শনিবার, ১৪ এপ্রি ২০১৮ ১২:০৪ ঘণ্টা

‘হালখাতা’র সংস্কৃতি ধরে রেখেছে পুরান ঢাকাবাসী

Share Button

‘হালখাতা’র সংস্কৃতি ধরে রেখেছে পুরান ঢাকাবাসী

ডেস্ক রিপোর্ট: রাত পোহালেই বাংলা নববর্ষের প্রথম দিন পয়লা বৈশাখ। এই দিনটিকে কেন্দ্র করে পুরান ঢাকায় চলছে উৎসবের আমেজ। বাংলা সন প্রবর্তনের পর থেকে সর্বজনীন উৎসব হিসেবে হালখাতার প্রচলন শুরু হয়। এখন পয়লা বৈশাখ জাঁকজমকের সঙ্গে পালন করা হলেও আধুনিকতার ছোঁয়া ও কালের বিবর্তনে অনেকটাই বিলুপ্তির পথে এক সময়ের জনপ্রিয় ও প্রাণের উৎসব হালখাতা। তবে এখনও পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীরা হালখাতার প্রচলন অনেকটা ধরে রেখেছেন।

রীতি অনুযায়ী পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজার, শ্যামবাজার, বাবুবাজার, শাঁখারীবাজার, তাঁতীবাজার, ইসলামপুর, মিটফোর্ড রোড, চকবাজারের দোকানগুলোতে হালখাতার আয়োজন করা হবে পয়লা বৈশাখের পরদিন। তবে বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা বলছেন, দোকানগুলোতে বৈশাখ বরণ ও হালখাতার উপকরণ তৈরির কাজ সপ্তাহখানেক আগেই শুরু হয়েছে। এজন্য হালখাতার আমেজটাও শুরু হয় সপ্তাখানেক আগেই।

পয়লা বৈশাখ ও হালখাতার উৎসব উপলক্ষে পুরান ঢাকার শাঁখারীবাজার, তাঁতিবাজার, ইসলামপুর, শ্যামবাজার, বাবুবাজার এলাকার অধিকাংশ দোকানেই চলছে ধোয়া-মোছা ও হিসাব-নিকাশের কাজ। আবার কেউ নতুন বছর উপলক্ষে পুরো দোকানেই নতুনত্ব আনার জন্য পুরোনো জিনিসপত্র রং করার কাজে ব্যস্ত।

ঢাকার দোকানগুলো সাজানো হয়েছে বৈশাখ উদযাপনের নানা উপকরণ দিয়ে। মুখোশ, ঘুড়ি, বৈশাখী টুপি, একতারা, ডুগডুগি দিয়ে দোকান সাজিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। দূরের ক্রেতারদের কার্ড বা ফোনের মাধ্যমে দাওয়াত দেয়া হয়েছে। এখন চলছে আশপাশের ক্রেতাদের দাওয়াতের কাজ। যেসব দোকানে হালখাতা আয়োজন করা হচ্ছে তাদের আয়োজন প্রায় শেষের দিকে।

এক সময় হালখাতায় ব্যবসায়ীরা ক্রেতাদের গরম মিষ্টি, জিলেপি ও অন্যান্য খাবার দিয়ে আপ্যায়ন করতেন। সময় পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে খাবারের আয়োজনেও পরিবর্তন এসেছে। বেশিরভাগ ব্যবসায়ী হোটেল বুকিং করে রেখেছেন এবং টোকেনের ব্যবস্থা করেছেন। ক্রেতারা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দেনা মিটিয়ে একটি টোকেন দেখিয়ে হোটেলগুলো থেকে খাবার নেবেন। রাখা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের দামি ও আকর্ষণীয় উপহারের ব্যবস্থা।

এদিকে, হালখাতা উপলক্ষে টালি খাতা কেনার ধুম পড়েছে দোকানগুলোতে। পুরাতন খাতার হিসাব-নিকাশ নতুন খাতায় তুলতে হবে। তাই টালি খাতার কেনার জন্য ব্যবসায়ীরা টালি দোকানে ভিড় জমাচ্ছেন। আবার অনেকে টালি খাতা ফেরি করে বিক্রি করছে। অনেক দোকানি নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসেই কিনছেন নতুন টালি খাতা।

ইসলামপুরের ঈশিকা নামের একটি শাড়ি দোকানের ব্যবসায়ীর সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা হয়। তিনি ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমার পূর্বপুরুষরাও হালখাতা করেছেন। ঐতিহ্য হিসেবে তাই আমরাও এই উৎসবটি আনন্দের সঙ্গে পালন করে থাকি। পাশাপাশি অনেক পাওনা টাকাও আদায় হয় এই উৎসব উপলক্ষে।’

খাবারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘দোকানের মধ্যে খাবার-দাবারের ব্যবস্থা রাখা হয়নি। হোটেল বুকিং দেয়া আছে, সেখানেই খাবারের পর্বটা সারা হবে।’

তাঁতীবাজারের সুমি জুয়েলার্সের মালিক ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘প্রায় এক সপ্তাহ আগ থেকে হালখাতার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। যেমন, দোকান পরিষ্কার করা, দোকান মেরামত, গহনাগুলো পরিষ্কার করা, ক্রেতাদের দাওয়াত পৌঁছানো ইত্যাদিতো একদিনের কাজ নয়। অনেক সময়ের ব্যাপার। এছাড়া দোকান ও ব্যবসার মঙ্গলের জন্য পূজার পর্বতো থাকবেই।’

এই সংবাদটি 1,003 বার পড়া হয়েছে