেপে আপনার কাঙিক্ষত স্টেশনের নামের পাশে নম্বরটি দিয়ে Send প্রেস করুন। * আপনার ট্রেনটি বেছে নিন (কাঙিক্ষত আন্তঃনগর ট্রেনের পাশে নম্বরটি বসিয়ে Answer বাটন চেপে Send প্রেস করুন)। * টিকেটের ক্লাস বেছে নিন (কাঙিক্ষত ট্রেনের ক্লাসের পাশে নম্বরটি বসিয়ে Answer বাটন চেপে Send প্রেস করুন)। * প্রয়োজন অনুযায়ী টিকেট অপশন বেছে নিন (কাঙ্ক্ষিত টিকেট অপশন কম্বিনেশনের পাশে নম্বরটি বসান)। * বুকিং কনফার্ম করার জন্য 1 চাপুন (বাতিল করার জন্য 2 চাপুন)। * বুকিং কোড ও টিকেটের দামসহ আপনি একটি এসএমএস পাবেন।বুকিং-এর পরের পদক্ষেপ: যেকোন গ্রামীণফোন সেন্টার বা বিলপে চিহ্নিত আউটলেট থেকে বুকিং দেয়ার ৩০ মিনিটের মধ্যে আপনার মোবিক্যাশ রিফিলে প্রয়োজনীয় পরিমাণ টাকা রিফিল করে নিন। অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কেনার নতুন নিয়ম:বাংলাদেশ রেলওয়ের সফটওয়্যার আপডেটের মাধ্যমে সিট প্ল্যান দেখে টিকেট বুকিং ও কেনার সুবিধা যোগ করা হয়েছে। ট্রেনের টিকেট কিনতে ‘ই-সেবা’ (https://www.esheba.cnsbd.com/) ঠিকানায় গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে ট্রেনের শিডিউল/ভাড়া দেখা থেকে শুরু করে আপনার যাত্রার দিনে টিকেট আছে কিনা তাও জেনে নিতে পারবেন। সেইসঙ্গে নতুন যুক্ত হওয়া সিট প্ল্যান দেখে পছন্দের আসনে টিকেট বুকিং/কেনার সুবিধা। অনলাইনে টিকেট কেনার কিছু ধাপ পেরিয়ে আপনি ক্রেডিট কার্ড ও মোবাইল মানির মাধ্যমে টিকেট প্রাপ্তির ই-মেইল পাবেন। যেখানে আপনার টিকেটের বিস্তারিত ও সিক্রেট পাসওয়ার্ড পৌঁছে যাবে। ভ্রমণের দিনে ট্রেন ছাড়ার ৩০ মিনিট পূর্বে ও আগেই ওই টিকেট সংগ্রহ করা যাবে।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন