Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী চলে যাওয়ার ১৩ বছর
বুধবার, ০৯ মে ২০১৮ ০৪:০৫ ঘণ্টা

শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী চলে যাওয়ার ১৩ বছর

Share Button

শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী চলে যাওয়ার ১৩ বছর

 

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : মানুষ মরণশীল। কেউই অমর নন। প্রত্যেকেরই পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে । যারা চলে যান তাদের কেউ ফিরে আসেন না। আর ফিরে না আসাটাই পৃথিবীর চিরন্তন নিয়ম। মানুষের কর্মই জীবন। সু-মহৎ কর্মের মধ্যেই মানুষ বেঁচে থাকে মানব হৃদয়ে,যুগযুগান্তরে। জন্ম ও মৃত্যুর মধ্যবর্তী সময়ে দুনিয়ার জিন্দেগীতে মানব সন্তান যেসব মহৎ কর্মকান্ডে নিজেকে নিয়োজিত রাখে তা দিয়েই মূল্যায়ন করা হয় তাকে। মানব কল্যানে আত্মনিবেদিত সেই মহৎ কর্মবীরদেরই অন্যতম এক সিপাহ সালার মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)। তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। দেশ ও জাতির কল্যাণে দীর্ঘ অর্ধশতাব্দি কাল তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে বিগত ২০০৫ সালের ২০ ই মে ইন্তেকাল করেন।
‘মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী’ এদেশের ইসলামী আন্দোলনের অনন্যব্যক্তিত্ব ;এক লড়াকু সৈনিকের নাম। ইসলামী সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি আজীবন কাজ করে গেছেন। এক্ষেত্রে ঊপমহাদেশের প্রাচীন তম ইসলামী সংগঠন ‘জমিয়তে ঊলামায়ে ইসলাম’এর সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তারঁ রাজনৈতিক জীবনী গবেষণায় দেখাগেছে রাজনৈতিক ময়দানে শুরু থেকে মৃত্যূপর্যন্ত তিনি একই দলের পতাকাতলে ছিলেন। বাতিলের মোকাবেলায় তারঁ আপোষহীন নেতৃত্ব ছিল সুদৃঢ়। যা আজকের এই সময়ে প্রচন্ড অভাব!
উল্লেখ্য য়ে, তিনি ১৩৩৩ বাংলার ১৪ ই অগ্রহায়ণ মোতাবেক ১৯২৮ সালে সিলেট জেলার বিশ্বনাথ উপজেলার গড়গাওঁ গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তারঁ পিতার নাম মাওলানা জাওয়াদ উল্লাহ ,মাতার নাম মেছা: হাবিবুন্নেছা ওরফে জয়তুন বিবি।
ইসলামী আন্দোলন ঃ পাক আমলে তৎকালীন সিলেটের ঊলামা-মাশায়েখের অনুরোধক্রমে মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীর (র:) আহবানে সিলেটের হাওয়া পাড়া মসজিদে ১৯৬৪ সালের ১লা নভেম্বর তারিখে এক উলামা ও সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে খলিফায়ে মদনী হযরত মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা (র.) কে পৃষ্টপোষক, মাওলানা রিয়াসত আলী রানাপিংগীকে সভাপতি, মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িকে সহ সভাপতি ও মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে সাধারণ সম্পাদক করে সর্বপ্রথম সিলেট জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম গঠন করা হয়। আইয়ূবখানের পতনের পর ১৯৭০ সালে ইয়াহিয়া খান সাধারণ নির্বাচন দেন। জমিয়ত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। উক্ত নির্বাচনে ইসলামী দলগুলোর মধ্যে জমিয়তই কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের অধিক সংখ্যক আসন লাভ করে। জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মুফতী মাহমুদ সীমান্ত প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর না করার অনিবার্য পরিণতিতে স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়। দীর্ঘ ৯ মাস সংগ্রামের পর বাংলাদেশ মুক্ত হয়। বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর বিভিন্ন ইসলামী রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ হলেও জমিয়তে উলামা নিষিদ্ধ হয়নি। স্বাধীনতার পর বন্ধ ঘোষিত মাদরাসা সমূহ খুলে দেবার ব্যাপারে জমিয়ত নেতৃবৃন্দের সাথে শায়খে বিশ্বনাথী (র:)ও গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা রাখেন। স্বাধীন বাংলাদেশে সর্ব প্রথম জানুয়ারি ১৯৭৪ সালে যাত্রাবাড়ী দারুল উলূম মাদানিয়ায় অনুষ্ঠিত এক উলামা সম্মেলনে মাওলানা শ্য়াখ তাজাম্মুল আলী জালালাবাদীকে সভাপতি ও মুফতী আহরারুজ্জামান কে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ গঠন করা হয়। অতঃপর ২৯ অক্টোবর ১৯৭৪ সালে যাত্রাবাড়ী দারুল উলূম মাদানিয়ায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে মাওলানা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি ও মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মজলিসে আমলা গঠন করা হয়। ২৫, ২৬ ডিসেম্বর ১৯৭৬ সালে পাটুয়াটুলি জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে মাওলানা আজিজুল হককে সভাপতি ও মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ পুনর্গঠন করা হয়। উক্ত সম্মেলনে বাংলাদেশের কওমী মাদরাসা সমূহকে একটি বোর্ডের আওতায় আনার জন্য মাওলানা রেজাউল করীম ইসলামাবাদীকে আহবায়ক করে একটি সাব কমিটি গঠন করা হয়। মাওলানা ইসলামাবাদী ১৯৭৮ সালে শায়েস্তা খান হলে কওমী মাদরাসা সমূহের এক সম্মেলন আহবান করেন। উক্ত সম্মেলনে “বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়্যাহ আল-আরাবিয়্যাহ বাংলাদেশ” নামে বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা বোর্ড গঠিত হয়। সেখানে ও শায়খে বিশ্বনাথীর যথেষ্ট অবদান রাখেন। ১৯৮০সালের ২৫ ফেব্র“য়ারি ঢাকার ফরাশগঞ্জস্থ লালকুঠি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত জমিয়তের কাউন্সিল অধিবেশনে মাওলানা আজিজুল হক সভাপতি ও মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমী সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। উক্ত কাউন্সিল অধিবেশনে জমিয়তের গঠনতন্ত্র সংশোধন করা হয় এবং ৩০ ডিসেম্বর ১৯৮০ সালে মজলিসে শুরার অধিবেশনে তা অনুমোদিত হয়। প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নিহত হবার পর জমিয়ত নেতৃবৃন্দের সক্রিয় সহযোগিতায় হযরত হাফেজ্জী হুজুর ১৯৮১ সালের নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তৃতীয় স্থান লাভ করেন। হাফেজ্জী হুজুরের আহবানে জমিয়ত সাময়িকভাবে রাজনৈতিক কর্মকান্ড স্থগিত রেখে হাফেজ্জী হুজুরের নেতৃত্বে খেলাফত আন্দোলনের সহিত রাজনীতি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। সেই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তে মাওলানা বিশ্বনাথীর যুক্তিনির্ভর প্রস্তাব গুলো বর্তমান সময়ে গবেষণার দাবী রাখে । ১৯৮৪ সালে জমিয়তের এক সম্মেলনে খেলাফত আন্দোলন হতে জমিয়তের সমর্থন প্রত্যাহার করা হয় ও মাওলানা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি ও মাওলনা শামছুদ্দীন কাসেমীকে সাধারণ সম্পাদক করে রাজনৈতিক কর্মকান্ড পুনরায় শুরু করা হয়। ২৮মার্চ ১৯৮৮ সালে জামেয়া হোসাইনিয়া আরজাবাদ মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত জমিয়তের কাউন্সিল অধিবেশনে মাওলানা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি, মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমীকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও মাওলানা আশরাফ আলী শায়খে বিশ্বনাথী কে সহ সভাপতি ও সাবেক ধর্মপ্রতিমন্ত্রী মুফতী মুহাম্মদ ওয়াককাসকে মহাসচিব করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠন করা হয়। অতঃপর ১৯৯৪ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত শায়খে বিশ্বনাথী সহসভাপতি নির্বাচিত হয়ে আসছিলেন। ২৩ ও ২৪ জুন ২০০০ সালে অনুষ্ঠিত জমিয়তের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে মাওলানা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি, মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে নির্বাহী সভাপতি করা হয়। ১২ নভেম্বর ২০০১ তারিখে হযরত মাওলানা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়া ইন্তেকাল করেন, তখন নির্বাহী সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব অর্পন করা হয় এবং ২রা ফেব্র“য়ারী ২০০২ সালে মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে নতুন সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ২০০৩ সালের ১লা জুন আরজাবাদে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ১০ জুলাই ২০০৩ সালে মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে নির্বাহী সভাপতির দায়ীত্ব প্রদান করা হয়। ২০০৫ সালের ২০শে মে শায়খে বিশ্বনাথীর ইন্তেকালের পর মাওলানা মুহিউদ্দীন খান কয়েক মাস ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০০৫ সালের শেষ দিকে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে খলিফায়ে মদনী শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ীকে সভাপতি এবং মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে নির্বাহী সভাপতি এবং মুফতী ওয়াক্কাসকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়।

এই সংবাদটি 1,034 বার পড়া হয়েছে