সোমবার, ০৯ এপ্রি ২০১৮ ০৩:০৪ ঘণ্টা

জগন্নাথপুরে বোরো ধান কাটা শুরু

Share Button

জগন্নাথপুরে বোরো ধান কাটা শুরু

 

কামরুল ইসলাম মাহি/ আসাদ চৌধুরী: সুনামগঞ্জেরর জগন্নাথপুরের দ্বিতীয় বৃহৎ মইয়ার হাওরে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় কৃষকদের চোখে-মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের ঝিলিক। স্বপ্নের লালিত ফসল গোলায় তোলতে ব্যস্ত এখন কৃষক পরিবার। রোববার (৮ এপ্রিল) মইয়ার হাওর কৃষকদের ধান কাটার দৃশ্যে দেখা গেছে।স্থানীয় কৃষকরা জানান, দুই বছরের ফসলহারা কৃষকরা এখন ফসল ধানক্ষেত্রের পাকা ফসল কর্তনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। ধান কাটা, ধান মাড়াই, ধান শুকানো এসব কাজে কৃষককৃষাণী ও তাদের পরিবারের ছোড় বড় সবাই গোলায় ধান তুলতে সর্বাক্ষণিক কাজ করছেন আনন্দ খুশিতে। চার-পাঁচ দিন আগ থেকে ধান কাটা শুরু হয়েছে এ হাওরে। আরও দশ বারো দিনের মধ্যেই পুরো হাওরের ধানকাটা শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে কৃষকরা জানিয়েছেন।
এদিকে শিশু সন্তানরাও ধানক্ষেত্রে সহযোগিতা করছে কৃষকদের। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলেও শিলাবৃষ্টির ভয় রয়েছে। তাই পাকাধান কোনভাবে হারাতে রাজি নয় কৃষকরা। পর্যাপ্ত পরিমাণে ধান কাটার শ্রমিক না থাকায় ৫-৬জন শ্রমিক ও পরিবারের লোকজন নিয়ে ক্ষেতের ধান কাটছেন ভবানীপুর গ্রামের কৃষকমোহাম্মদ তাজ উল্লা (৪০)।

তিনি বলেন, অকাল বন্যায় ও শিলাবৃষ্টির তান্ডবে টানা দুই বছর ফসল এক ছটাকও পাইনি। এবার ১৬ কেদার জমিতে বোরো আবাদ করেছি। সব ফসলই পেকে গেছে। তাই পরিবারের লোকজন নিয়ে ধান কাটা শুরু করেছি। দুই বছর পর ফসল দেখে খুশি লাগছে। গত দুই বছর কষ্টার্জিত ফসল হারিয়ে কৃষকদের মধ্যে এ সময় হাহাকার ছিল। নিশেহারা হয়ে পড়েন কৃষকরা। শত প্রতিকূলতা ডিঙ্গিয়ে আবারও চাষাবাদ শুরু করেন তারা।
কৃষক উস্তার উল্লাহ (৫০) বলেন, গত বছর ২৫ কেদারা জমিতে আবাদ করেছিলাম। বন্যার পানিতে বিনষ্ট হয়ে যায় সব ফসল। শত কষ্টের পরও আবার আবাদ শুরু করি। এখন পাকা ধান কর্তন করতে পারায় সকল কষ্ট যেন হারিয়ে গেছে।

উল্লেখ্য, এবার উপজেলার নলুয়া, মইয়া, পিংলাসহ ছোট বড় ১৫টি হাওরের প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর বোরো ফসলের চাষাবাদের আওতায় আনা হয়েছে বলে জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে।

এই সংবাদটি 1,011 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন