সোমবার, ০৭ মে ২০১৮ ০৭:০৫ ঘণ্টা

তারুণ্যদীপ্ত একজন মুফতি তাহের কাসেমী

Share Button

তারুণ্যদীপ্ত একজন মুফতি তাহের কাসেমী

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :  মুফতি মো: তাহের কাসেমী,পিতা মরহুম আব্দুল খালেক। ১৯৬৪ সালে নেত্রকোনা জেলার সুসংর্দুগাপুর উপজেলার নোয়াগাও-এ জন্ম। নিজ গ্রামের বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করে জামেয়া হুসাইনিয়া মৌ মাদরাসায় ১ বছর লেখা পড়া করেন। অতপর জামেয়া ইসলামিয়া চরপাড়া ২ বছর অধ্যয়নের পরে ৭ বছর ছিলেন চট্রগ্রামের মেখল মাদরাসায়। হেদায়া (১ বছর) পড়েন দারুল উলুম মুইনুল ইসলাম হাটহাজারীতে। এর পরে উচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য চলে যান দারুল উলুম দেওবন্দে। সেখানে জালালাইন,মেশকাত,দাওরায়ে হাদীস ও ইফতা (৫ বছর) কোর্স শেষ করে ১৯৮৮ সালে দেশে ফিরেন। তিনি দেওবন্দে মুফতি মাহমুদ হাসান গাঙ্গুহী (রহ) এর সান্নিধ্য লাভ করেন। তখনই তার হাতে বায়াতও গ্রহণ করেন। অত:পর ১৯৯৪ সালে ইযাযত প্রাপ্ত হন। দেওবন্দে তাঁর উল্লেখ যোগ্য শিক্ষকগনের মধ্যে ছিলেন, মাওলানা নাছির খান, মাওলানা ওয়াহিদুজ্জামান কিরানবী, মুফতি মাহমুদ হাসান, মাওলানা আব্দুল হক আজমী,মুফতি সাইদ পালনপুরী,মাওলানা সায়্যিদ আরশাদ মাদানী (তিরমিজি),মাওলানা মুফতি ইউসুফ তাওলবী প্রমুখ।
কর্মজীবনে তিনি ১৯৯০-২০০৩ সাল পর্যন্ত জামেয়া ইমদাদিয়া কিশোরগঞ্জে ফতোয়া বিভাগের দায়িত্ব পালন করেন।
২০০৩ সালের শেষের দিকে আল জামেয়াতুল মাহমুদিয়া টিকরপুর,নবাবগঞ্জ এর নায়বে মুহতামিম এর দায়িত্ব পালন করেন। এরপরে জামেয়া মিফতাহুল উলুম নেত্রকোনার মুহতামিম ছিলেন ৭ বছর। ২০০৯ সালের অক্টোবরে নেত্রকোনার ছোট গাড়া এলাকায় দারুল উলুম ইব্রাহিমিয়া প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৬ সালে পবিত্র হজ্ব পালন করেন। ১৯৯১ সালে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাওয়ের নিগুয়ার ইউপির তালোলী গ্রামের বিশিষ্ট আলেম মাওলানা সেকান্দার আলী মীরের কন্যার সাথে পরিনয সুত্রে আবদ্ধ হন। তিনি বর্তমানে ২ ছেলে ও ২ মেয়ের জনক।
তিনি ছাত্র জীবন থেকেই জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের রাজনীতির সর্মথক ছিলেন। ২০১৩ সালের হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফার আন্দোলনের একজন সক্রিয় নেতা। তখন থেকে বর্তমান পর্যন্ত নেত্রকোনা জেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি ও ২০১৫ সালে গঠিত জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কাউন্সিলে তিনি সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিক কারনে তখন উপদেষ্টা হিসেবে ছিলেন। তারই প্রস্তাবে স্বীয় ছাত্র ও জামেয়া হোসাইনিয়া মালনী মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সাহেবকে জমিয়তের সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়। বর্তমানে জেলা ব্যাপী জমিয়তের সাংগঠনিক কার্যক্রম জোরদার করার জন্য তিনি মোটর সাইকেল যোগে দাওয়াতি অভিযান অব্যাহত রেখেছেন। তিনি বলেন, বতৃমান সময়ের তাকাযা হলো উলামায়ে কেরামকে রাজনৈতিক ময়দানে আরো সক্রিয় ভ’মিকা পালস করতে হবে। কিছু দিন আগে সড়ক র্দুঘটনায় তিনি পায়ে আঘাত প্রাপ্ত হন। এর পরেও ১২ মে নেত্রকোনা জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের তরবিয়তি মাহফিলকে কামিয়াব করার জন্য যে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ,তা দেখে আমরা (তরুণরা) সত্যিই অনুপ্রাণিত। গত কয়েকদিনে ৮ টি উপজেলা সফর করেছি তার সাথে। বিশেষ করে নেত্রকোনা জেলা সদর থেকে কলমাকান্দা ও র্দুগাপুর হয়ে আবারো জেলা সদরে প্রায় ১২০ মি: নজির বিহীন ভাঙ্গা রাস্তায় তিনি নিজেই মোটর বাইক চালিয়েছেন। একই দিনে এতো লম্বা সফরে আমি তাঁর পিছনে বসে থেকেও অনেকটা ক্লান্ত ছিলাম,কিন্তু তার মধ্যে কোন প্রকার দুর্বলতা লক্ষ্য করিনি। এই বয়সে তিনি আকাবির আসলাফের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন জমিয়তকে নিয়ে ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার যে,স্বপ্ন দেখেন আল্লাহপাক যেনো তার সেই হৃদয়ের আকুতি কবুল করেন। আল্লাহপাক এই মর্দে মুজাহিদকে র্দীঘ নেক হায়াত দান করুন।

এই সংবাদটি 1,068 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com