সোমবার, ০৯ এপ্রি ২০১৮ ১২:০৪ ঘণ্টা

ছাদ থেকে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা, আহত সাকেরকে ঢাকা প্রেরণ

Share Button

ছাদ থেকে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা, আহত সাকেরকে ঢাকা প্রেরণ

 

আব্দুল্লাহ আল ইমরান চৌধুরী : মাহা-বিয়ানীবাজার উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা গোলাবিয়া পাবলিক লাইব্রেরীর ছাদে বসে দেখেছিলো সাকের। অন্য অনেকের সাথে সে খেলা দেখলেও এ খেলা দেখাই কাল হলো। সাকেরকে খেলা শেষে নামার পথে হামলা করলো তিন যুবক। অজ্ঞান হয়ে দু’তলা থেকে মাটিতে পড়ে মারাত্মক আহত হয়েছে। এখন জীবন মৃত্যু মাঝখানে দাড়িয়ে পরিবারের একমাত্র উপার্যনকারি ছেলেটি।

মা-বাবা একমাত্র সন্তান সাকের তিন বোনের একমাত্র ভাই। তার এ অবস্থায় দরিদ্র পরিবারে বইছে ক্ষোভ, অভিমান, হতাশা। পরিবারের সদস্যরা হামলাকারিদের বিচার চান। এ ঘটনার সাথে নেপথ্যে থাকাদেরও মুখোশ উন্মোচন করতে হবে।

সাকেরের সাথে খেলা দেখা তিন দর্শক হামলাকারিদের পরিচয় সনাক্ত করেছেন। যানাযায় , জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক জিয়াউর রহমান, আবু আহমদ সাহেদ এর রিক্সা চালক রাজু এবং গোলাবিয়া লাইব্রেরীর প্রহরি দশরথ ঋষি। রাজুর বাড়ি নেত্রকোনা এবং দশরথ ঋষির বাড়ি মাধবপুরে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক জিয়ার বাড়ি পৌরসভার চালিকোনায়। তার কাছে গোলাবিয়া পাবলিক লাইব্রেরী চাবি রাখা থাকে।

ছাদে বসা দর্শকদের সাথে এ তিনজন বাগবিতণ্ডার পর নিচে নেমে এসে আবার উপরে যায়। তখন খেলা শেষে দু’তলায় সাকেরকে পেয়ে তারা হামলা চালায়। এ হামলার পেছনে দায়িত্বশীল কারো নির্দেশ রয়েছে। আমরা জড়িতদের সাথে নির্দেশদাতাকে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি- ক্ষোভ প্রকাশ করে একথা বলেন ছাত্রনেতা আমান উদ্দিন।

অপর ছাত্রনেতা ইকবাল হোসেন তারেক বলেন, আমরা শুনেছি আবু আহমদ সাহেদ নামের একজনের নির্দেশে সাকেরের উপর হামলা করা হয়। ওই ব্যক্তি এ সময় লাইব্রেরীতে বসা ছিলেন।

শ্রমিক নেতা আলতাফ হোসেন বলেন, আমাদের সিএনজি চালকের উপর যারা হামলা করেছে, এ হামলার পেছনের যাদের ইন্ধন রয়েছে আমরা সবার বিচার চাই। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করার দাবি জানিয়ে পরিবহন শ্রমিকরা বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করবে।

এদিকে সাকেরের অবস্থা অপরিবর্তিত রয়েছে। গত শুক্রবার তাকে ঢাকা পাঠানোর কথা থাকলেও প্রয়োজনীয় এ্যাম্বুল্যান্সের কারণে পাঠানো হয়নি। গতকাল শনিবার তাকে ঢাকা প্রেরণ করা হবে। তাকে সিলেট ওসমানি হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে রাখা হয়েছে।

এদিকে সাকেরের পরিবার থেকে বিয়ানীবাজার থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে। মামলায় হুকুমদাতাসহ ঘটনার সাথে জড়িতদের আসামী করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

মাথিউরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সিহাব উদ্দিন বলেন, মূল ঘটনা আমরা অনেক পরে জেনেছি। শুক্রবার শিক্ষামন্ত্রীর সাথে মুরব্বিদের আলোচনা হয়ে মন্ত্রী আশ্বস্থ করেছেন। তিনি বলেন, মামলা হবে এবং এ ঘটনার সাথে জড়িত এবং নেপথ্যে যারা রয়েছেন তারাও আসামী হবেন।

এদিকে মারাত্মক আহত সাকেরে পরিবারের পাশে দাড়িয়েছেন বিয়ানীবাজারের মাথিউরা ইউনিয়নের কৃতি সন্তান, বাফূফের নির্বাহী সদস্য, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমেদ সেলিম। তিনি ওসমানি হাসপাতালে চিকিৎসা থেকে শুরু করে বিশেষায়িত হেলিকপ্টার যুগে ঢাকায় প্রেরণ এবং স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তির করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করছেন। এ দায়িত্বেই শেষ নয়, তাকে সুস্থ করতে সকল রকমের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিয়ে পাশে দাড়িয়েছেন এ মহৎ মানুষটি। এ পর্যন্ত প্রায় ৪ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন সাকেরে চিকিৎসায়। তার এ অবদান আর্থিক অস্বচ্ছল পরিবার চিরদিন স্মরণ করবে।

সাকেরে পিতা তেরাব আলী কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার ছেলের হায়াত আল্লাহ দান করবেন। কিন্তু সেলিম ভাই যে উপকার করছেন আমরা তার জন্য শুধু আল্লাহ কাছে দোয়া করছি। তার জন্যই একমাত্র সন্তানকে আবার বুকে ফিরে পাওয়ার আশা করছি। আল্লাহ আমাদের আশা পুরণ করবেন।

মাহি উদ্দিন মেলিম বলেন, মানবিক দিক থেকে আমি চেষ্টা করছি এ পরিবারের পাশে থাকতে। মানুষ মানুষের জন্য, আশা করি আমার মতো আরও অনেকেই এগিয়ে আসবেন এবং অসহায় মানুষের পাশে দাড়াবেন।

বিয়ানীবাজার লায়ন ক্লাবের পাস্ট প্রেসিডেন্ট লায়ন সুয়েল আহমদ রাশেদ বলেন, মাহি উদ্দিন সেলিম ভাইয়ের মতো মানুষ এ সমাজে আছে বলেই এখনো মানুষের প্রতি মানুষের ভালবাসা রয়েছে। এসব মানুষের কাছ থেকে শেখার আছে- ফেসবুকে কিংবা গলাবাজি না করে অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে আল্লাহ সন্তুষ্টি আদায় করা যায়। আমরা বিয়ানীবাজারবাসী তার প্রতি কৃতজ্ঞ।

মাথিউরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সিহাব উদ্দিন বলেন, হামলাকারি কে পুলিশ প্রশাসন তাকে খুজে বের করবে। আপাতত আমাদের চিন্তা সাকেরকে সুস্থ করে তোলা। আল্লাহ তায়লা তাকে হায়াত দান করবেন। তিনি বলেন, মাথিউরার চেয়ারম্যান হিসাবে মাহি উদ্দিন সেলিম ভাইয়ের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। তিনি যেভাবে সাকেরের পাশে দাড়িয়েছেন সেভাবে আমরা কেউই তার পাশে দাড়াতে পারছি না। সেলিম ভাইয়ের কাছে আমরা চিরঋণী হয়ে থাকবো।

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com