মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রি ২০১৮ ১২:০৪ ঘণ্টা

বিএনপির মুজিবনগর দিবস উপেক্ষার সমালোচনায় কাদের

Share Button

বিএনপির মুজিবনগর দিবস উপেক্ষার সমালোচনায় কাদের

ডেস্ক রিপোর্ট :

বিএনপির কেন মুজিবনগর দিবস পালন করে না সেটা উপলব্ধি করতে বলেছেন ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, তারা কেবল এই দিবসটি না, বাঙালির রাষ্ট্র পাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ দিবস ৭ মার্চও তারা পালন করে না। আর যাদের কাছে এসব দিবসের গুরুত্ব নেই তাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থাকতে পারে না।

১৯৭১ সালের ১৭ মার্চ কুষ্টিয়ার মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ (পরে নামকরণ হয় মুজিবনগর) স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের শপথ গ্রহণের দিনটি স্মরণে আওয়ামী লীগের এক আয়োজনে দলের সাধারণ সম্পাদক এ কথা বলেন।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আক্রমণের পর শুরু হয় প্রতিরোধ যুদ্ধ। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা এবং পরে বিভিন্ন জনের তার পক্ষে সে ঘোষণাপত্র পাঠের পাশাপাশি একটি সরকার গঠন মুক্তিযুদ্ধের জন্য ছিল গুরুত্বপূর্ণ।

ভারতের কলকাতায় আশ্রয় নেয়া আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বের উদ্যোগে সে সরকার শপথ নেয় ১৭ এপ্রিল। বিদেশি গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে শপথ নেয়া সরকারে রাষ্ট্রপতি করা হয় পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি হন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। তাজউদ্দিন আহমেদ হন প্রধানমন্ত্রী। মনসুর আলী হন অর্থমন্ত্রী আর স্বরাষ্ট্রের দায়িত্ব দেয়া হয় এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে।

পরে ওই সরকারের নেতৃত্বে এবং সিদ্ধান্তেই হয় মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার আড়াই মাস পরে ৩ নভেম্বর জেলখানায় হত্যা করা হয় জাতীয় এই চার নেতাকেও।

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠনের দিনটি বরাবর ঘটা করে উদযাপন করে আওয়ামী লীগ। আর এর অংশ হিসেবে সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এ সময় বিএনপির জাতীয় দিবসগুলো পালন না করার তীব্র সমালোচনা করেন তিনি।

১৭ এপ্রিলকে কোনো গুরুত্ব দেয় না বিএনপি। সেই সঙ্গে ৭ মার্চ এমনকি দুই বছর ধরে ২৫ মার্চ পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর শুরু হওয়া অপারেশন সার্চ লাইটে নিহতদের স্মরণে পালিত হওয়া গণহত্যা দিবসও উপেক্ষা করে দলটি।

কাদের বলেন, ‘আমরা বারবার লক্ষ্য করছি, বাংলাদেশের বড় একটি দল তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হৃদয়ে ধারণ করে না। তারা মুক্তিযুদ্ধ নির্বাচনী ইশতেহারে লোক দেখানো প্রতিশ্রুতি হিসেবে গোচরীভূত করে। যারা নির্বাচন এলে লোক দেখানো হিসেবে ব্যবহার করে তাদের মুক্তিযুদ্ধের প্রতি কতটা কমিটমেন্ট আছে- এটা এখানেই আমাদের একটা সংশয় ও প্রশ্ন থেকে যায়।’

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘বাংলাদেশে যারা ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ও ৭ মার্চ পালন করে না তাদের রাজনীতি হচ্ছে ইতিহাসের মীমাংসিত বিষয়গুলোকে অস্বীকার করা। আর ইতিহাসের মীমাংসিত বিষয়কে নিয়ে যারা বিতর্ক ও অস্বীকার করে তারা ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।’

আ.লীগের কর্মসূচি

মুজিবনগর দিবসের কর্মসূচির অংশ হিসেবে ভোর ছয়টায় ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধু ভবন ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারাদেশে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় এবং দলীয় পতাকা উত্তোলন করেছে আওয়ামী লীগ। সকাল সাড়ে সাতটায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় দলটি।

মুজিবনগরেরও ভোর ছয়টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। সকাল ১০টায় মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে জানানো হয়েছে শ্রদ্ধা। সাড়ে ১০টায় সেখানকার শেখ হাসিনা মঞ্চে শুরু হয় জনসভা।

মুজিবনগর সরকারের মন্ত্রী মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে ওই জনসভায় ক্ষমতাসীন দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা যোগ দিয়েছেন।

ঢাকায় বিকেল সাড়ে তিনটায় ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যৌথ উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

এই সংবাদটি 1,071 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com