বৃহস্পতিবার, ১০ মে ২০১৮ ০৮:০৫ ঘণ্টা

অবসরে যেতে পুরোপুরি প্রস্তুত অর্থমন্ত্রী

Share Button

অবসরে যেতে পুরোপুরি প্রস্তুত অর্থমন্ত্রী

ডেস্করিপোর্ট: অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, তিনি অবসরে যেতে পুরোপুরি প্রস্তুত। আর দেশে অতি দারিদ্র্যের হার ৫০ থেকে থেকে ১০ শতাংশে নেমে আসা এবং ২০২৪ সালের মধ্যে শূন্যে নামিয়ে আনা যখন এক সম্ভাব্য বাস্তবতা তখন এক ধরনের তৃপ্তি অনুভব করেন তিনি। মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থনৈতিক বিটের সাংবাদিকদের সংগঠন ইআরএফের সঙ্গে এক প্রাক বাজেট আলোচনায় মুহিত এ কথা বলেন।

গত দুই বছর ধরেই মুহিত অবসরে যাওয়ার কথা বারবার বলে আসছেন। তবে শেখ হাসিনার ইচ্ছাই এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ, সেটিও জানিয়ে রাখছেন তিনি। নিজের জীবন এবং কাজের ওপর সন্তুষ্ট অর্থমন্ত্রী। বলেন, ‘ইয়েস আমি এই মুহূর্তে এসে বলি আমি রিটায়ার করার জন্য যে কোনো সময় প্রস্তুত। একান্ত তৃপ্তির সঙ্গে। সবকিছু হয় না। তবে সাবসটেনসিয়াললি ইট হ্যাজ বিন এক্সিকিউটেড।’

‘আমার পোভারটি রেট (দারিদ্র্যে হার) ছিল আমাদের দেশে ৭০ শতাংশ্। এটা আমরা বলতাম। কিন্তু এটা আরও ও বেশি ছিল। নাউ এটা ২২ শতাংশ। এক্সট্রিম পোভার্টি নাউ লেস দেন ১০ পারসেন্ট। যেকোন দেশে এই ধরনের লোক কিছু থাকবে। কিন্তু একটা সময় এটা ৫০ পারসেন্ট ছিল। ২০২৪ সালে আমরা মানসম্মত দেশে চলে যাব। পোভার্টি কমপ্লিট হয়ে যাবে ২০২৪ সালের মধ্যে। আমি অত্যন্ত তৃপ্তির সঙ্গে অবসরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে আছি।’

২০০১ সালে সব কাজ থেকে হতাশ হয়ে অবসরে যাওয়া এবং সিলেট-১ আসন থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার কথা জানান মুহিত। বলেন, ‘এই সময়ে আই ওয়েণ্ট টু শেখ হাসিনা। সি নোমিনেইটেড মি । আই ফেইল্ড।’

‘আমি বললাম, আপনি (শেখ হাসিনা) আমাকে নমিনেশন দিলেন, টাকা পয়সা দিলেন। আই কুড নট ডেলিভার। সো এখন আমার অপশন হচ্ছে আই ইউল ব্যাক টু মাই ইউজুয়াল লাইফ। দ্য সুশীল সমাজে থাকা। ইত্যাদি ইত্যাদি।’

‘তখন তিনি (শেখ হাসিনা) বললেন, ‘আমার কোন আপত্তি নেই ইন ইউর প্রেয়ার। ইফ ইউ ওয়ান্ট। তবে আপনি খুব হইচই করেছেন জালিয়াতি নিয়ে (২০০১ সালের নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ নিয়ে)। এতো হইচই যখন করেছেন। এটার উপর একটা রিপোর্ট বানান। আমি আপনাকে সব রকম সাহায্য দেব। তার জন্য লোক লাগুগ, অর্থ লাগুগ। সবই আপনি পাবেন।’

২০০১ সালের নির্বাচন নিয়ে আপত্তি আছে আওয়ামী লীগের। এই নির্বাচনে তাদেরকে নানা কৌশলে হারানো হয়েছিল বলে দাবি দলটির। আর কীভাবে এই ঘটনাটি ঘটেছে, তার তথ্য প্রমাণ যোগাড় করে একটি প্রতিবেদনও তৈরি করেছেন মুহিত, যেটি বই আকারে প্রকাশ হয়েছে।

মুহিত সেই কাজ শুরুর কাহিনি তুলে ধরেন এ সময়। জানান শেখ হাসিনা তাকে সে সময় বলেন, ‘মানুষ, পয়সা এভিডেন্স, আই ইউল অ্যাক্স মাই এমপিস তারা সবাই আপনাকে হেল্প করবে। যেটা আপনি চান।’

‘তখনি আমি বললাম ইট ইজ অ্যা গুড প্রপোজাল।  আমি এটা করব।’

তিনি বললেন, ‘কয়মাস সময় লাগবে?

‘আমি বললাম, ন্যূনতম ছয় মাস। এর বেশিও লাগতে পারে। এই সময়টা ওয়ার্ক ফর মি।’

সে সময়ের বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার এই কাজে বাধা দিয়েছিল বলে জানান মুহিত। বলেন, ‘আমার একটা অফিস হল উনার বাড়ির পাশে। সেটা খালেদা জিয়া দুই তিনদিন পরেই ভেঙে দিলেন। পুলিশ দিয়ে তালা মেরে দিলে। কাগজপত্র লুটপাট করে নিয়ে গেল। এরপর আরেকটা বাড়িতে গেলাম। সেটা তার বাড়ির একটু দূরে।  সেখানে কাজ-কম্ম শুরু করলাম।’

‘ওখানে কিছুদিন কাজ করার পর তিনি বললেন না আপনি আমার বাড়িতে চলে আসেন। আমি রুম এক্সটেনশন করলাম। সেখানে আপনি আর যেসব লোক লাগবে তা দেয়া হবে। এরপর কাজ করলাম।’

‘২০০২ সালে সেই রিপোর্ট প্রকাশ হল। এইটা করার পর আমাকে আরও কিছু কাজ দিল পার্টি কনভেনশন এর। সেটা আমি করলাম। সেই কনভেনশনে আমাকে উপদেষ্টা করা হল। দেন আই স্টার্ট মাই ক্যারিয়ার ইউথ হার।’

আমার পেনশন চার হাজার, এরা পান ৭৮ হাজার

এক সময় সরকার চাকুরে মুহিত অবসরে যাওয়ার পর ৯০০ টাকা পেনশন পেতেন। সে কথাটিও তুলে ধরেন মুহিত। বলেন, ‘এখন এটা বাড়তে বাড়তে চার হাজার টাকা হয়েছে।’

সামনে বসা এনবিআর চেয়ারম্যান এবং অর্থ সচিব মুসলিম চৌধুরীর দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘এনারা ৭৮ হাজার টাকা পান। আর আমি চার হাজার টাকা পাই।’

একথা শুনে উপস্থিত সবাই হেসে উঠেন।

মুহিত বলেন, ‘আমি ব্রিটিশ আইনে রিটায়ার্ড। আমিই প্রথম বাংলাদেশে পেনশন রিফরমস শুরু করি। এর আগে কোনো পেনশন রিফরমস ছিল না। সুতরাং এর আগে পেনশন পেতে অনেক দিনের হিসাব নিতে হতো। এভারেজ করতে হতো। এসব করতে করতে ইউ উইল গেট পেনশন।’

এই সংবাদটি 1,018 বার পড়া হয়েছে