Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | আরজাবাদে তাফসীর কোর্স এবং মুজাহিদে মিল্লাত শামছুদ্দীন কাসেমী রহ.
রবিবার, ০৬ মে ২০১৮ ১২:০৫ ঘণ্টা

আরজাবাদে তাফসীর কোর্স এবং মুজাহিদে মিল্লাত শামছুদ্দীন কাসেমী রহ.

Share Button

আরজাবাদে তাফসীর কোর্স এবং মুজাহিদে মিল্লাত শামছুদ্দীন কাসেমী রহ.

সিলেট রিপোর্ট: পবিত্র কুরআন মাজীদের গবেষণা ও তাফসীর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা মুসলিম সমাজে যুগ যুগ ধরে বিদ্যমান রয়েছে। বৃটিশ কবলিত ভারত উপমহাদেশে শাহ ওয়ালিউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলবী রহ. -এর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে হযরত শাইখুল হিন্দ মাহমুদ হাসান রহ. -এর প্রেরণায় হযরত ওবায়দুল্লাহ সিন্ধি রহ. তাফসীরুল কুরআন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। তাঁর থেকে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত হয়ে শাইখুত তাফসীর আহমদ আলী লাহোরী রহ. আরও কার্যকর ও উন্নত রূপরেখার আলোকে উলামায়ে কেরামকে পবিত্র কুরআনের প্রশিক্ষণ দেন।
আল্লামা লাহোরী রহ. কর্তৃক পরিচালিত তাফসীর প্রশিক্ষণ কোর্সে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম সংক্ষিপ্ত তাফসীর প্রশিক্ষণ কোর্স চালু করেন তাঁরই সুযোগ্য শাগরেদ মুজাহিদে মিল্লাত আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী রহ.। শাইখুত তাফসীর হযরত কাসেমী রহ. -এর প্রশিক্ষণ কোর্স থেকে বহু উলামায়ে কিরাম প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় দ্বীনি খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন। এ প্রশিক্ষণ কোর্স সুচারুরূপে পরিচালিত হওয়ার জন্য হযরত কাসেমী রহ. প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন তালিমুল কুরআন সমিতি।

মুজাহিদে মিল্লাত কাসেমী রহ. সুস্থ থাকাবস্থায় একাই তাফসীর কোর্সে প্রশিক্ষণ দিতেন। পবিত্র মাহে রমযানে তাঁর রুটিন ছিল নিম্নরূপ-
সকাল ৮টা থেকে শুরু করে ১২টা পর্যন্ত তাফসীরের দরস দিতেন। যোহরের পর থেকে আসর পর্যন্ত দরস হত। তারাবীর পর শুরু করে সাহারীর পূর্বক্ষণ পর্যন্ত দরস দিতেন। রাতের দরসে তিনি ফিরাকে বাতিলার উপর প্রশিক্ষণ দিতেন। সে সময় তিনি ফিরাকে বাতিলার উপর দালিলিক আলোচনা করতেন। বাইবেল খুলে খ্রীস্টবাদের অসারতা তুলে ধরতেন। মির্জা কাদিয়ানী ও তার অনুসারীদের লিখিত বই থেকেই কাদিয়ানী মতবাদের ভন্ডামী সম্পর্কে হাতে-কলমে শিক্ষা দিতেন। মওদুদীবাদ ও শিয়াইজম সম্পর্কে তাদের বই-পুস্তক থেকেই ভ্রান্তিগুলো আলোচনা করতেন।
রাতের দরসে প্রশিক্ষণার্থী ছাড়াও কখনও কখনও বিভিন্ন স্থান থেকে উলামায়ে কেরামও উপস্থিত হতেন। এ সময়ের বিশেষ আকর্ষণ ছিল প্রশ্নোত্তর পর্ব। ফিরাকে বাতিলা ছাড়াও রাজনৈতিক বিষয়াবলীসহ নানা বিষয়ে প্রাণবন্তকর আলোচনা হত প্রশ্নোত্তর পর্বে। তিনি যুক্তি ও প্রমাণভিত্তিক কৃত প্রশ্নের উত্তর প্রদান করতেন। রাতে তাফসীর দরস শেষে ব্যক্তিগত আমল থেকে ফারেগ হয়ে খাবার গ্রহণ করতেন। ফজরের নামায আদায় করে ঘুমাতেন। এ ছিল পবিত্র মাহে রমযানে তাঁর দৈনন্দিন আমল।
অসুস্থ হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি কারও থেকে সহযোগিতা নেননি। অসুস্থ হয়ে পড়ার পর তিনি মাওলানা ইমরান মাযহারী, মাওলানা তৈয়্যব ও মাওলানা আনোয়ার জামশেদ সাহেবের সহযোগিতা নিতেন। তারা খাতা দেখে বলতেন আর প্রশিক্ষণার্থীরা লিখতেন।
উল্লেখ্য, সে সময়ের আকর্ষণীয় আরেকটি বিষয় হল, প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীকে বাধ্যতামূলকভাবে তাকরির লিপিবদ্ধ করতে হত। এখন লিপিবদ্ধ না করে ফটোকপি করা হয়।

হযরত মুজাহিদে মিল্লাতের ইন্তিকালের পর এ কোর্সে প্রশিক্ষণ দিতেন হযরত মাওলানা মুফতী তাজুল ইসলাম সাহেব। তিনি ফিরাকে বাতিলার উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করেন। কুরআন মাজীদের তাফসীর প্রশিক্ষণ দেন হযরত মাওলানা মোস্তফা আজাদ রহ., হযরত মাওলানা তৈয়্যব সাহেব ও হযরত মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস সাহেব।হযরত মাওলানা ইমরান মাযহারী সাহেব আরজাবাদে যত দিন ছিলেন ততদিন পর্যন্ত তিনিও প্রশিক্ষণ দিতেন। তিনি অন্যত্র চলে যাওয়ার পর সেখানেও একই নিয়মে পবিত্র কুরআনের তাফসীর প্রশিক্ষণের কোর্স চালু করেছিলেন। হযরত মুফতী তাজুল ইসলাম সাহেব ছাড়া বাকী সবায় হযরত কাসেমী রহ.-এর থেকে তাফসীর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।হযরত মুফতী সাহেব হাফেযুল হাদীস হযরত আব্দুল্লাহ দরখাস্তী রহ.-এর নিকট পবিত্র কুরআনের তাফসীরের প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।

বিগত বছরের ন্যায় ইনশাআল্লাহ এ রমজানেও পবিত্র কুরআনের তাফসীর প্রশিক্ষণ জামিয়া আরজাবাদে পরিচালিত হবে।

তাফসীর প্রশিক্ষণ কোর্সের বৈশিষ্ট্যাবলী নিম্নরূপ-
★ বর্তমান যুগে মানুষের সম্মুখে আল-কুরআনের সার্বজনীন দাওয়াত পেশ করা।
★ আল-কুরআনের আলোকে জীবন সমস্যার সমাধান।
★ প্রতিটি সূরার বিষয়বস্তু আলোচনা করা।
★ সূরা বাকারা ও সূরা আলে ইমরানের প্রতিটি আয়াতের অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য ও শিক্ষা এবং আল কুরআনের বৈপ্লবিক কর্মসূচীসমূহ শিক্ষার্থীদেরকে বিশেষ যত্ন সহকারে শিক্ষা দেয়া।
★ কাদিয়ানী,বাহাই, শিয়া, মওদুদী, খৃস্টান ও ইহুদী ইজমের উপর দালিলিক পর্যালোচনা ও তাদের যুক্তি খন্ডনপূর্বক অসারতা প্রমাণ করা।

প্রশিক্ষণ কোর্সে ভর্তির শর্তাবলী-
* কমপক্ষে জামাতে জালালাইন বা ফাযিল পাশ হতে হবে।
* আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাতের আকীদায় বিশ্বাসী হতে হবে।
* আকাবিরে দারুল উলুম দেওবন্দের আদর্শের অনুসারী হতে হবে।
* ভর্তিচ্ছুক প্রত্যেক ছাত্রকে সনদ বা প্রত্যয়নপত্র জমা দিতে হবে।

এই সংবাদটি 1,130 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com