শুক্রবার, ১৩ এপ্রি ২০১৮ ০৯:০৪ ঘণ্টা

বীমার এজেন্ট হতে লাগবে এসএসসি পাস

Share Button

বীমার এজেন্ট হতে লাগবে এসএসসি পাস

ডেস্ক রিপোর্ট: বীমা কোম্পানির এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ পেতে কোনো স্বীকৃত বোর্ডের অধীনে মাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। অর্থাৎ বীমা কোম্পানির এজেন্ট হতে কমপক্ষে এসএসসি পাস হতে হবে।

বীমা কোম্পানির এজেন্ট নিয়োগ ও নিবন্ধন সংক্রান্ত খসড়া প্রবিধানমালাতে এমন শর্ত রেখেছে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)।

‘বীমা এজেন্ট নিয়োগ ও নিবন্ধন প্রবিধানমালা-২০১৮’ নামের এর খসড়া প্রবিধানমালার ওপর বীমা সংশ্লিষ্টদের মতামতও চেয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। এ লক্ষ্যে সম্প্রতি খসড়া প্রবিধানমালা অর্থ মন্ত্রণালয়েল আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরামের সভাপতিসহ দেশে ব্যবসা করা সব জীবন ও সাধারণ বীমা কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) কাজে পাঠানো হয়েছে।

শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি স্থায়ী বীমা এজেন্ট হতে ন্যূনতম বীমা পলিসি সংগ্রহের শর্তও জুড়ে দেয়া হয়েছে খসড়া প্রবিধানমালাতে। জীবন বীমার স্থায়ী এজেন্ট হতে হলে আবেদকারীকে এক বছরে কমপক্ষে ১১টি নতুন পলিসি সংগ্রহ করতে হবে। অথবা নতুন প্রিমিয়াম সংগ্রহের বিপরীতে ২০ হাজার টাকা কমিশন আয় করতে হবে।

সাধারণ বীমা কোম্পানির স্থায়ী এজেন্ট হতে হলে অস্থায়ী এজেন্ট হিসেবে কাজ করা অবস্থায় কমপক্ষে এক লাখ টাকার প্রিমিয়াম সংগ্রহ করতে হতে। এসব শর্তের পাশাপাশি আরও কিছু শর্ত রাখা হয়েছে খসড়া প্রবিধানমালাতে।

খসড়া প্রবিধান অনুযায়ী, বীমা এজেন্টের লাইসেন্সের জন্য এক হাজার টাকা ফি দিতে হবে। লাইসেন্স নবায়নের জন্য ফি দিতে হবে দেড় হাজার টাকা। অবশ্য শুধু ফি দিলে লাইসেন্স নবায়ন হবে না। জীবন বীমার ক্ষেত্রে প্রথম বর্ষ প্রিমিয়ামের ৬০ শতাংশ দ্বিতীয় বর্ষে নবায়ন পিমিয়াম হিসেবে সংগ্রহ করতে হবে। অর্থাৎ এজেন্ট যে নতুন বীমা পলিসি বিক্রি করবেন, পরবর্তীতে বছরে তার ৬০ শতাংশ নবায়ন প্রিমিয়াম বাবদ আদায় করতে হবে। পাশাপাশি আইডিআরএ’র অনুমোদিত প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান থেকে দুই বছর পরপর ৩৬ ঘণ্টার প্রশিক্ষণ সনদ জমা দিতে হবে। সাধারণ বীমার এজেন্টের লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রেও প্রশিক্ষণের বাধ্যবাধকতা রাখা হয়েছে।

বীমা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমান আইন অনুযায়ী বীমা কোম্পানির এজেন্ট লাইসেন্সের জন্য অষ্টম শ্রেণি পাস লাগে। অর্থাৎ শুধু অক্ষরজ্ঞান (কোনো রকমে লিখতে-পড়তে জানা) আছে এমন ব্যক্তি অনায়াসে বীমা কোম্পানির এজেন্ট হতে পারেন। এ এজেন্টরাই অনায়াসে কোম্পানির অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালকও হয়ে যেতে পারনে। কারণ এজেন্ট ও সিইও’র মাঝের পদগুলোর শিক্ষাগত যোগ্যতার কোনো শর্ত আইনে নেই। সিইও পদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতার শর্ত রাখা হয়েছে কমপক্ষে তিন বছর মেয়াদি স্নাতক ও এক বছর মেয়াদি স্নাতকোত্তর বা চার বছর মেয়াদি স্নাতক বা সমমানের ডিগ্রি।

তারা বলছেন, অষ্টম শ্রেণি পাস করে বীমা কোম্পানির এজেন্ট হওয়ার মাধ্যমে পদোন্নতি পেয়ে অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হওয়ার সুযোগ থাকায় এ খাত সম্পর্কে সাধারণের নেতিবাচক ধারণা রয়েছে। অক্ষরজ্ঞানসম্পন্ন কর্মাকর্তারা একদিকে বীমা পলিসি বিক্রি করতে নিচ্ছে নানা প্রতারণার আশ্রয়, অন্যদিকে গ্রাহককে তারা দিতে পারছেন না সঠিক তথ্য। এতে পদে পদে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন সাধারণ গ্রহকরা। ফলে সাধারণর কাছে এ খাত অনিয়ম আর দুর্নীতির আখড়া হিসেবেই পরিচিত।

তাদের মতে, এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য এজেন্টদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এসএসসি পাস নির্ধারণ করা হলে কিছুটা হলেও সুফল পাওয়া যাবে। শিক্ষিতরা বীমাকে পেশা হিসেবে নেবে। ফলে বীমার প্রতি মানুষের ইতিবাচক ধারণা সৃষ্টি হবে। তবে এসএসসি পাস করেই অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হওয়ার সুযোগ বন্ধ করতে হবে। সিইও পদের মতো ব্যবস্থাপক, ডিএমডি, এএমডি পদের ক্ষেত্রেও শিক্ষাগত যোগ্যতার একটি শর্ত রাখতে হবে। তাহলে প্রকৃত মেধাবিরা বীমা পেশার সঙ্গে জড়িত হবেন এবং বীমা খাতের প্রসার ঘটবে।

যোগাযোগ করা হলে আইডিআরএ সদস্য গোকুল চাঁদ দাস জাগো নিউজকে বলেন, বীমা খাতে যাতে শিক্ষিতরা আসে সে লক্ষ্যে আমরা এজেন্টদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এসএসসি পাসের উদ্যোগ নিয়েছি। আমরা বীমা কোম্পানিগুলোর জন্য একটি অভিন্ন বেতন কাঠামো তৈরির চেষ্টা করছি। এ বেতন কাঠামোতে ডিএমডি পর্যায়ের কর্মকর্তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার একটি শর্ত রাখার চেষ্টা করব।

বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেন বলেন, এ বিষয়ে আইডিআরএ এখনও আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনেকরি, এখন এজেন্টদের অষ্টম শ্রেণি পাসের নিয়ম আছে, এটি বাড়ানো উচিত। আইডিআরএ আমাদের সঙ্গে বসলে আমরা এ বিষয়ে মতামত দেব।

মেঘনা লাইফের চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, বীমা খাতে শিক্ষিত জনশক্তি তৈরিতে শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়ে একটি নীতিমালা হওয়া উচিত। কারণ বর্তমান আইনের দুর্বলতার কারণে বীমা খাতে শিক্ষাগত যোগ্যতার কোনো মূল্যায়ন হচ্ছে না। ফলে এ খাতে শিক্ষিত জনশক্তি তৈরি হচ্ছে না। এজেন্টদের এসএসসি পাসের নিয়ম করা ভালো উদ্যোগ। সম্ভব হলে এইচএসসি পাসের নিয়ম করা যেতে পারে।

স্থায়ী এজেন্ট হওয়ার ক্ষেত্রে এক বছরে ১১টি পলিসি বিক্রি অথবা ২০ হাজার টাকা কমিশন আয়ের বাধ্যবাধকতার কারণে অনৈতিক প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হবে কিনা- এমন প্রশ্নের উত্তরে এ বীমা বিশেষজ্ঞ বলেন, ন্যূনতম পলিসি বিক্রির একটি নিয়ম থাকা উচিত। যদি ১১টি পলিসির সংখ্যা বেশি মনে হয়, তাহলে এ সংখ্যা কিছুটা কমানো যেতে পারে।

প্রাইম ইসলামী লাইফের সাবেক মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোরতুজা আলী বলেন, এজেন্টের শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এসএসসি পাশ হলে ভালো। তবে জীবন বীমার ক্ষেত্রে ১১টি পলিসি বিক্রি কতজন করতে পারে সেটি দেখা উচিত। এ সংক্রান্ত কোনো জরিপ আমাদের কাছে নেই। জরিপ থাকলে একটি ধারণা পাওয়া যেত।

সন্ধ্যানী লাইফের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, সুশৃঙ্খল বীমা খাত সৃষ্টি করতে কিছু বাধ্যবাধকতা থাকতে হবে। খসড়া প্রবিধানের শর্তগুলো বাস্তবায়িত হলে এ খাতের গ্রাহকসেবা ভালো হবে, তামাদি পলিসির হার কমে যাবে, কেরিয়ার এজেন্ট তৈরি হবে। শিক্ষিতরা আসলে খারাপ পলিসি বিক্রি বন্ধ হবে।

স্থায়ী এজেন্ট হওয়ার ক্ষেত্রে এক বছরে ১১টি পলিসি বিক্রি অথবা ২০ হাজার টাকা কমিশন আয়ের বাধ্যবাধকতার কারণে অনৈতিক প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হবে কিনা- এর উত্তরে তিনি বলেন, এতে অনৈতিক প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হওয়ার সুযোগ নেই। বরং এতে কেরিয়ার এজেন্ট তৈরি হবে। ‘এজেন্টদের মধ্যে একটি পলিসি বিক্রি করলে করলাম, না করলে না করলাম’- এমন ধারণা সৃষ্টি হবে না। পলিসি বিক্রিটা এজেন্টরা পেশা হিসেবে নেবেন।

এই সংবাদটি 1,011 বার পড়া হয়েছে