Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | বুঝিয়ে দেয়ার পরদিনই ভেঙে চুরমার কোটি টাকার রাস্তা!
বৃহস্পতিবার, ১০ মে ২০১৮ ০৮:০৫ ঘণ্টা

বুঝিয়ে দেয়ার পরদিনই ভেঙে চুরমার কোটি টাকার রাস্তা!

Share Button

বুঝিয়ে দেয়ার পরদিনই ভেঙে চুরমার কোটি টাকার রাস্তা!

ডেস্করিপোর্ট: পাবনার ঈশ্বরদীতে প্রায় এক কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত ৪ কিলোমিটার রাস্তা উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরে বুঝিয়ে দেওয়ার পরদিনই বিভিন্ন স্থানে ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে। কোথাও কোথাও কুচি পাথরসহ রাস্তার উপরের অংশ উঠে গেছে।

ঠিকাদারের পক্ষ থেকে সোমবার (৭ মে) রাস্তা এলজিইডি অফিসে বুঝিয়ে দেওয়ার পরদিন মঙ্গলবার সকালেই রাস্তার এই হাল দেখে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সকালে উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের চানমারি মোড়ে বিপুল সংখ্যক এলাকাবাসী জড়ো হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এ সময় ওই রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে দেন তারা।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল মামুন, উপজেলা প্রকৌশলী মো. এনামুল কবীর, সাঁড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদারসহ প্রকৌশল অধিদপ্তরের অন্যান্য সহকারী প্রকৌশলীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে রাস্তা পুণ:নির্মাণের আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ঠিকাদারের লোকজন তড়িঘড়ি করে এই রাস্তার কাজ করেছেন, কাজের সময় বিটুমিনের বদলে পোড়া মবিলের সঙ্গে পাথর মিশিয়ে রাস্তায় দেওয়া হয়েছে। কাজের সময় এসব ঘটনার প্রতিবাদ জানালে ঠিকাদারের লোকজন তাদের উল্টো ক্ষমতার দাপট দেখিয়েছেন।

এ বিষয়ে ঠিকাদার জিন্নাত আলী জিন্না বলেন, এই রাস্তার ধারণ ক্ষমতা ১৫ থেকে ১৮ টন, কিন্তু রাস্তা দিয়ে ৪০ টন ওজনের ড্রাম ট্রাকে বালু বহনের কারণে বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গেছে।

ঈশ্বরদী উপজেলা প্রকৌশলী মো. এনামুল কবীর বলেন, রাস্তার ভাঙা অংশ আমরা খুব দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা করবো। ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন বলেন, আমি সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে দ্রুত ভাঙা অংশ মেরামতের নির্দেশ দিয়েছি।

উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্র জানায়, ৮২ লাখ টাকা ব্যায়ে উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) তত্ত্বাবধানে ঈশ্বরদীর আসনা জিপিএস থেকে চানমারি পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার রাস্তা কার্পেটিং কাজ সোমবার সম্পন্ন হয়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ঠিকাদার জিন্নাত আলী জিন্না রাস্তাটি উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তরে এ দিনই বুঝিয়ে দেন।

অপর একটি সূত্র জানায়, পাবনা এলজিইডির কতিপয় কর্মকর্তার যোগসাজশে জেলার বিভিন্ন উপজেলা এবং গুরুতপূর্ণ প্রকল্পগুলি নামমাত্র কাজ হচ্ছে। তারা বিভিন্ন প্রকল্পে নিন্মমানের মালামাল ব্যাবহার করে সমুদয় বিল তুলে সরকারের কোটি কোটি টাকার বিল হাতিয়ে নিচ্ছেন।

এ ছাড়া জিন্নাত আলী জিন্নাহ নামের ঠিকাদার পাবনার কয়েকজন নেতাকে কমিশন দিয়ে এলজিইডির প্রায় ৫ কোটি টাকার কাজ একাই করছেন। এ সব প্রকল্প নিয়ে কেউ অভিযোগ করলে তাদের বিরুদ্ধে নানা হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে।

দুদকসহ বিভিন্ন সংগঠন বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখবেন বলে স্থানীয় অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। এ সব অভিযোগ নাকচ করে পাবনা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, পোড়া মবিল দিয়ে রাস্তার পিচ দেওয়া অসম্ভব।

এই সংবাদটি 1,036 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com