সোমবার, ০৯ এপ্রি ২০১৮ ০১:০৪ ঘণ্টা

জগন্নাথপুরে এম এ খলকুর পোশাক বিতরণ

Share Button

জগন্নাথপুরে  এম এ খলকুর পোশাক বিতরণ

সিলেট রিপোর্ট: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে চরা মাদ্রাসায় প্রবাসি বিএনপি নেতা মো. অালী খলকুর পক্ষ থেকে দরিদ্র ও মেধাবি ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে পোশাক বিতরণ ও মাদ্রাসার উন্নয়নে অার্থিক সহযোগিতা।

 


উপজেলার অাশারকান্দি ইউনিয়নের চরা জামেয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় বিশিষ্ট সমাজসেবক শিক্ষাননুরাগী যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা মো. অালী খলকুর পক্ষ থেকে দরিদ্র ও মেধাবি ছাত্রদের মধ্যে পোশাক বিতরণী অনুষ্ঠান ৮এপ্রিল রোববার মাদ্রাসার সুপার সালেহ অাহমদের সভাপতিত্বে ও শিক্ষক কয়েছউজ্জামান চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্টিত পোশাক বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ-৩ অাসনে বিএনপি থেকে ২০দলীয় জোটের সম্ভাব্য সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী বিশিষ্ট সমাজসেবক শিক্ষানুরাগী যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা মোহাম্মদ অালী খলকু, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন জগন্নাথপুর উপজেলার সেক্রেটারি বিশিষ্ট সমাজসেবক শিক্ষানুরাগী হাজি সোহেল অাহমদ খান টুনু, জগন্নাথপুর পত্রিকার সম্পাদক মুহাম্মদ ইয়াকুব মিয়া, শিক্ষক মাওলানা অাব্দুল অাহাদ খান, শিক্ষানুরাগী কাজি গোলাম রব্বানি, শিক্ষানুরাগী পরাছ খান, ফারুক মিয়া কবিরী, মাওলানা অাজম শাহ, মাওলানা অাব্দুল মালিক, শেখ অাব্দুল মন্নান, শাহ অালম খান, সমাজকর্মী বাবুল খান মুন্না, অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন, অানিছুর রহমান, শামীম অাহমদ, হাফিজ মিজানুর রহমাদ, শিক্ষক অাহমদ অালী, জিতু মিয়া কবিরী, রুনু মিয়া, শাহ অালম খান, ইকরাম উদ্দিন, অাসকির খান, লেবু মিয়া, খেলন মিয়া, খাইরুল মিয়া, তাহের মিয়া, কবির অাহমদ, রুপন মিয়া, শাহান মিয়া, জাকির অাহমদ, সুমন অাহমদ, টিটু মিয়া, কাশেম অাহমদ, মিনহাজ অালী, জুবায়ের অাহমদ, লাল মিয়া, সাহেন অাহমদ প্রমুখ।

 

চরা জামেয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় বিশিষ্ট সমাজসেবক শিক্ষাননুরাগী যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা মো. অালী খলকুর পক্ষ থেকে দরিদ্র ও মেধাবি ছাত্রদের মধ্যে পোশাক বিতরণ করা হয়, মাদ্রাসার ছাত্রীদের পোশাকের জন্য নগদ অর্থ প্রদান করা হয়, অাগামি দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তদেরকে সম্মাননামূলক নগদ অর্থ প্রদান করবেন ও মাদ্রাসার উন্নয়নের জন্য অার্থিক সহযোগিতারও ঘোষনা দেন তিনি।

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন