বুধবার, ১১ এপ্রি ২০১৮ ০৭:০৪ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা হত্যার দায়ে মিয়ানমারে ৭ সেনার কারাদণ্ড

Share Button

রোহিঙ্গা হত্যার দায়ে মিয়ানমারে ৭ সেনার কারাদণ্ড

ডেস্করিপোর্ট: মিয়ানমারের রাখাইনে গত বছর ১০ রোহিঙ্গাকে হত্যার অভিযোগে সাত সেনাকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত।

আজ বুধবার ফেসবুক পোস্টে এ কথা জানিয়েছেন মিয়ানমারের সেনাপ্রধান  জেনারেল মিন অং হ্লাইয়াং।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী কর্তৃক রোহিঙ্গা হত্যার কথা স্বীকার এবং বিচারের এটাই প্রথম ঘটনা। গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর রাখাইনের ইনদিন গ্রামে ১০ জন রোহিঙ্গাকে নৃশংসভাবে হত্যা করে সেনারা।

মিয়ানমারের সেনাপ্রধান ফেসবুকে জানান, সেনাবাহিনী থেকে চার কর্মকর্তাকে অপসারণ করে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তিন সৈন্যকেও একই ধরনের দণ্ড দিয়ে সাধারণ কয়েদিদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মিয়ানমার নেত্রী অং সান সু চি সেনাবাহিনীর এই উদ্যোগকে ইতিবাচক পদক্ষেপ উল্লেখ করে স্বাগত জানিয়েছেন।

এরআগে সেনাবাহিনী হত্যার কথা স্বীকার করলে এ ঘটনার স্বাধীন তদন্ত ও বিচারের আহ্বান জানিয়েছিল আন্তর্জাতিক মহল। কিন্তু তাদের আহ্বান উপেক্ষা করে রুদ্ধদার বিচার করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

গত আগস্ট থেকে রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের জাতিগত নিধনে নামে সেনাবাহিনী। এরই মধ্যে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা নিজ দেশে ছেড়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন চলাকালে সেখানে রয়টার্সের হয়ে কাজ করছিলেন সাংবাদিক ওয়া লোন (৩১) এবং কিয়াও সো ও (২৭) ওই দুই সাংবাদিক। নির্যাতনের তথ্য নিয়ে প্রতিবেদন করার কারণে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা এমন তথ্য এবং নথি সংগ্রহ করেছেন, যা ‘শত্রুদের কাজে লাগতে পারে’। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের ১৪ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। আজ ওই দুই সাংবাদিকের মুক্তি চেয়ে আদালতে আবেদন করা হলে আদালত তা খারিজ করেন।

এই সংবাদটি 1,004 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন